দু বছর আটকে রেখে, ভোটের মুখে ‘মোদীর প্রকল্প’ বাংলায় চালু করতে অনুমতি মমতার

3681
দু বছর আটকে রেখে, ভোটের মুখে 'মোদীর প্রকল্প' বাংলায় চালু করতে অনুমতি মমতার
দু বছর আটকে রেখে, ভোটের মুখে 'মোদীর প্রকল্প' বাংলায় চালু করতে অনুমতি মমতার

দু বছর আটকে রেখে, ভোটের মুখে; ‘মোদীর প্রকল্প’ বাংলায় চালু করতে অনুমতি মমতার। আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের আগে; বিজেপির লাগাতার আক্রমণের মুখে পরে; অবশেষে বড় পদক্ষেপ করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন নবান্নের সভাঘরে, মমতা জানিয়ে দিলেন; এবার পশ্চিমবঙ্গেও চালু হতে চলেছে; প্রধানমন্ত্রী কৃষক সম্মান নিধি প্রকল্প। এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় কৃষি মন্ত্রীর সঙ্গে; কথা হয় মুখ্যমন্ত্রী মমতার। শীঘ্রই রাজ্যেও এই প্রকল্প শুরু হবে; যেমন চালু হয়েছে গোটা দেশে। কিষাণ সম্মান নিধি প্রকল্প নিয়ে; শেষ পর্যন্ত কেন্দ্র-রাজ্য সংঘাতের ইতি হল; বলাই যায়। সোমবার নবান্ন থেকে, রাজ্যে ‘কিষাণ সম্মান নিধি’ প্রকল্প; চালু করার অনুমতি দিলেন মুখ্যমন্ত্রী।

মুখ্যমন্ত্রী এদিন নবান্নে জানান; “আমার সঙ্গে কৃষিমন্ত্রী কথা হয়েছে। আমাদের টাকাটা পাঠিয়ে দিলে; আমরাই কৃষকদের দিয়ে দিতাম। কিন্তু, কৃষিমন্ত্রী আমাদের বললেন; আমরা সরাসরি দেব”। সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই কেন্দ্রের পোর্টালে; এই প্রকল্পের সুবিধা পাওয়ার জন্য; রাজ্যের ২১ লক্ষ কৃষক নাম নথিভুক্ত করিয়েছে। তাদের মধ্যে কারা কারা এই প্রকল্পের সুবিধা পাবেন; সেই তালিকা অবশ্য রাজ্য সরকারই চূড়ান্ত করবে। তারপরই এই টাকা সরাসরি চাষিদের অ্যাকাউন্টে দেবে; কেন্দ্রীয় সরকার। এই প্রকল্পের মাধ্যমে সারা বছরে; তিন দফায় চাষিদের অ্যাকাউন্টে ছয় হাজার টাকা করে দেয় কেন্দ্র।

আরও পড়ুনঃ রক্তচাপ বাড়ল বৈশাখীর, অসুস্থ ‘প্রিয় বান্ধবী’কে না ছেড়ে মিছিল ছাড়লেন শোভন

২০১৮ র ডিসেম্বরে; ‘কিষাণ সম্মান নিধি’ চালু করে মোদী সরকার। কিন্তু সাড়া দেশে তা চালু হলেও; রাজ্য সরকার তা চালু করতে দেয় নি বাংলায়। এই নিয়ে কেন্দ্র ও রাজ্যের মধ্যে চাপানউতোর চলছে; দীর্ঘদিন ধরেই। বিজেপির চাপে পরে, ফোনে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমারের সঙ্গে কথা বলেছেন; খোদ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোমবার এই প্রসঙ্গে নবান্নে মুখ্যমন্ত্রী বলেন; “কেন্দ্র আসলে রাজ্যকে গুরুত্ব দিতে চাইছে না। সেই কারণে সরাসরি সব কিছু করতে চায়”।

আরও পড়ুনঃ জেলার জনসভায় অনুপস্থিত বিধায়ক ও আইএনটিটিইউসির জেলা সভাপতি, বিজেপি যোগের জল্পনা

মুখ্যমন্ত্রীর কথায়; “আমরা এখন জেনেছি কৃষকদের তথ্য নথিভুক্ত করতে; কেন্দ্র একটি আলাদা পোর্টাল করেছে। সেটির তথ্য রাজ্যের কাছে নেই। কিন্তু আমার কাছে কৃষকরাই সবার আগে। তাই এটা চালু করতে বললাম”। তিনি আরও বলেন, “রাজ্যের কৃষক বন্ধু প্রকল্পের সুবিধা; বাংলার সমস্ত কৃষকই পান। কেউ যদি বাড়তি হিসেবে, কেন্দ্রেরটা পান; তাতে আমার কোনও অসুবিধা নেই”। “ভোটের মুখে সেই হার স্বীকার করতে হল দিদিকে; দুবছর কৃষকরা সুবিধা পেল না”; মত বঙ্গ বিজেপি নেতাদের।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন