“জাতীয় সঙ্গীত ‘জনগণমন’ গেয়েই স্কুল শুরু করতে হবে সব মাদ্রাসায়”, ফরমান যোগীর

101
‘জনগণমন’ গেয়েই স্কুল শুরু করতে হবে মাদ্রাসা পড়ুয়া ও শিক্ষকদের, ঘোষণা যোগীর
‘জনগণমন’ গেয়েই স্কুল শুরু করতে হবে মাদ্রাসা পড়ুয়া ও শিক্ষকদের, ঘোষণা যোগীর
Simple Custom Content Adder

“জাতীয় সঙ্গীত বা স্তব ‘জনগণমন অধিনায়ক’ (National Antham) গেয়েই স্কুল শুরু করতে হবে সব মাদ্রাসায়”; ফরমান যোগীর। স্কুলের শুরুতেই গাইতে হবে দেশের জাতীয় সঙ্গীত জন-গণ-মন-অধিনায়ক-জয়-হে; রাজ্যের সব মাদ্রাসার উদেশ্যে ফরমান জারি ‘বুলডোজার যোগীর’। মাদ্রাসায় পড়লে ও পড়ালে জাতীয় স্তব-সঙ্গীত গাইতেই হবে; সিদ্ধান্ত যোগী আদিত্যনাথ সরকারের। উত্তরপ্রদেশের মাদ্রাসাগুলিতে, ক্লাস শুরুর আগে ‘জনগণমন’ গাওয়া বাধ্যতামূলক; ঘোষণা করার কথা জানিয়েছেন যোগী মন্ত্রিসভার সদস্য দানিশ আজাদ আনসারি। এরপরেই শুরু হয়েছে; দেশ জুড়ে বিতর্ক।

প্রত্যেক দিন স্কুলে ক্লাস শুরুর আগেই; এবার জাতীয় স্তব-সঙ্গীত (National Antham) ‘জনগণমন অধিনায়ক’ গান গাওয়া বাধ্যতামূলক করে দিল; মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ এর উত্তরপ্রদেশ সরকার। ধর্মীয় শিক্ষার পাশাপাশি, এবার দেশের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিষয়ে ছাত্রছাত্রী-দের জ্ঞান অর্জনের জন্য; এমন নয়া পদক্ষেপ নিল যোগী সরকার।

রাজ্য সরকারের মুসলিম মুখ; দানিশ আজাদ আনসারি সংখ্যালঘু দফতরের রাষ্ট্রমন্ত্রী। গত ২৪ মার্চই উত্তরপ্রদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের বৈঠকে; এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বলে জানিয়েছেন তিনি। সিদ্ধান্তটি হল, সব মাদ্রাসা ছাত্র, শিক্ষক যেন অবশ্যই ক্লাস শুরুর আগে; ‘জনগণমন’ গান। শিক্ষা বোর্ডে অনুমোদিত সিদ্ধান্ত; রূপায়ণের আদেশ বেরিয়েছে ৯ মে। তাতে বলা হয়েছে, মাদ্রাসায় আগে যেমন ধর্মীয় প্রার্থনা হেত, তেমনই হবে; পাশাপাশি জাতীয় স্তবে গলা মেলাতে হবে শিক্ষক-পড়ুয়া সবাইকে।

২০১৭ সালে উত্তরপ্রদেশ মাদ্রাসা-বোর্ড স্বাধীনতা দিবসে; তাদের অনুমোদিত সব শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও জনগণমন গাওয়া বাধ্যতামূলক করে দেয়। এর ৫ বছর বাদে স্কুল চলার দিনগুলিতে; জাতীয় সঙ্গীত গাওয়া আবশ্যিক করা হল। গত ৩০শে মার্চ থেকে ১১ই মে; রমজানের পবিত্র মাস থাকার কারণে বন্ধ ছিল সকল মাদ্রাসা স্কুলগুলি। তবে বৃহস্পতিবার থেকে পুনরায় স্কুল শুরু হওয়ায়; এই নিয়ম লাগু হবে বলে জানিয়েছে শিক্ষা দফতর।

উত্তরপ্রদেশ মাদ্রাসা বোর্ডের চেয়ারম্যান আগেই বলেছিলেন; “সব স্কুলেই জাতীয় সঙ্গীত গাইতে হয়। মাদ্রাসার পড়ুয়াদের মধ্যেও; দেশপ্রেমের চেতনা জাগ্রত করতে চাই আমরা। ওরা যাতে ধর্মীয় শিক্ষার পাশাপাশি; আমাদের ইতিহাস, সংস্কৃতির সঙ্গে পরিচিত হয়। সেজন্যই আসন্ন শিক্ষাবর্ষ থেকে তা বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে। পাশাপাশি নয়া শিক্ষাবর্ষে মাদ্রাসা শিক্ষকদের হাজিরা নথিভুক্তির জন্য; বায়োমেট্রিক সিস্টেম চালু হচ্ছে। পডুয়াদেরও অনলাইন রেজিস্ট্রেশন; হবে বলে জানা গিয়েছে।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন