সিঙ্গুরের মাটি থেকেই ঘুরে দাঁড়ানোর লড়াই শুরু বামেদের

353
Image: The News বাংলা
Image: The News বাংলা
Simple Custom Content Adder

The News বাংলা, সিঙ্গুর: বিজেপির রথযাত্রা, তৃণমূলের পবিত্র ও শান্তি যাত্রার কর্মসূচি ঘোষিত হওয়ার পর এবার সিপিএমের সিঙ্গুর লং মার্চ। সিঙ্গুর থেকে রাজভবন পর্যন্ত লং মার্চ শুরু হল সিপিএমের কৃষকসভা ও খেতমজুর সংগঠনের ব্যানারে।

মহারাষ্ট্রের কিষান লং মার্চের ধাঁচে বুধবার ২৮ নভেম্বর সিঙ্গুর লং মার্চ শুরু হল। রাজ্যের প্রাক্তন শাসক দলের উদ্যোগে সিঙ্গুরে দুর্গাপুর এক্সপ্রেসওয়েতে এই লং-মার্চ শুরু হল সিপিএমের কৃষকসভা ও খেতমজুর সংগঠনের ব্যানারে। আগামীকাল ২৯ নভেম্বর কলকাতায় জনসভার মধ্যে দিয়ে এই লং-মার্চ শেষ হবে।

Image: The News বাংলা
Image: The News বাংলা

মহারাষ্ট্রের কিষান লং মার্চ হয়েছিল নাসিক থেকে মুম্বই। সেই লং মার্চ অতিক্রম করেছিল প্রায় ১৮০ কিলোমিটার পথ। সিঙ্গুর থেকে কলকাতার দূরত্ব প্রায় ৫২ কিলোমিটার। পায়ে হেঁটেই এই রাস্তা যাবে মিছিল।

সিঙ্গুরে পুরোনো টাটা প্রকল্পের অন্তর্গত জমিতে চাষ না হওয়ার অভিযোগ তুলে ‘শিল্প চাই ও কাজ চাই’, এই স্লোগান দিয়ে লং মার্চ করছে আলিমুদ্দিন স্ট্রিট। বালি থেকে জিটি রোড ধরে হাওড়া ব্রিজ দিয়ে কলকাতায় প্রবেশ করবে মিছিল।

মহারাষ্ট্রের ‘কিসান লং মার্চ’-এর আদলে সিঙ্গুর থেকে আজ বেলা ১১টা নাগাদ এই কর্মসূচির সূচনা করলেন কৃষকসভার সাধারণ সম্পাদক ও সিপিএমের পলিটবুরো সদস্য হান্নান মোল্লা। ডানকুনি হয়ে ওই মিছিল এ দিনই হাওড়ায় ঢুকবে। সিপিএম নেতৃত্বের আশা, বৃহস্পতিবার ২৯ নভেম্বর অন্তত ৫০ হাজার লোকের মিছিল নিয়ে রাজভবনে পৌঁছবেন তারা।

তখনকার বিরোধী দল তৃণমূল কংগ্রেসের প্রবল বিক্ষোভের মুখে পড়ে বছর দশেক আগে সিঙ্গুর থেকে গুজরাতের সানন্দে ন্যানো কারখানা সরিয়ে নেয় টাটা গোষ্ঠী। রাজ্যের বর্তমান শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের সেই ‘শিল্প-বিরোধী ভূমিকা’কেই ফের সামনে আনতে সিঙ্গুর থেকেই পদযাত্রার শুরু করছে সিপিএম।

Image: The News বাংলা
Image: The News বাংলা

হুগলি জেলা সিপিএম সম্পাদক দেবব্রত ঘোষ বলেন, ‘সিঙ্গুর তথা রাজ্যে শিল্পের দাবিতেই আমাদের এই হাঁটার কর্মসূচি’। কৃষকসভার সাধারণ সম্পাদক ও সিপিএমের পলিটবুরো সদস্য হান্নান মোল্লা জানিয়েছেন,’ভোট নয় রাজ্যে শিল্পায়নই এই লং মার্চের প্রধান উদ্দেশ্য। তিনি জানান, সিঙ্গুর রাজ্যে শিল্পায়নের জোয়ার খুলে দিত, মমতার তৃণমূলের জন্যই সেটা হয় নি।’

সিঙ্গুর আর নন্দীগ্রামকেই বামেদের পতনের অন্যতম কারণ বলে মনে করা হয়। সেই সিঙ্গুর থেকেই কি ঘুরে দাঁড়ানোর লড়াই শুরু করল বামফ্রন্ট ? রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা তেমনই মনে করছেন। তবে তৃণমূল-বিজেপির দাপটে বামেরা তাদের হারানো জায়গা কতটা উদ্ধার করতে পারে সেটাই এখন দেখার।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন