সাত বছর পর ভুল বুঝতে পারলেন, দময়ন্তীকে কলকাতায় আনলেন মমতা

2641
সাত বছর পর ভুল বুঝতে পারলেন, দময়ন্তীকে কলকাতায় আনলেন মমতা/The News বাংলা
সাত বছর পর ভুল বুঝতে পারলেন, দময়ন্তীকে কলকাতায় আনলেন মমতা/The News বাংলা

কলকাতায় ফিরলেন দময়ন্তী সেন। পার্ক স্ট্রিট গণধর্ষণ কাণ্ডে তদন্তের সাফল্যের পরেও; কলকাতা পুলিশ থেকে রাজ্য পুলিশে; বদলি করে দেওয়া হয় তাঁকে। সাত বছর পর; কলকাতা পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার হিসেবে; ফিরলেন আইপিএস দময়ন্তী সেন। সোমবার রাজ্য পুলিশের বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ পদে রদবদল হয়। সাত বছর পর ভুল বুঝতে পারলেন; দময়ন্তীকে কলকাতায় আনলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

রাজ্যের স্বরাষ্ট্র ও পার্বত্য বিষয়ক দফতরের তরফে; এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে; বর্তমানে রাজ্য পুলিশের আইজি দময়ন্তী সেন; এবার কলকাতার অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার পদে নিযুক্ত হচ্ছেন। সাত বছর আগে; পার্ক স্ট্রিটের একটি গণধর্ষণকাণ্ডের তদন্ত রিপোর্ট নিয়ে; বিতর্ক দেখা দেয়৷ সরাসরি মুখ্যমন্ত্রী মমতার বিরোধিতা করায়; মমতার ক্ষোভের মুখে পরেন দময়ন্তী সেন।

আরও পড়ুনঃ ভক্তরা জড়িয়ে ধরলে ঘেন্না লাগে, মাথা কি খারাপ হয়ে গেল রানাঘাটের রানু মণ্ডলের

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কোনরকমের তদন্তের আগেই; পার্ক স্ট্রিট ধর্ষণ কাণ্ডের ঘটনাটিকে সাজানো ঘটনা বলেন। আর মমতার এই কথাকেই উড়িয়ে দেন; তৎকালীন কলকাতা পুলিশের গোয়েন্দা প্রধান দময়ন্তী সেন। তদন্ত অনুযায়ী; গণধর্ষণকাণ্ডে জড়িত তিন দোষীকে ধরে ফেলেন তিনি। কিন্তু সেই তদন্ত নিয়েই বিতর্ক সৃষ্টি হয়; সরাসরি মমতার বিরোধীতা করায়।

এরপরেই রুটিন বদলির নাম করে; দময়ন্তী সেনকে পূর্বের তুলনায় কম গুরুত্বপূর্ণ পদে পাঠানো হয়েছিল। তৎকালীন কলকাতা পুলিশের গোয়েন্দা প্রধানের পদ থেকে; সরিয়ে দেওয়া হয় দময়ন্তী সেনকে৷ শুধুমাত্র মুখ্যমন্ত্রীর ভুল দাবী ধরিয়ে দেওয়ার জন্য।

আরও পড়ুনঃ সর্বহারা চাষির ছেলের হাতে ভারতের চাঁদে নামার স্বপ্ন, মন্দির যাওয়া ও কান্না নিয়েই ব্যস্ত বাম

সোমবার রাজ্য সরকার ফের বিজ্ঞপ্তি জারি করে; তাঁকে যোগ্য পদে ফিরিয়ে আনছেন। সাত বছর পর ভুল বুঝতে পারলেন মমতা; বলছে পুলিশ মহল। অন্যদিকে কলকাতা পুলিশের পাশাপাশি; এবার রাজ্য পুলিশের জন্যে; আলাদা করে স্পেশাল টাস্ক ফোর্স (এসটিএফ) গঠন করল রাজ্য সরকার। সোমবার এবিষয়ে নির্দেশিকা জারি করা হয়।

নির্দেশিকায় বলা হয়েছে; জাল নোটের কারবার; মাদকদ্রব্য ও বেআইনি অস্ত্র পাচার, সন্ত্রাসী কার্যকলাপ, রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে অপরাধ, ইত্যাদি রুখতেই এই টাস্ক ফোর্স গঠন করা হলো। ৩৮৪ সদস্যের এই টাস্ক ফোর্সের; নেতৃত্বে থাকবেন ডিজি। রাজ্যে পুলিশি তৎপরতা বাড়াতেই; এই উদ্যোগ সরকারের।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন