মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পর ইমরান খান, ভূগোলকে গুলিয়ে হাসির কমেডি

307
মমতার বন্দ্যোপাধ্যায়ের পর ইমরান খান, ভূগোলকে গুলিয়ে হাসির কমেডি/The News বাংলা
মমতার বন্দ্যোপাধ্যায়ের পর ইমরান খান, ভূগোলকে গুলিয়ে হাসির কমেডি/The News বাংলা

বাংলায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মত; এবার ভৌগোলিক শিক্ষার ‘অসাধারণ প্রমাণ দিলেন’; পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তাঁর ভৌগোলিক জ্ঞানের নিদর্শণে; ‘মুগ্ধ’ গোটা দেশ। এদিন তাঁর বক্তব্য থেকে; গোটা পৃথিবীর মানিচিত্রই বদলে গেল। জার্মান ও জাপান; পাকিস্তানের প্রতিবেশী দেশ হয়ে গেল; তার বক্তব্য অনুযায়ী। হাসির কমেডি দেখে; ভরে গেল সোশ্যাল মিডিয়া।

এর আগে ‘পাকিস্তান সীমান্তের ওপর বাংলাদেশ’; এমনই বক্তব্য পেশ করেছিলেন; মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর মতে; ‘বাংলাদেশ ইজ অন দ্য বর্ডার অব পাকিস্তান’। এই মন্তব্য-র পর; তিনি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভীষণভাবে ট্রোলড হয়েছিলেন।

আরও পড়ুনঃ পাকিস্তানের নির্দেশে, ফের কাশ্মীরে শুরু ভারতীয় সেনার উপর পাথর ছোঁড়া

এরপরই পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের বক্তব্যে; গোটা এশিয়া আর ইউরোপের ভৌগলিক দূরত্ব ঘুচে যায়। জার্মানি আর জাপান হয়ে গেল; পাকিস্তানের প্রতিবেশী দেশ। এদের মধ্যে ৯ হাজার কিলোমিটারেরও বেশি দূরত্ব; একমুহূর্তে মুছে দিলেন পাক প্রধানমন্ত্রী। দুনিয়া জুড়ে ট্রোলড হলেন ইমরান।

শিল্পপতি আনন্দ মহিন্দ্রা; তাঁর টুইটার অ্যাকাউন্টে একটি ভিডিও শেয়ার করেন। এই ভিডিওতে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী বলছেন; “দুটো দেশ যত বেশি নিজেদের মধ্যে বাণিজ্য বাড়াবে; দুদেশের মধ্যে সম্পর্ক তত ভাল হবে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের আগে পর্যন্ত; জার্মানি আর জাপান লক্ষ লক্ষ মানুষকে হত্যা করেছে।

আরও পড়ুনঃ নীল পদ্মে দুর্গা পুজো করেছিলেন রাম, পদ্মে বসা দুর্গা ঠাকুর বাতিল করল তৃণমূল

কিন্তু এখন জাপান আর জার্মানির সীমান্তে; যৌথ শিল্প-কারখানা রয়েছে। যেহেতু এখন দুদেশের অর্থনীতি; একই বিষয়ের উপর নির্ভর করছে; তাই তারা কখনোই একে অপরের সঙ্গে সম্পর্ক নষ্ট করবে না”।

এরপরই ইমরানের এই ভিডিওটি পোস্ট করে; রসিকতা শুরু হয়। এই ভিডিও পোস্ট করে আনন্দ মহিন্দ্রা তাঁর টুইটে লেখেন; “ভাগ্যিস এই ব্যক্তি আমার ইতিহাস ভূগোলের শিক্ষক ছিলেন না; ঈশ্বরকে ধন্যবাদ!”

ইমরানের এই ভিডিও সামনে আসতেই; ব্যঙ্গ-বিদ্রুপ করেছে অনেকে নেটিজেনই। দুটি আলাদা মহাদেশে অবস্থিত জাপান আর জার্মানিকে; ইমরান যেভাবে প্রতিবেশী দেশ বানিয়ে দিলেন; তাতে তাঁর ভূগোলের জ্ঞান নিয়ে কটাক্ষও করেছেন অনেকে।

এমনকি অনেকে বলেছে; ‘ভাগ্যিস ইমরান আমাদের প্রধানমন্ত্রী নন!’ এরআগেও পাক প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন; “বুলেট ট্রেন আলোর গতিবেগের থেকেও বেশি জোরে চলে”। এরপরও তিনি অনেক সমালোচনার মুখে পরেছিলেন।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন