শোভনদেবকে এগিয়ে দিয়ে, হারার ভয়েই কি ভবানীপুরে লড়ছেন না মমতা

744
শোভনদেবকে এগিয়ে দিয়ে, হারার ভয়েই কি ভবানীপুরে লড়ছেন না মমতা
শোভনদেবকে এগিয়ে দিয়ে, হারার ভয়েই কি ভবানীপুরে লড়ছেন না মমতা

মানব গুহ, কলকাতাঃ শোভনদেবকে এগিয়ে দিয়ে, হারার ভয়েই কি; ভবানীপুরে লড়ছেন না তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়? রাজ্য রাজনীতির এটাই এখন বড় প্রশ্ন। শোভনদেবই কেন ‘বলির পাঁঠা’? হারার ভয়ে যখন ভবানীপুরে লড়ছেন না মমতা; তখন নিজের জেতা আসন রাসবিহারী ছেড়ে; কেন বর্ষীয়ান শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়কে, ভবানীপুরে দাঁড় করানো হচ্ছে? প্রশ্ন আমজনতার পাশাপাশি; তৃণমূল ও শোভনদেব অনুগামীদেরও। তৃণমূল সূত্রে খবর, আসন্ন বিধানসভা ভোটে; শুধুমাত্র নন্দীগ্রামেই প্রার্থী হচ্ছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সূত্রের খবর, ভবানীপুর আসন থেকে; এবার লড়াই করছেন না তৃণমূল নেত্রী। শুধু নন্দীগ্রামেই তিনি; ভোটযুদ্ধে অবতীর্ণ হবেন। দুবারের জেতা আসন; ছেড়ে নন্দীগ্রাম যাচ্ছেন তৃণমূল নেত্রী।

ভবানীপুর আসন থেকে এবার জেতা কঠিন আছে; নেত্রীকে জানিয়েছেন পরামর্শদাতা প্রশান্ত কিশোর। এরপরেই, নন্দীগ্রামের তেখালির জনসভায় তৃণমূল নেত্রী ঘোষণা করেছিলেন; “ভবানীপুর আমার ‘বড় বোন’। ‘মেজো বোন’ নন্দীগ্রাম। আমি যদি নন্দীগ্রামে দাঁড়াই; কেমন হয়! সুব্রত বক্সিকে বলছি; এটা আমার মনোবাসনা। ভবানীপুরকেও উপেক্ষা করছি না”। দলনেত্রীর ইচ্ছাকে মর্যাদা দেওয়ার পর; মঞ্চেই তাঁকে প্রার্থী হিসাবে প্রায় ঘোষণা করেই দেন; তৃণমূলের রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সি।

আরও পড়ুনঃ নিজের ওয়ার্ডে ‘লিড’ দিতে পারলেই, ১ কোটি টাকার পুরস্কার ঘোষণা তৃণমূলের

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নন্দীগ্রামে প্রার্থী হওয়ার ইচ্ছাপ্রকাশ করার পরই; সদ্য বিজেপি যোগ দেওয়া শুভেন্দু অধিকারী চ্যালেঞ্জ ছুঁড়েছিলেন যে; “তৃণমূল নেত্রীকে একটাই আসন থেকে প্রার্থী হতে হবে; দু-জায়গায় দাঁড়াতে দেব না”। ভবানীপুর ছেড়ে; সেই চ্যালেঞ্জেরও জবাব দিলেন মমতা। এরপর নন্দীগ্রামের প্রাক্তন বিধায়ক শুভেন্দু অধিকারী, চ্যালেঞ্জ ছোড়েন; “আপনাকে নন্দীগ্রামেই দাঁড়াতে হবে। পদ্ম ফুল নিয়ে যে দাঁড়াবে; তাঁকে আধ লাখ ভোটে হারাব”। বিজেপি নেতারাও বলতে শুরু করেন; “ভবানীপুরে হারবেন বলে; আর একটা নিরাপদ আসন খুঁজছেন মমতা”।

এবার শুধু নন্দীগ্রামেই; তিনি লড়াই করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে খবর। লড়াইয়ের প্রস্তুতি নিচ্ছেন মমতা। সেখানে তিনি থাকবেন বলে; শেখ সুফিয়ানের বাড়ির কাছে; একটি বাড়ি ভাড়া করা হয়েছে। ২০১১ সালে ভবানীপুর আসনটি; দলনেত্রীর জন্য ছেড়েছিলেন সুব্রত বক্সি। ওই আসনে উপনির্বাচনে; জিতেছিলেন মমতা। ২০১৬ বিধানসভা ভোটে ভবানীপুরে; ২৫ হাজারের বেশি ব্যবধানে জিতেছেন; কমে গিয়েছিল লিড। তবে লোকসভা নির্বাচনের নিরিখে; সেখানে মাত্র ৩১৬৮ ভোটে এগিয়ে তৃণমূল। তবে, নিজে না লড়লেও; মমতার কাছে ভবানীপুরও বেশ গুরত্বপূর্ণ আসন। সেখানেও সম্মান বজায় রাখার লড়াই।

আরও পড়ুনঃ প্রার্থী তালিকা ঘোষণা হলেই বি’দ্রোহের আ’শঙ্কা, তৃণমূল ভবনে ডাক নেতাদের

সে কারণে ওই কেন্দ্রে প্রার্থী করা হতে পারে; বর্ষীয়ান শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়কে। এদিকে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ‘চ্যালেঞ্জ’; গ্রহণ করতে চলেছেন শুভেন্দু অধিকারী। তৃণমূলের আন্দোলনের ঘাঁটি ও অধিকারীদের গড় নন্দীগ্রামে, প্রার্থী হয়ে; দলত্যাগী শুভেন্দুকে কঠিন পরীক্ষার মুখে ফেলেছিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো। রাজ্যের প্রাক্তন পরিবহণ মন্ত্রী, সেই চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করে; মমতার বিরুদ্ধেই ‘পরীক্ষায়’ বসবেন বলে জানিয়ে দিয়েছেন; বিজেপির সর্বভারতীয় নেতাদের।

শুক্রবারের মধ্যেই জানা যাবে, সত্যি কি নন্দীগ্রামে মমতা বনাম শুভেন্দু? আর সেটা হলে, শুধু বাংলা নয়; ভারতের নজর থাকবে সেই নন্দীগ্রামের দিকেই। বাংলা বিধানসভা ভোটে ২৯৪ আসনে ভোট হবে; তবে ধারে ভারে এগিয়ে থাকবে নন্দীগ্রামে মমতা শুভেন্দু লড়াই।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন