শুধু বাংলায় নয়, মোদী ও যোগী গড়েও এবার মমতার ২১ শে জুলাই ভাষণ

2190
শুধু বাংলায় নয়, মোদী ও যোগী গড়েও এবার মমতার ২১ শে জুলাই
শুধু বাংলায় নয়, মোদী ও যোগী গড়েও এবার মমতার ২১ শে জুলাই

শুধু বাংলায় নয়, মোদী ও যোগী গড়েও; এবার মমতার ২১ শে জুলাই ভাষণ। তৃতীয়বারের জন্য বাংলা দখলের পরে; এবার পাখির চোখ দিল্লি। টার্গেট দিল্লি; ইতিমধ্যেই তা স্পষ্টভাবে ঘোষণা করে দিয়েছে; তৃণমূল কংগ্রেস। সেই লক্ষ্যে পৌঁছনর প্রথম পদক্ষেপ, আগামী ২১ জুলাই থেকেই; শুরু করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যেহেতু এবার করোনা আবহে শহিদ দিবস সমাবেশ ভার্চুয়াল; তাই গোটা দেশে নিজেদের দলনেত্রীর বার্তা পৌঁছে দিতে; বিরাট উদ্যোগ নিয়েছে ঘাসফুল শিবির। একাধিক রাজ্যে যে জায়ান্ট স্ক্রিন লাগিয়ে, মমতার ভাষণ শোনানো হবে; সে কথা আগেই জানিয়েছিলেন তৃণমূল নেতৃত্ব। তবে এ বার স্পষ্ট করে দেওয়া হয়েছে, কোন কোন রাজ্যের মানুষ; তৃণমূল নেত্রীর ভাষণ শুনতে পাবেন।

বাংলা জয়ের পর এবার; তৃণমূলের লক্ষ্য, ‘দিল্লি চলো’। এই আবহে এবার সরাসরি গুজরাতে পৌঁছাতে চলেছে; তৃণমূল সুপ্রিমোর বার্তা। আগেই জানা গিয়েছিল যে দেশের বিভিন্ন রাজ্যে; ২১-এ জুলাইয়ে মমতার দেওয়া ভাষণ শোনানো হবে। বেশ কয়েকটি রাজ্যে। সেই রাজ্যের তালিকায় যুক্ত হয়েছে; মোদীর গুজরাতের নাম। সূত্রের খবর, গুজরাটের ৩২ টি জেলায় মোট ৫০ টি জায়ান্ট স্ক্রিন লাগিয়ে; মমতার ভাষণ শোনানো হবে।

আরও পড়ুনঃ মাস্ক না পড়ে বেরোলেই ধরছে পুলিশ, কমিশনার রাস্তায় ঘুরলেন মাস্ক ছাড়াই

শুধু গুজরাত নয়, খোদ দিল্লিতেও চালবে; মমতার ভাষণ। এমনকি যোগী রাজ্য উত্তরপ্রদেশের একাধিক জেলাতেও; মমতার ভাষণ শোনান হবে। ২১-এর ভাষণ শোনা যাবে তামিলনাড়ু; পঞ্জাব এবং ঝাড়খণ্ডেও। ত্রিপুরা এবং অসমেও মমতার বক্তব্য; শোনানো হবে বলে জানা গিয়েছে। ভিন রাজ্যে ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে; এই অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি। পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে, রাজধানীর কোনও একটি স্থানে; জায়ান্ট স্ক্রিন লাগানো হবে। সেখানে বসেই নেত্রীর বক্তৃতা শুনবেন; তৃণমূল সাংসদরা।

এছাড়া উত্তরপ্রদেশ ও পাঞ্জাব সহ দেশের বিভিন্ন রাজ্যেও; একইভাবে জায়ান্ট স্ক্রিনের ব্যবস্থা করে; মমতার বন্দ্যোপাধ্যায়ের বক্তৃতা শোনানোর ব্যবস্থা হচ্ছে। রাজনৈতিক মহ্লের মতে, আগামী ২১ জুলাই জাতীয় রাজনীতির প্রেক্ষাপটে; অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হতে চলেছে। কারণ সেদিন থেকেই, সর্বভারতীয় স্তরে তৃণমূল নেত্রী মমতা সরাসরি মোদীর বিরুদ্ধে নিজেকে; দেশের বিরোধী নেত্রী হিসেবে তুলে ধরার চেষ্টা করবেন। ফলে এবারের শহিদ দিবস যে অন্যান্য শহিদ দিবসের থেকে, একেবারেই আলাদা হবে; তা একপ্রকার নিশ্চিত।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন