বেসরকারি বাস নেই, সরকারি বাসে করোনা বিপদেও ভিড়ে চিড়ে চ্যাপ্টা মানুষ

2081
বেসরকারি বাস নেই, সরকারি বাসে করোনা বিপদেও ভিড়ে চিড়ে চ্যাপ্টা মানুষ/The News বাংলা
বেসরকারি বাস নেই, সরকারি বাসে করোনা বিপদেও ভিড়ে চিড়ে চ্যাপ্টা মানুষ/The News বাংলা

আশঙ্কাই সত্যি হল। বেসরকারি বাস নেই; আর তাই সরকারি বাসে করোনা বিপদেও; ভিড়ে চিড়ে চ্যাপ্টা মানুষ। সোমবার সপ্তাহের প্রথম দিনেই; রাস্তায় নেমে চরম দুর্ভোগে পড়লেন যাত্রীরা। বাস পেতে নাকাল হলেন অফিস যাত্রীরাও। এ দিন সকাল থেকে প্রায় নামেই নি; বেসরকারি বাস-মিনিবাস। সল্ট লেক থেকে টালিগঞ্জ; বেহালা থেকে বেলঘড়িয়া; হাওড়া থেকে গাড়িয়া; সর্বত্রই ভোগান্তির ছবি ধরা পড়ছে।

সোমবার এয়ারপোর্ট এক নম্বর গেটে; বাসস্ট্যান্ডে যাত্রীদের লম্বা লাইন। এদিকে সেইভাবে বাসের দেখা নেই। নিষেধাজ্ঞা উঠে যেতে; বৃহত্তর কলকাতায় হাজার দেড়েক সরকারি বাস চলছে। বেসরকারি বাস-মিনিবাসও; রাস্তায় বেশি সংখ্যায় নামছিল না। সাকুল্যে দু’হাজার। এখন তাও বন্ধ। এ দিন তা-ও উধাও! সরকারি বাসে বাদুড়ঝোলা ভিড়। ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইন দিয়েও দেখা মেনেনি; সরকারি বা বেসরকারি বাসের। ফলে এ দিন দুর্ভোগ আরও বেড়েছে। এই ভোগান্তি থেকে মুক্তি কবে? প্রশ্ন যাত্রীদের।

আরও পড়ুনঃ শাসক বদলেছে, বাংলার খেজুরি রয়েছে সেই সন্ত্রাসের মধ্যেই

সরকারের তরফে ভর্তুকি দেওয়া হবে; তবে বাড়ানো যাবে না বাসভাড়া। ঘোষণা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে জয়েন্ট কাউন্সিল অফ বাস সিন্ডিকেট আগেই জানিয়েছিল; তারা মুখ্যমন্ত্রীর কাছ থেকে প্যাকেজ নয়; বাড়তি ভাড়ার ঘোষণা চান। রবিবার সিন্ডিকেটের সমস্ত সদস্য এই মর্মে সহমত হল। আর তাই সোমবার থেকেই বাস বন্ধ। ভুক্তভুগি সাধারণ মানুষ।

এর ফলে জেলায় সোমবার থেকে বেসরকারি বাস পরিষেবা; অনিশ্চিত হয়ে পড়ল। কলকাতা ও শহরতলিতে বাস মিনিবাসের মূল সংগঠন, বাস মিনিবাস অপারেটর সংগঠন; রবিবারই জানিয়ে দিয়েছে; তারাও প্যাকেজের বদলে ভাড়া বৃদ্ধির পক্ষে। অতএব সোমবার থেকে তাদের বাসও রাস্তায় ক্রমশ কমবে। আর সেটাই হয়েছে। যার জেরে প্রবল বিপদের ঝুঁকি নিয়েই; ভিড় বাসে মানুষ।

আরও পড়ুনঃ বাংলার মন্দানমণি সি বিচে, ভেসে এল বিশাল আকারের একটি তিমি

ভাড়া জট তো ছিলই; তার উপর গত তিন সপ্তাহ ধরে লাগাতার ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধির জেরে; আরও সমস্যা বেড়েছে। এই পরিস্থিতিতে যত আসন, তত যাত্রী নিয়ে বাস চালানো সম্ভব হচ্ছে না বলে; দাবি বাস মালিকদের। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কলকাতার ৬ হাজার বাস-মিনিবাসকে; ১ জুলাই থেকে তিন মাস ১৫ হাজার টাকা করে অনুদান দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন। কিন্তু এই অনুদানকে বিভাজনের তকমা দিয়ে; আরও বেঁকে বসেছেন বাস-মিনিবাস মালিকদের একাংশ। তাঁদের বক্তব্য, কলকাতার ৬ হাজার গাড়ির মালিক; এই অনুদান পেলে, বাকিরা কেন পাবেন না? জেলায় যাঁরা বাস চালান তাঁদের কি হবে?

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন