রাজ্যে লগ্নি নেই, বেহাল আর্থিক দশা, আরও ধার করতে নতুন আইন বানাল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকার

1406
রাজ্যে লগ্নি নেই, বেহাল আর্থিক দশা, আরও ধার করতে নতুন আইন বানাল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকার
রাজ্যে লগ্নি নেই, বেহাল আর্থিক দশা, আরও ধার করতে নতুন আইন বানাল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকার

রাজ্যে লগ্নি নেই; বেহাল আর্থিক দশা। বাজার থেকে আরও ধার করতে; আইন সংশোধন করে; নতুন আইন আনল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকার। আরও ধার করবে বাংলা; তারই ক্ষমতা বাড়াল রাজ্য সরকার। বলা যায়, আরও ধার করার আইনি ক্ষমতা; নিয়ে রাখল রাজ্য প্রশাসন। ২০১০ সালের বাজেট নিয়ন্ত্রণ আইন সংশোধন করে; আরও পাঁচ বছরের জন্য আর্থিক ঘাটতি এবং রাজ্যের মোট অভ্যন্তরীণ উৎপাদনের স্বার্থে; ঋণ নেওয়ার পরিমাণ বাড়িয়ে নিল রাজ্য সরকার। এতদিন বাজেট নিয়ন্ত্রণ আইনে নেওয়া আর্থিক শৃঙ্খলার সূচকগুলি; লক্ষ্যমাত্রার নীচে রাখতে সক্ষম বলে; রাজ্য বরাবরই দাবি করে এসেছে। করোনা তা উল্টে দিয়েছে বলেই; অর্থ দফতরের আধিকারিকরা জানাচ্ছেন।

বাজেট নিয়ন্ত্রণ আইন সংশোধনের পর; রাজ্য সরকার ২০২৪-২৫ অর্থবর্ষ পর্যন্ত; রাজ্যের মোট অভ্যন্তরীণ উৎপাদনের; ৩৪.৩% প্রতি বছর ঋণ নেওয়ার ক্ষমতা নিয়ে রেখেছে। ২০১৯-২০ অর্থবর্ষে ঋণ নিয়ে হয়েছে ৩৩.৩%। ফলে সরকারি খরচ চালাতে; আগামী পাঁচ বছর আরও বেশি করে ধার নেওয়ার পথ খোলা রাখছে রাজ্য। কিন্তু এই ধার বাড়তে থাকলে, তা বোঝা হয়ে দাঁড়াতে পারে; বলে মনে করছেন বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদরা।

আরও পড়ুনঃ ষ’ড়যন্ত্রকা’রীদের সঙ্গে যোগাযোগ, কাশ্মীরের ৩৩ জন নেতার বিদেশযাত্রার উপরে নি’ষেধাজ্ঞা মোদী সরকারের

বাজেট নিয়ন্ত্রণ আইন অনুযায়ী, ঘাটতি কমানোর লক্ষ্যমাত্রার পথে রাজ্য চলেছে; বলে বরাবর দাবি করে এসেছে নবান্ন। ২০১৮–১৯ অর্থবর্ষে আর্থিক ঘাটতির পরিমাণ ছিল; রাজ্যের মোট অভ্যন্তরীণ উৎপাদনের ২.৯৬%। ২০১৯–২০ অর্থবর্ষে তা দাঁড়াতে চলেছে; ২.৬৩% বা ৩৪ হাজার ১১৬ কোটি টাকায়। বাজেট নিয়ন্ত্রণ আইন সংশোধন করে; ২০২৪–২৫ পর্যন্ত আর্থিক ঘাটতির লক্ষ্যমাত্রা; প্রতি বছর মোট অভ্যন্তরীণ উৎপাদনের ৩% রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে অর্থ দফতর।

একইসঙ্গে আর্থিক ঘাটতি কমানোর ক্ষেত্রেও; একইভাবে আরও শিথিল নিতে বাধ্য হচ্ছে সরকার। যার অর্থ, ধার করে খরচ চালালেও, খরচে লাগাম কষার ব্যাপারে; এখনও ততটা সক্রিয় হতে পারছে না অর্থ দফতর। অর্থ দফতরের এক কর্তার কথায়, ‘‘করোনার কারণে আর্থিক কর্মকাণ্ডের; মেরুদণ্ডটাই ভেঙে গিয়েছে। এখন বেসরকারি ক্ষেত্রে; তেমন লগ্নি নেই। ফলে সরকারি খরচ বেশি করা হলে; তার প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ প্রভাব; সামগ্রিক অর্থ ব্যবস্থায় গতি আনতে সাহায্য করবে”।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন