“আমি নমাজ পড়ি না, ইফতারে গেলেও আপত্তি”, দক্ষিণেশ্বর মন্দিরে বিজেপিকে ঠুকলেন মমতা

46
"আমি নমাজ পড়ি না, ইফতারে গেলেও আপত্তি", দক্ষিণেশ্বর মন্দিরে বিজেপিকে ঠুকলেন মমতা
Simple Custom Content Adder

“আমি নমাজ পড়ি না, ইফতারে গেলেও আপত্তি”; দক্ষিণেশ্বর মন্দিরে বিজেপিকে ঠুকলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ‘মু’সলিম তো’ষণ নিয়ে; এদিন বিজেপির অভিযোগের জবাব দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা। ‘আমি নমাজ পড়ি না, ইফতারে আপত্তি কীসের?’; নাম না করেই বিজেপির দিকে প্রশ্ন ছুঁড়ে দিলেন তিনি। এদিন, অডিও-ভিজুয়াল মাধ্যমে প্রাচীন মন্দিরের ইতিহাস বর্ণনা করার জন্য; দক্ষিণেশ্বরে আকর্ষণীয় ‘লাইট অ্যান্ড সাউন্ড’ প্রকল্প চালু হয়ে গেল মুখ্যমন্ত্রী মমতার হাত ধরে।

রামকৃষ্ণদেব-সারদা-বিবেকানন্দের স্মৃতি বিজড়িত দক্ষিণেশ্বরে; শত বছরের প্রাচীন মন্দির সংস্কারে আগেই একাধিক কাজ করেছে রাজ্য সরকার। পুণ্যার্থীদের সুবিধায় দক্ষিণেশ্বর মন্দির চত্বরে ডালা আর্কেড থেকে শুরু করে; মন্দির পর্যন্ত স্কাইওয়াক তৈরি করা; অনেক কাজই করেছে মা মাটি মানুষের সরকার। কিন্তু এতকিছু করলেও, ‘সংখ্যালঘুদের তো’ষণ করেন; আইনভ’ঙ্গ-কারীদের ধ’র্ম দেখে শাস্তি নিরূপণ করেন; তাঁর রাজ্যে হিন্দুদের সুরক্ষা বারবার বিঘ্নিত হয়’। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে; এমনই অভিযোগ বারবার করে বিজেপি। মাঝেমধ্যে তার জবাবও দেয় তৃণমূল নেতা-নেত্রীরা।

দক্ষিণেশ্বরে মমতা
দক্ষিণেশ্বরে মমতা

আরও পড়ুন; “টাকা মাটি, মাটি টাকা”, দক্ষিণেশ্বর গিয়ে রামকৃষ্ণের বাণী স্মরণ করে ‘আধ্যাত্মিক’ মমতা

এবার দক্ষিণেশ্বর মন্দিরের লাইট-অ্যান্ড-সাউন্ডের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে; নাম না করেই বিজেপিকে মোক্ষম জবাব দিলেন মমতা। বিজেপিকে বিঁধে মমতা বললেন, “অনেকে বলে আমি নাকি নমাজ পড়ি; আমি নমাজ পড়ি না। ইফতারে যাই। রোজা অর্থাৎ দিনভর উপবাসের পর তা ভাঙার সময়ে; ওদের সঙ্গে আমি থাকি। এটা সর্বধর্ম সমন্বয়; ধর্মীয় রীতি নয়। যে কোনও ধর্মের মানুষই; এতে অংশ নিতে পারেন”।

আরও পড়ুন; বাংলায় আবির্ভূত নতুন দেবতা, চাপমুক্তির প্রত্যাশায় এবার ‘টেনশন দেব’ এর পুজো

রাজ্যের বিভিন্ন হিন্দু তীর্থক্ষেত্র সংস্কারের কাজে; হাত লাগিয়েছে রাজ্য। তারই মধ্যে একটি দক্ষিণেশ্বর। এখানে স্কাইওয়াক তৈরির পর; এবার চালু হল লাইট-অ্যান্ড-সাউন্ড প্রকল্প। অডিও-ভিজুয়াল মাধ্যমে দক্ষিণেশ্বর কালী মন্দিরের ইতিহাস; তুলে ধরা হবে দর্শকদের সামনে। দেশের বিভিন্ন বিখ্যাত তীর্থক্ষেত্রগুলিতে; এই ধরনের লাইট-অ্যান্ড-সাউন্ডে ইতিহাস জানানোর ব্যবস্থা আছে।

হিন্দু-ধ’র্ম নিয়ে বিজেপি নেতৃত্ব বারবারই; রাজ্যের শাসকদলকে আ’ক্রমণ করে। এদিন তাদের পা’ল্টা দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন; “হি’ন্দু, মুস’লিম, শিখ, খ্রি’স্টান কেউই অশা’ন্তি করে না। যারা এসব করে, তাদের মাথায় জঞ্জাল ভরতি। হিন্দু-ধ’র্ম অনেক উদার; কিন্তু তার নামে রাজনীতি চলছে”।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন