লকডাউন ভেঙে দুই ক’লগা’র্ল নিয়ে ‘সে’-ক্স পার্টি

4824
লকডাউন ভেঙে দুই ক’লগা’র্ল নিয়ে ‘সে’-ক্স পার্টি
লকডাউন ভেঙে দুই ক’লগা’র্ল নিয়ে ‘সে’-ক্স পার্টি

এই মুহূর্তে পুরো বিশ্ব করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে; লক ডাউনে চলে গেছে। গোটা বিশ্বের মানুষের মধ্যে; এই ভাইরাস নিয়ে দারুণ আতঙ্ক ছড়িয়েছে। এইসময় লকডাউন ভেঙে দুই কলগার্ল নিয়ে; রীতিমত ‘সেক্স পার্টি’ করায়; তদন্ত করে শাস্তি দেওয়া হল; ম্যানচেস্টার সিটি ক্লাবের ইংলিশ ডিফেন্ডার কাইল ওয়াকার। ওয়াকারকে শাস্তি দিল; তার ক্লাব ম্যানচেস্টার সিটি। এক বিবৃতিতে ম্যানচেস্টার সিটি জানিয়েছে; “একটি ট্যাবলয়েড পত্রিকা মারফত আমরা জানতে পারি; ওয়াকারের ব্যাক্তিগত কিছু ঘটনা। সে ঘটনাটি বৃটেনের লকডাউন আইন ভেঙেছে ও সামাজিক দূরত্বের নিয়মও ভঙ্গ করেছে; তাই তদন্ত করে তাকে শাস্তি দেওয়া হল”।

বিশ্ব কাঁপছে করোনা ভাইরাস আতঙ্কে। আর ইংলিশ ডিফেন্ডার কাইল ওয়াকার; রাতভর কাটালেন বাইরে থেকে দেকে আনা কলগার্লদের সঙ্গে। বন্ধুকে নিয়ে করলেন ফূর্তি। তবে সকালে ঘুম থেকে উঠেই ভক্তদের উদ্দেশে তিনি বললেন; “নিরাপদ থাকতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন”।

Kyle Walker

হাতেনাতে ধরা পরে গেছেন। আর ম্যানচেস্টার সিটির ইংলিশ ডিফেন্ডার কাইল ওয়াকারের; এমন দ্বিমুখী ব্যবহারে বিরক্ত ভক্তরা। এ ঘটনার পর তীব্র সমালোচনার মুখে; পড়েছেন ইংলিশ এই তারকা। বিটিশ ট্যাবলয়েড দ্য সান; ওই দুজন কলগার্লদের মধ্যে; একজনের পরিচয় প্রকাশ করেছে। ২১ বছর বয়সী লুসি ম্যাকনামারার; এর সাথে ছিলেন ব্রাজিলের আরেক কলগার্ল।

গত ২৩ মার্চ থেকে; তিন সপ্তাহের লকডাউন চলছে ব্রিটেনে। ফুটবলাররা সারা বিশ্বের মানুষের আইডিয়াল। কাইল ওয়াকারের এরকম কাজের জন্য; ক্লাব খুবই বিরক্ত হয়েছে। তার বিপক্ষে তদন্ত চলার পর; ক্লাবের নিয়ম অনুযায়ী শাস্তি পেতে হল তাকে।

দ্য সান জানায়; নিজের বিলাসবহুল এপার্টমেন্টে দুই কলগার্লকে ডাকেন ওয়াকার। দুজন একই ট্যাক্সি ক্যাবে করে; রাত সাড়ে ১০টায় পৌঁছান কাইল ওয়াকারের চেশায়ারের ফ্লাটে। ওয়াকারের এক বন্ধু কলগার্লদের নিয়ে যায়; ইংলিশ ফুটবলারের এপার্টমেন্টে। দ্য সানকে লুসি বলেছে; “আমি ম্যানচেস্টারের; এক এজেন্সির হয়ে কাজ করি। বসের কাছ থেকে একটা মেসেজ পাই যেখানে তিনি লিখেন; একজন হাইপ্রোফাইল ক্লায়েন্ট ক্ল্যাসি কাউকে খুঁজছেন। ক্যাবের ড্রাইভার ঠিকানা অনুযায়ী; এপার্টমেন্টের গেটে আমাকে নামিয়ে দেয়। তার এক বন্ধু আমার সঙ্গে সাক্ষাত করেন। গাড়িতে আরেকটি মেয়ে ছিল। সে না বলার আগে পর্যন্ত আমি জানতাম না; যে কাইল ফুটবল তারকা”।

লুসির তোলা একটি ছবিতে দেখা গেছে; টাকা গুনছেন কাইল। তিনি ও তার বন্ধু তিন ঘণ্টা ফূর্তির বিনিময়ে; ২ হাজার ২০০ পাউন্ড দিয়েছেন ওই দুই কলগার্লকে। পাওনা হাতে পাওয়ার পর; রাত ২টার দিকে বেরিয়ে গিয়েছিল তারা। সেদিনই এক টুইট বার্তায় কাইল ওয়াকার লিখেন; “প্লিজ সবাই ঘরে থাকুন। এই কঠিন মুহূর্তে; ভালোবাসার মানুষটির সঙ্গে যোগাযোগ রাখুন কিন্তু তাদের সঙ্গে সাক্ষাত করতে যাবেন না”।

আর পরদিন বুধবার এক ইন্টারভিউয়ে ওয়াকার বলেন; “ঘরে থাকুন। নিয়মিত হাত পরিষ্কার করুন। যেসব বিধিনিষেধ রয়েছে; সেগুলো মেনে চলুন”। ওয়াকারের এমন আচরণে বিরক্ত গোটা বিশ্বের ফুটবল মহল।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন