নিজের লোকসভা ভোটের দিন বেলা অব্দি ঘুমিয়ে মানুষের সেবা করার উদ্যোগ

1021
নিজের লোকসভা ভোটের দিন বেলা অব্দি ঘুমিয়ে মানুষের সেবা করার উদ্যোগ/The News বাংলা
নিজের লোকসভা ভোটের দিন বেলা অব্দি ঘুমিয়ে মানুষের সেবা করার উদ্যোগ/The News বাংলা

একজন দীপক অধিকারী ওরফে দেব। অন্যজন মুনমুন সেন। দুজনেই এবারের লোকসভা ভোটে তৃণমূল প্রার্থী। তবে এর বাইরে এদের মধ্যে মিল কোথায়? এঁরাই ভারতের এমন দুজন প্রার্থী; যারা নিজেদের লোকসভা ভোটে ভোটের দিনও; সকালে উঠেছেন অনেক দেরি করে।

মুনমুন সেন দুপুর ১২ টায়; দেব উঠলেন ২ ঘণ্টা ভোট পেরিয়ে যাবার পর; সকাল ৯ টায়। আমজনতার প্রশ্ন; যারা নিজেদের ভোটেই কর্মী সমর্থক ও অন্যান্য নেতাদের উপর দায় চাপিয়ে নিশ্চিন্তে ঘুমান; তাঁরা করবেন জনগণের সেবা? উঠে গেছে প্রশ্ন।

আসানসোল লোকসভা কেন্দ্রের বহু বুথেই; ভোট শুরুর পর থেকেই গন্ডগোল শুরু হয়। কিন্তু তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী মুনমুন সেনের কোনও পাত্তাই পাওয়া যায়নি। পরে দুপুরবেলা হঠাৎ সাংবাদিকদের সামনে এসে জানান; ছুটির দিনে তার বেড টি পেতে দেরি হয়ে গিয়েছিল। তাই তিনি বাইরের কোনও খবর রাখতে পারেন নি। উল্টে ভোটে এসব ঝামেলা হয়েই থাকে; বলে আজব যুক্তি উপস্থাপন করেন মুনমুন।

রবিবার ঘাটাল লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী; দীপক অধিকারী বা দেবও ঘুম থেকে ওঠেন সকাল ৯ টায়। তারপরেও কোন বুথে যাওয়ার; প্রয়োজন বোধ করেননি তিনি। অনেক পরে ভোট দিতে যান তিনি। ভোট নিয়ে কোন হেলদোল দেখা যায়নি দেবের মধ্যে। উল্টে গরমে ভারতী ঘোষকে; মাথা ঠাণ্ডা রাখার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

ঠিক মুনমুনের মতই দেবের ভোট নিয়ে আচরণ দেখে; হতাশ আমজনতা। বিস্মিত রাজনৈতিক মহলও। কেন ভোট নিয়ে তাঁদের মধ্যে কোন মাথাব্যথা নেই। লোকসভা ভোট নিয়ে এত উদাসীন কেন?

এমনিতেই বাঁকুড়া লোকসভা কেন্দ্রের; বিদায়ী সাংসদের বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ। ভোটে জেতার পর; গত ৫ বছরে খুব কম দিনই বাঁকুড়ায় পা দেবার প্রয়োজন বোধ করেছেন মুনমুন সেন। বিক্ষোভের জেরে; দলনেত্রী তাঁকে বাঁকুড়া থেকে সরিয়ে; আসানসোলে প্রার্থী করতে বাধ্য হন। অন্যদিকে ঘাটালের বিদায়ী সাংসদ দেব; সাংসদ হিসাবে লোকসভায় হাজিরা দিয়েছেন মাত্র ১১ দিন। লোকসভায় সবচেয়ে কম।

আর এবারের ভোটেও তাঁদের আচরণ ও ভোট নিয়ে উদাসীনতা দেখে প্রমাদ গুনছেন আমজনতা। জিতলে এঁরা দুজনেই কি গত ৫ বছরের মত; নিজেদের নিয়েই ব্যস্ত থাকবেন আগামী ৫ বছরও? ইতিমধ্যেই উঠে গেছে প্রশ্ন।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন