ভারতে মোদীর হাতে খুলে গেল কর্তারপুর করিডোর, পাকিস্তানে ইমরান

813
খুলছে কর্তাপুর করিডোর, উদ্বোধনে মোদী, পাকিস্তানে ইমরান/The News বাংলা
খুলছে কর্তাপুর করিডোর, উদ্বোধনে মোদী, পাকিস্তানে ইমরান/The News বাংলা

ভারতে মোদীর হাতে খুলে গেল কর্তারপুর করিডোর; পাকিস্তানে ইমরান। শনিবার তীর্থযাত্রীদের জন্য খুলে গেল; বহু প্রতিক্ষিত কর্তারপুর করিডোর। দেশের তরফে বাবা সাহেব নানকে ডেরায়; দুপুর ১২ টা নাগাদ কর্তারপুর করিডোরের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।। অন্যদিকে পাকিস্তানে কর্তারপুর করিডোরের উদ্বোধন করেন ইমরান খান। শিখ ধর্মের প্রবর্তক গুরু নানকের জন্মদিনের তিন দিন আগে; তীর্থযাত্রীদের জন্য কর্তারপুর করিডোর খুলে দেওয়া হল।

প্রথম দফায় ৫৫০ জন শিখ তার্থযাত্রী; কর্তারপুর করিডোর দর্শন করতে পারবেন। ওই তালিকায় ছিলেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংহ; পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিংহ; দুই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হরদীপ পুরী ও হরসিমরত কউর বাদল; অভিনেতা ও রাজনীতিবিদ সানি দেওল।

আরও পড়ুনইমরানের সঙ্গে দেখা করতে পাকিস্তানে যাচ্ছেন সিধু

কংগ্রেস নেতা নভজ্যোত সিং সিধুও; কর্তাপুর করিডোরে উদ্বোধনে উপস্থিত থাকতে; ইতিমধ্যেই কেন্দ্রের ক্লিয়ারেন্স পেয়ে গিয়েছেন। করিডোরের উদ্বোধনের আগে; মোদী সুলতানপুর লোধির বের সাহিব গুরুদ্বারায় প্রার্থনা করেন বলেই জানা গিয়েছে। শুক্রবার পাকিস্তানের তরফে; ২০ মার্কিন ডলার তীর্থকরও বাধ্যতামূলক করা হয়। পাক সরকারের তরফে জানানো হয়; ভারতীয় শিখ পূর্ণার্থীদের করিডর ব্যবহারের জন্য; এই মূল্য মাফ করা হবে না। উদ্বোধনের দিন থেকেই দিতে হবে এই তীর্থকর।

আরও পড়ুন মুখোশ খুলে গেল পাকিস্তানের, রাতারাতি ভারতীয় পূর্ণার্থীদের উপর চাপাল তীর্থকর

যদিও তীর্থযাত্রীদের পাসপোর্ট থাকার প্রয়োজন নেই; শুধু বৈধ পরিচয় পত্র থাকলেই চলবে; বলে জানিয়েছিল পাকিস্তান। পরে যদিও ইমরান খানের নির্দেশে; এই ফি নেওয়া হবে না বলে সিদ্ধান্তে আসে; পাকিস্তানের বিদেশমন্ত্রক। এদিন ভারত ও অন্যান্য দেশ থেকে; প্রায় ১০ হাজার তীর্থযাত্রী কর্তারপুর দর্শনে এসেছেন। উদ্বোধন অনুষ্ঠানে কড়া প্রহরায় ছিল; পাকিস্তান সেনা। পাঞ্জাব প্রদেশ থেকে পুলিশ মোতায়েন রাখা হয়েছে।

উল্লেখ্য; সীমান্ত থেকে মাত্র ৪ কিমি দূরে ছোট্ট শহর কর্তারপুর। পাঞ্জাবের নারোয়ান জেলায় এর অবস্থান। যা পাঞ্জাবের গুরদাসপুরের ডেরা বাবা নানক ও কর্তারপুরের দরবার সাহিবকে যুক্ত করেছে। কথিত আছে; এখানেই শিখ ধর্মের প্রবর্তক গুরু ‌নানক; তার জীবনের শেষ সময় কাটিয়েছিলেন। এলাকা পাকিস্তানে পরায়; স্বাধীনতার পর থেকেই চির সমস্যায় শিখ ধর্মের মানুষরা।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন