১৮ জন সাংসদ দিয়েও, মোদী মন্ত্রীসভায় এবারেও পূর্ণমন্ত্রী জুটল না বাংলার

1138
১৮ সাংসদ দিয়েও, মোদী মন্ত্রীসভায় এবারেও 'ফুলপ্যান্ট মন্ত্রী' জুটল না বাংলার
১৮ সাংসদ দিয়েও, মোদী মন্ত্রীসভায় এবারেও 'ফুলপ্যান্ট মন্ত্রী' জুটল না বাংলার

১৮ জন সাংসদ দিয়েও, মোদী মন্ত্রীসভায়; এবারেও পূর্ণমন্ত্রী জুটল না বাংলার। তৃণমূলের ভাষায়, মোদী মন্ত্রীসভায় এবারেও; ‘ফুলপ্যান্ট মন্ত্রী’ জুটল না বাংলার। আশা ছিল ২০১৯ এর মে-তে। মোদী-অমিত শাহ-দের স্বপ্নের আহ্বানে; দিদি-র জোর রাজত্বেও তৃণমূলকে থামিয়ে; ৪২ টি লোকসভা আসনের মধ্যে; ১৮টি আসন পেয়েছিল বিজেপি। ২০১৪ সালে যা ছিল; মাত্র ২টো। নরেন্দ্র মোদীর শপথ গ্রহণেও যেভাবে; বাংলাকে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছিল; তাতে মনে করা হচ্ছিল যে এবারের কেন্দ্রীয় সরকারেও; নিশ্চয় বাংলা-র একটা জোরদার প্রতিনিধিত্ব থাকবে। কিন্তু মাত্র ২টি প্রতিমন্ত্রী পদ পেয়েছিল বাংলা; বাবুল সুপ্রিয় ও দেবশ্রী চৌধুরী। এবারও ৪টি মন্ত্রিত্ব পেলেও; কোন পূর্ণমন্ত্রী পেল না বাংলা।

কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায়; বড়সড় রদবদল হল। মোদী মন্ত্রিসভার সদস্য হিসাবে; শপথ নিলেন নতুন ৪৩ জন। উত্তরবঙ্গকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে, মন্ত্রিসভায় জায়গা দেওয়া হল; কোচবিহারের সাংসদ নিশীথ প্রামাণিক; এবং আলিপুরদুয়ারের সাংসদ জন বার্লাকে। মন্ত্রিসভায় জায়গা পেলেন; বাঁকুড়ার সাংসদ সুভাষ সরকার এবং বনগাঁর সাংসদ; মতুয়া সম্প্রদায়ের শান্তনু ঠাকুরও। বাংলার এই ৪ জনই; প্রতিমন্ত্রী হলেন। তবে এবারও বাংলার কপালে জুটল না; কোন পূর্ণমন্ত্রী।

আরও পড়ুনঃ তারুণ্য ও উচ্চশিক্ষায় জোর, দেশের সর্বকালের কনিষ্ঠতম মন্ত্রিসভা দিচ্ছে মোদী সরকার

১৮ জন বিজেপি সাংসদকে; দিল্লি পাঠিয়েছিল বাংলার মানুষ। কিন্তু, এতজন সাংসদ পাঠানো হলেও; দ্বিতীয় মোদী মন্ত্রীসভায় পূর্ণমন্ত্রী হিসাবে ঠাঁই হয়নি কারোরই। সান্ত্বনা পুরস্কারের মত জুটেছিল; দুটি প্রতিমন্ত্রীর পদ। আসানসোলের সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়; ও রায়গঞ্জের সাংসদ দেবশ্রী চৌধুরীকে; মন্ত্রীসভায় এনেছিলেন মোদী-শাহরা। তারপরেই বিরোধীরা আওয়াজ তুলতে শুরু করেন; বাংলাকে তীব্র বঞ্চনা করছে গেরুয়া শিবির। কেন সংসদে এতজন প্রতিনিধি পেয়েও; কোন পূর্ণমন্ত্রীত্ব দেওয়া হল না বাংলাকে?

২০২১-এ বাংলা বিধানসভায় ৭৭ আসন পেয়ে; বিরোধী দল হিসাবে উঠে এলেও; ২০০ আসন নিয়ে রাজ্যের ক্ষমতা দখলের লড়াইয়ে; মুখ থুবড়ে পরে গেরুয়া শিবির। মনে করা হয়েছিল, ২০১৪ এর লোকসভা ভোটের দিকে তাকিয়ে; অন্তত একটি পূর্ণমন্ত্রী পদ পাবে বাংলা। কিন্তু সেটা এবারেও হল না। বুধবার সকালেই মমতার মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম বলেছিলেন; “দাঁড়ান দেখি আগে; ফুলপ্যান্ট মন্ত্রী দেয় কিনা”। সেই ব্যাঙ্গকেই সত্যি করে দিল মোদী সরকার; রাজনৈতিক মহলের পাশাপাশি এমনটাই বলছে বিজেপি কর্মী-সমর্থকরাও।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন