মর্মান্তিক খবর, দেশে বাড়ছে আত্মহত্যার ঘটনা, তৃতীয় স্থানে বাংলা, ৭০ শতাংশ পুরুষ

2054
মর্মান্তিক খবর, দেশে বাড়ছে আত্মহত্যার ঘটনা, তৃতীয় স্থানে বাংলা, ৭০ শতাংশ পুরুষ
মর্মান্তিক খবর, দেশে বাড়ছে আত্মহত্যার ঘটনা, তৃতীয় স্থানে বাংলা, ৭০ শতাংশ পুরুষ

মর্মান্তিক খবর, দেশে বাড়ছে আত্মহত্যার ঘটনা; তৃতীয় স্থানে বাংলা, শহরে দ্বিতীয় আসানসোল। আর এর ৭০ শতাংশ পুরুষ! গত এক বছরে দেশে, আত্মহত্যার সংখ্যা; বেড়েছে ৩.৪ শতাংশ। ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ড বুরোর (এনসিআরবি) প্রকাশিত রিপোর্টে; এ কথা জানা গিয়েছে। ২০১৮ সালের তুলনায়, ২০১৯ সালের পরিসংখ্যানের নিরিখেই; এই শতাংশের বৃদ্ধি। সংখ্যার বিচারে দেখলে; দেশে প্রায় পাঁচ হাজার জন বেশি আত্মহত্যা করেছেন। NCRB ডেটা অনুযায়ী; ২০১৯ সালে গোটা দেশে নথিভুক্ত আত্মহত্যার সংখ্যা ১ লক্ষ ৩৯ হাজার ১২৩। রোজ গড়ে ৩৮১ জন; আত্মহননের পথ বেছে নিয়েছেন। তার আগের বছরের সঙ্গে তুলনা করলে; ভারতে আত্মহত্যার প্রবণতা বেড়েছে।

আরও পড়ুনঃ বড়সড় ডিজিটাল স্ট্রাইক, PUBG-সহ ১১৮ অ্যাপ নিষিদ্ধ করে চিনকে শিক্ষা দিল ভারত

কত বাড়লঃ
রিপোর্ট অনুযায়ী, ২০১৯ সালে আত্মহত্যার প্রবণতা; ৩.৪ শতাংশ বেড়েছে। ২০১৮ সালে নথিভুক্ত আত্মঘাতী; ১ লক্ষ ৩৪ হাজার ৫১৬ জন। ২০১৭ সালে আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছিল; ১ লক্ষ ২৯ হাজার ৮৮৭টি। ২০১৯ সালে সেখানে আত্মঘাতী; ১ লক্ষ ৩৯ হাজার ১২৩ জন। রিপোর্টে পরিষ্কার, ধারাবাহিক ভাবে; আত্মহত্যার ঘটনা বেড়েছে।

কোন রাজ্য কোথায়ঃ
এনসিআরবি-র তথ্য অনুযায়ী; আত্মহত্যায় দেশে সর্বোচ্চ স্থানে রয়েছে মহারাষ্ট্র। তার পরে তামিলনাড়ু এবং তৃতীয় স্থানে পশ্চিমবঙ্গ। প্রথম পাঁচে বাকি দুই রাজ্য হল; মধ্যপ্রদেশ এবং কর্নাটক। আত্মহত্যার কারণ হিসেবে; সব থেকে উপরে রয়েছে পারিবারিক সমস্যা। মহানগরের ক্ষেত্রে অবশ্য; কলকাতা প্রথম সারিতে নেই। রিপোর্ট বলছে, চেন্নাই, দিল্লি, বেঙ্গালুরু এবং মুম্বইয়ে; সব থেকে বেশি আত্মহত্যা ঘটেছে।

শহরে আত্মহত্যাঃ
বেঙ্গালুরু বাদে বাকি তিনটি মহানগরেই আত্মহত্যা বেড়েছে। তবে দেশের শহরাঞ্চলের মধ্যে; আত্মহত্যায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে এ রাজ্যের আসানসোল। দেশে ২০১৯ সালে ৭২টি সপরিবার; আত্মহত্যার ঘটনাও ঘটেছে বলে রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে।

আত্মহত্যার কারনঃ
৩২.৪ শতাংশ আত্মহত্যার জন্য; পারিবারিক কারণ দায়ী। প্রায় ১০ শতাংশ আত্মহত্যার পিছনে; কোনও কারণ জানা যায়নি। সব থেকে বেশি আত্মহত্যা ঘটেছে; ১৮ থেকে ৩০ বছর বয়সীদের মধ্যে। মোট আত্মহত্যার ৫৩.৬ শতাংশই; গলায় ফাঁস দিয়ে। বিষপানে মৃত্যু ২৫,৮ শতাংশের। জল ঝাঁপ দিয়ে মৃত্যু; ৫.২ শতাংশের। গায়ে আগুন দিয়ে; আত্মাহুতি ৩.৮ শতাংশের। বৈবাহিক সমস্যার কারণে, আত্মঘাতী ৫.৫ শতাংশ। অসুস্থতার কারণে; আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন ১৭.১ শতাংশ।

পুরুষদের আত্মহত্যা বেশিঃ
প্রতি ১০০ আত্মঘাতীর মধ্যে; ৭০.২ শতাংশ পুরুষ। মহিলা ২৯.৮ শতাংশ। বিভিন্ন থানার পুলিশ রেকর্ড থেকে; এই তথ্য সংগ্রহ করে NCRB। যে পুরুষরা আত্মহত্যা করেছেন; তাঁদের মধ্যে ৬৮.৪ শতাংশই বিবাহিত। আবার বিবাহিত মহিলা আত্মঘাতীর সংখ্যা; ৬২.৫ শতাংশ। দুর্ঘটনায় মৃত্যুতে মহারাষ্ট্র শীর্ষে। করোনা মৃত্যুতেও শীর্ষে। আবার আত্মহত্যার শীর্ষেও মহারাষ্ট্র। গোটা বছরে (২০১৯); ১৮ হাজার ৯১৬ জন আত্মঘাতী। তামিলনাড়ুতে আত্মঘাতী ১৩ হাজার ৪৯৩ জন। পশ্চিমবঙ্গ রয়েছে তিনে। আত্মঘাতী ১২,৬৬৫ জন। চারে মধ্য়প্রদেশ; ১২,৪৫৭ জন আত্মঘাতী। কর্নাটকে আত্মহত্যা করেছেন ১১,২৮৮ জন।

শিক্ষা ও আত্মহত্যাঃ
শিক্ষার নিরিখে বিশ্লেষণ করলে; আত্মঘাতীদের মধ্যে ১২.৬ শতাংশ নিরক্ষর। ১৬.৩ শতাংশ; প্রাথমিক পর্যন্ত পড়াশোনা করেছেন। ১৯.৬ শতাংশ প্রাথমিকের গণ্ডি পেরিয়েছেন; কিন্তু অষ্টম শ্রেণির পর আর পড়েননি। ২৩.৩ শতাংশ; ম্যাট্রিক পর্যন্ত পড়েছেন। স্নাতক বা তার ঊর্ধ্বে পড়াশোনা করেছেন; এমন আত্মঘাতী মাত্র ৩.৭ শতাংশ।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন