নিজের দল না বিজেপি, নন্দীগ্রাম জানিয়ে দিল মনেপ্রাণে তৃণমূলে আর নেই শুভেন্দু অধিকারী

1039
নিজের দল না বিজেপি, নন্দীগ্রাম জানিয়ে দিল মনেপ্রাণে তৃণমূলে আর নেই শুভেন্দু অধিকারী
নিজের দল না বিজেপি, নন্দীগ্রাম জানিয়ে দিল মনেপ্রাণে তৃণমূলে আর নেই শুভেন্দু অধিকারী

মানব গুহ, কলকাতাঃ নিজের দল না বিজেপি; সেটা পরের কথা। মঙ্গলবার আ’ন্দোলনের নন্দীগ্রাম পরিষ্কার জানিয়ে দিল; মনেপ্রাণে তৃণমূলে আর নেই শুভেন্দু অধিকারী। তৃণমূল কর্মী সমর্থকরাও এদিন বুঝে গেছেন; আর তৃণমূলে নেই তাঁদের প্রিয় নেতা। নন্দীগ্রামে দলীয় প্রতীকহীন ও মমতাহীন জনসভা করে; তৃণমূল ছাড়ার ঘোষণা করেই দিলেন; নন্দীগ্রাম আ’ন্দোলনের নায়ক শুভেন্দু অধিকারী। “ভোট এলেই নন্দীগ্রামের কথা মনে পরে”; নাম না করেই এদিন ফিরহাদ হাকিমের পাশাপাশি তৃণমূল নেত্রী মমতাকেও ঠুকলেন শুভেন্দু। নন্দীগ্রামে গোকুলনগরের মঞ্চ থেকে, তৃণমূল নেতা তথা রাজ্যের পরিবহণ মন্ত্রী শুভেন্দু; ঠুকলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও তৃণমূলকে। তারপরেই সবাই নিশ্চিত হয়ে গেছেন; শুভেন্দু অধিকারী আর তৃণমূলে নেই।

একটা সময় রাজ্য রাজনীতির; পট বদলে দিয়েছিল নন্দীগ্রাম। সেখান থেকেই, মঙ্গলবার আবার নতুন রাজনৈতিক জল্পনার জন্ম দিলেন; শুভেন্দু অধিকারী। পরিষ্কারভাবে ঠুকলেন তৃণমূলকেই, বললেন; “ভোট এলেই নন্দীগ্রামের কথা মনে পরে”। গত কয়েকদিনে, ‘আমরা দাদার অনুগামী’ ব্যানারে; একের পর এক জনসভা করছেন শুভেন্দু। সেখানে কোথাও নেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়; বা তৃণমূলের ছবি বা প্রতীক। আর তার জেরেই, তাঁর রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ; নিয়ে জল্পনা বাড়ছে। তবে এদিনের নন্দীগ্রাম পরিষ্কার করে দিয়েছে; তৃণমূল থেকে অনেক দূরে চলে গেছেন শুভেন্দু।

আরও পড়ুনঃ “ভোট এলেই নন্দীগ্রামের কথা মনে পরে”, মমতার তৃণমূলকে ঠুকলেন শুভেন্দু

”১৩ বছর পর নন্দীগ্রামের কথা; মনে পড়ল! শ’হীদদের জন্য স্মরণসভা; এখানে নতুন নয়। এই জনসভা ১৩ বছর ধরে চলছে। ১৩ বছর ধরে আমরা এই দিনে; শ’হীদদের স্মরণ করছি। আমি এখানে নতুন নয়। চেনা বামুনের পৈতে লাগে না”। নন্দীগ্রামে শুভেন্দু অধিকারী কথাগুলো বলার পরই; তাঁর অনুগামীরা হাততালি দিয়ে সমর্থন জানান। এদিন শুভেন্দু আরও বললেন; ”এই আ’ন্দোলনের জন্মলগ্ন থেকে; আছি আমি। নন্দীগ্রামে আমি নতুন মুখ নয়। নন্দীগ্রামের কাঁচা মোরামের রাস্তা ধরে; বারবার এসেছি। নন্দীগ্রামের মানুষ আ’ক্রান্ত হলেই; আমি পাশে থেকেছি। রাজনীতির জন্য; এখানে আসিনি কখনও। এখানকার মানুষের ভাল-মন্দে সবসময়; পাশে থাকার চেষ্টা করেছি আমি”।

আরও পড়ুনঃ “মমতার হাত ছেড়ে দেওয়া মানেই বিজেপির হাত শক্ত করা”, শুভেন্দুকে একহাত নিলেন ফিরহাদ

নন্দীগ্রামের মঞ্চ থেকে এদিন শুভেন্দু অধিকারী জানান; “নন্দীগ্রামের এই মঞ্চ পবিত্র। এখান থেকে আমি কোনও; রাজনৈতিক বার্তা দেব না। রাজনীতির কথা; সময় মতো বলব। আর যেটা বলব, সেটা রাজনৈতিক মঞ্চ থেকেই বলব”। তিনি আরও বলেন; “আমি জানি সংবাদমাধ্যম ও রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা, অপেক্ষা করে আছেন; আমার মুখ থেকে কিছু শোনার জন্য। আমি অবশ্যই সব বলব। এবার আমি রাজনীতিতে সেই পথেই এবার হাঁটব; যেখান দিয়ে গেলে আর হোঁচট খেতে হবে না”।

সবটা নিয়ে, বাংলার রাজনৈতিক মহলের পাশাপাশি; তৃণমূল কর্মী সমর্থকরাও পরিষ্কার জেনে গেলেন; শুভেন্দু অধিকারীকে আর ধরে রাখা যাবে না। বিজেপিতে যাবেন; না নিজের দল করবেন; সেই প্রশ্নটা এখন চলবে। তবে শুভেন্দু অধিকারী যে আর তৃণমূলে নেই; তা আ’ন্দোলনের নন্দীগ্রাম চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে। বাংলার রাজনীতিতে তিনি এখন সেই পথেই হাঁটবেন; যেখান দিয়ে গেলে আর হোঁচট খেতে হবে না। সেটা যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূলের পথ নয়; এটা এদিন বুঝে গেছেন সবাই”।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন