মোদী সরকারের বড় ঘোষণা, এবার ডাক্তারি শিক্ষাতেও সংরক্ষণ

4768
মোদী সরকারের বড় ঘোষণা, এবার ডাক্তারি শিক্ষাতেও সংরক্ষণ
মোদী সরকারের বড় ঘোষণা, এবার ডাক্তারি শিক্ষাতেও সংরক্ষণ

এবার কি মেধার সঙ্গেও আপোষ; চিকিৎসা ব্যবস্থার সঙ্গেও আপোষ? মোদী সরকারের বড় ঘোষণা; এবার ডাক্তারি শিক্ষাতেও সংরক্ষণ। ডাক্তারি শিক্ষাতেও আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া; এবং অন্যান্য অনগ্রসর শ্রেণির পড়ুয়ারা সংরক্ষণ পাবে। বৃহস্পতিবার বড়সড় ঘোষণা করে দিল; কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদী সরকার। কেন্দ্রীয় কোটায় ডাক্তারিতে ভর্তির ক্ষেত্রে; ওবিসি-রা সংরক্ষণ পাবেন ২৭ শতাংশ। এবং আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়ারা; সংরক্ষণ পাবেন ১০ শতাংশ। এর ফলে গোটা দেশের প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার, পিছিয়ে পরা মেডিক্যাল পড়ুয়া; উপকৃত হবেন বলে কেন্দ্রের তরফে জানানো হয়েছে।

ডাক্তারি শিক্ষাতেও সংরক্ষণ, ওবিসি ২৭ শতাংশ ও আর্থিকভাবে পিছিয়ে থাকাদের ১০ শতাংশ। দেশ জুড়ে বড় ঘোষণা; মোদী সরকারের। ডাক্তারি পড়ার ক্ষেত্রে; বড়সড় সিদ্ধান্ত নিল কেন্দ্রীয় সরকার। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী টুইট করে ঘোষণা করলেন; ডাক্তারির পড়ার ক্ষেত্রে এ বার থেকে ২৭ শতাংশ আসন; সংরক্ষিত থাকবে অনগ্রসর শ্রেণির জন্য। এ ছাড়া আর্থিক ভাবে পিছিয়ে পড়া পড়ুয়াদের জন্য; থাকবে ১০ শতাংশ সংরক্ষণ।

আরও পড়ুনঃ রাজ্যের করোনা বিধি ভেঙে, কালীঘাটে গর্ভগৃহে ঢুকে পুজো মন্ত্রী সুজিত বসুর

সারা ভারত সংরক্ষণ প্রকল্পের মাধ্যমে; এই বিষয়টি বাস্তবায়িত করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। এ বছরের ভর্তির ক্ষেত্রেও; এই সংরক্ষণের নিয়ম কার্যকর করা হবে। স্নাতক ও স্নাতকোত্তর স্তরে পড়ুয়াদের ভর্তি; দন্ত চিকিৎসার পড়ুয়াদের ক্ষেত্রেও এই নিয়ম কার্যকর হবে। এর ফলে MBBS স্তরে দেড় হাজার; এবং স্নাতকোত্তর স্তরে প্রায় আড়াই হাজার মেডিক্যাল পড়ুয়া উপকৃত হবেন। একইভাবে আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া, ৫০০ জন পড়ুয়া; MBBS স্তরে এবং ১ হাজার পড়ুয়া পোস্ট গ্র্যাজুয়েট স্তরে; ভর্তি হওয়ার সুযোগ পাবেন এই সংরক্ষণের আওতায়।

আরও পড়ুনঃ মোদী ‘আচ্ছে দিন’ এর পাল্টা মমতার ‘সাচ্চা দিন’

প্রধানমন্ত্রী টুইটারে লিখেছেন; “এই সিদ্ধান্ত দেশের যুব সমাজের; হাজার হাজার প্রতিনিধিকে সাহস জোগাবে। সামাজিক ন্যায়ের এক সামগ্রিক চিত্র; তুলে ধরবে জগতের সামনে”। যদিও, কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্ত নিয়ে; প্রশ্ন উঠেছে চিকিৎসক মহলে। অনেকেই প্রশ্ন তুলছেন, চিকিৎসার মতো গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্রে; সংরক্ষণের ভিত্তিতে ভর্তি করাটা কতটা যুক্তিযুক্ত? এক্ষেত্রে মেধার সঙ্গে আপস করাটা; কি বুদ্ধিমানের কাজ? সাধারণদের উপর কি আবার অবিচার হল; আরও কি পিছিয়ে গেল দেশ? প্রশ্ন কিন্তু উঠছে।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন