মন্দিরের ৪৭ হাজার একর জমি বেদখল, ‘লস্ট টেম্পেলস’ মামলায় বড় পদক্ষেপ নিল আদালত

2196
মন্দিরের ৪৭ হাজার একর জমি বেদখল, 'লস্ট টেম্পেলস' মামলায় বড় পদক্ষেপ নিল আদালত
মন্দিরের ৪৭ হাজার একর জমি বেদখল, 'লস্ট টেম্পেলস' মামলায় বড় পদক্ষেপ নিল আদালত

মন্দিরের ৪৭ হাজার একর জমি বেদখল; ‘লস্ট টেম্পেলস’ মামলায় বড় পদক্ষেপ নিল আদালত। “মন্দিরের জমি থাকবে মন্দিরের”; পরিষ্কার জানিয়ে দিল মাদ্রাস হাইকোর্ট। ‘লস্ট টেম্পেলস” মামলায় বড় পদক্ষেপ নিয়ে; তামিলনাড়ু সরকারের কাছে মন্দিরের বেদখল হওয়া; ৪৭ হাজার একর জমি নিয়ে জবাব চেয়েছে মাদ্রাস হাইকোর্ট। ১৯৮৪-৮৫ এর রাজ্য সরকারের পলিসি নোট অনুযায়ী; মন্দিরের মোট জমি ছিল ৫.২৫ লক্ষ একর। ২০১৯-২০ এর পলিসি নোটে; সেই জমি কমিয়ে ৪.৭৮ লক্ষ একর বলা হয়েছে। এতেই ক্ষুব্ধ মাদ্রাস হাইকোর্ট; জবাব তলব করল তামিলনাড়ু সরকারের কাছে।

মাদ্রাস হাইকোর্টের বিচারপতি আর মহাদেবন (Justices R Mahadevan) ও বিচারপতি পিডি অউদিকেশাভালু (PD Audikesavalu); ২২৪ পাতার রায়ে পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছেন; তামিলনাড়ু সরকার ও প্রত্নতাত্ত্বিক সার্ভে অফ ইন্ডিয়া (ASI); নিজের কাজ একদম ঠিকঠাক করছে না। মন্দিরের জায়গা কোনমতেই; বেদখল হতে দেওয়া যাবে না। রাজ্যের মধ্যে থাকা ঐতিহাসিক/প্রত্নতাত্ত্বিক গুরুত্বের সঙ্গে; সমস্ত স্থাপত্য, স্মারক, মন্দির, প্রাচীন বস্তুগুলোর জমি রক্ষা করতে হবে।

আরও পড়ুন; শপথ নিয়েও দেশের সংসদে মিথ্যা তথ্য দিয়েছেন, তৃণমূল সাংসদ নুসরত জাহান

বিচারপতিরা স্পষ্ট বলেছেন যে, রাজ্য সরকারের পলিসি নোট খতিয়ে দেখার পর; এটাই বোঝা যাচ্ছে যে; মন্দিরের ৪৭ হাজার একর জমি বেদখল হয়ে গিয়েছে। আদালত তামিলনাড়ু সরকার আর প্রত্নতাত্ত্বিক সার্ভে অফ ইন্ডিয়া (ASI) কে; রাজ্যের মধ্যে থাকা সমস্ত স্থাপত্য, স্মারক, মন্দির, প্রাচীন বস্তুগুলোকে চিহ্নিত করার জন্য; ১৭ সদস্যের একটি কমিশন গঠন করার নির্দেশ দিয়েছে। এছাড়াও আদালত রাজ্য সরকারকে এই বিষয়ে পর্যবেক্ষণের পাশাপাশি; মন্দির এবং স্মারকগুলোকে মেরামত করার নির্দেশ জারি করেছে।

আদালত বিশেষ করে প্রতিটি মন্দিরে স্ট্রং রুম সহ; মূর্তির সুরক্ষা সুনিশ্চিত করার জন্য ভিডিও সার্ভিল্যান্স আর সমস্ত মূর্তির কম্পিউটারাইজড তথ্য সহ; সেগুলোর ছবির সুরক্ষার জন্য নির্দেশ জারি করেছে। বিচারপতিরা বলেছেন যে, রাজ্য সরকার ১৯৮৪-৮৫ সালের পলিসি নোটে দেওয়া জমির বিবরণ; আর নতুন নোটের জমির বিবরণের সমীক্ষা সহ; একটি হলফনামা দায়ের করুক। আদালত বলেছে, মানব সম্পদ আর CE বিভাগকে এই বিষয়ে তথ্য জমা করার জন্য; যেন কোনও সমস্যা না হয়, কারণ এই রিপোর্টেই জমি বেদখল হওয়ার তথ্য থাকবে।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন