“যেখানে ভোট কম, সেখানে সব সরকারি কাজ বন্ধ”, নির্দেশ তৃণমূল জেলা সভাপতির

1151
"যেখানে ভোট কম, সেখানে সব সরকারি কাজ বন্ধ", নির্দেশ তৃণমূল জেলা সভাপতির

“যেখানে ভোট কম, সেখানে সব সরকারি কাজ বন্ধ”; প্রকাশ্যে এমনই নির্দেশ দিয়েছেন তৃণমূলের বীরভূম জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। বীরভূমের খয়রাশোলে তৃণমূলের বুথভিত্তিক কর্মী সম্মেলনে; এমন ঘোষণা করলেন মমতার প্রিয় ‘কেষ্ট’। ফের বিতর্কিত মন্তব্য করে; শিরোনামে অনুব্রত মণ্ডল। যে পাড়ায় ভোট মেলেনি সেখানে ‘উন্নয়ন’ এর কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দিলেন; বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি। অনুব্রতর চ্যালেঞ্জ, “দেখি, বিজেপি কাজ করে দেয় না কি?”। আর এরপরেই শুরু হয়েছে জোর বিতর্ক।

আরও পড়ুনঃ “ভাতা নয় চাকরি চাই” দাবি তুলে মমতা সরকারের বিরুদ্ধে জেহাদ ঘোষণা বাংলার বেকার যুবকদের

খয়রাশোলের নাকড়াকোন্দা পঞ্চায়েতের; ৫৬ নম্বর বুথ সভাপতি চন্দ্রশেখর বাগদিকে; ভোট কম পাওয়ার কথা জিজ্ঞেস করেন অনুব্রত মণ্ডল। একইসঙ্গে কারা ভোট দেয়নি, তাও জানতে চান জেলা সভাপতি। সেই প্রশ্নের জবাবে বুথ সভাপতি; মুখার্জি পাড়ার কথা জানান। সঙ্গে সঙ্গেই সেই পাড়ায় সব কাজ; বন্ধ করে দেওয়ার নির্দেশ দেন অনুব্রত। আরও বলেন, “দেখি বিজেপি কাজ করে দেয় কিনা; উন্নয়ন করে দেয় কিনা। দিল্লি থেকে কাজ করে দেয় কিনা!” অনুব্রত মণ্ডলের এই নির্দেশ সামনে আসার পরই; নতুন করে উসকে উঠেছে বিতর্ক। অনুব্রতর মন্তব্যের; তীব্র নিন্দা করেছে বিজেপি।

আরও পড়ুনঃ অভিষেককে ঝুলন্ত উদ্ধার করা হলে, কি করতেন আপনি, জয়াকে একহাত নিলেন কঙ্গনা

বিধানসভা নির্বাচনের আগে, বীরভূম জুড়ে; বুথ সম্মেলন করছেন তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত। মঙ্গলবার ছিল দুবরাজপুর বিধানসভার; বুথগুলির সভা। সেখানেই ৫৬ নম্বর নাকড়াকোন্দা বুথের সভাপতি চন্দ্রশেখর বাগদিকে; হেরে যাওয়া এলাকায় কাজ বন্ধ রাখতে নির্দেশ দেন অনুব্রত। গত বিধানসভা নির্বাচনে ওই বুথে তৃণমূলের থেকে ২৩৫ ভোটে এগিয়ে ছিল বিজেপি। অনুব্রত বলে, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় উন্নয়ন করেননি? তারপরও বিজেপিকে ভোট দিতে; বিবেকে লাগল না? বিবেক বলে কি; কোনও জিনিস নেই?”

অনুব্রত মণ্ডলের মন্তব্যে; কড়া প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে বিজেপি। জেলা বিজেপি সভাপতি শ্যামাপদ মণ্ডল বলেন; “কেন্দ্রীয় বা রাজ্য সরকার উন্নয়নের জন্য যে টাকা বরাদ্দ করে; তা সাধারণ মানুষের করের টাকা। এই টাকা অনুব্রতবাবুর; ব্যক্তিগত টাকা নয়। তাই কাজ বন্ধ করতে বলার; অধিকার তাঁর নেই। পতন আসন্ন বুঝে, এখন ভোট পেতে; সরাসরি হুমকি দিতে হচ্ছে”।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন