রাজ্য বিধানসভায় হাতাহাতি, বিধায়কদের মারপিট থামালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা

143
রাজ্য বিধানসভায় হাতাহাতি, বিধায়কদের মারপিট থামালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা/The News বাংলা
রাজ্য বিধানসভায় হাতাহাতি, বিধায়কদের মারপিট থামালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা/The News বাংলা

ফের ধুন্ধুমার বিধানসভার অধিবেশন। অধিবেশন চলাকালীনই মারপিট করলেন; তৃণমূল এবং কংগ্রেস বিধায়করা। খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে; পরিস্থিতি নিয়্ন্ত্রণে আসরে নামতে হল। শুক্রবারের বিধানসভা অধিবেশনে; বাঁধল গণ্ডগোল। টাকা নিয়ে পরিবহন দফতরে নিয়োগ করা হচ্ছে; শুক্রবার বিধানসভায় এই অভিযোগ তোলেন কংগ্রেসের বিধায়ক কমলেশ চট্টোপাধ্যায়। এরপরেই মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর একটি মন্তব্যে বিতর্ক বাঁধে। সেখান থেকে কার্যত হাতাহাতির পর্যায় চলে যায় ঘটনা।

বিধানসভা প্রশ্ন-উত্তর পর্বে মুর্শিদাবাদের কংগ্রেস বিধায়ক প্রতিমা রজক রাজ্যের পরিবহন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারিকে প্রশ্ন করেন; তাঁর কাছে অভিযোগ আছে রাজ্যে পরিবহণ দফতরে যে নতুন কর্মী নিয়োগ হচ্ছে তাতে দুর্নীতি হচ্ছে। সেই প্রশ্নের উত্তর দিতে উঠে প্রথমেই পরিবহণ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারি বলেন; এই ধরনের অভিযোগ ভ্রান্ত, অপপ্রচার। এই অভিযোগ তিনি প্রমান করতে না পারলে তাঁকে বিধানসভায় দাঁড়িয়ে সকলের সামনে ক্ষমা চাইতে হবে।

আরও পড়ুনঃ চাঁদে পা দিচ্ছে ভারত, নিজেকে ভারতীয় প্রমাণে ছুটছেন চন্দ্রযানের বিজ্ঞানী

এই মন্তব্য থেকেই শুরু হয় গন্ডগোল। তারই মধ্যে শুভেন্দু অধিকারী বলেন; অর্ধেক মুর্শিদাবাদ ফাঁকা হয়ে গেছে। খুব তাড়াতাড়িই মুর্শিদাবাদের বাকি বিধায়কেরাও এসে; মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দলে যোগ দেবেন। আর এরপরই প্রধানত মুর্শিদাবাদের কংগ্রেস বিধায়কেরা ক্ষোভে ফেটে পড়েন।

আরও পড়ুনঃ এক দুর্গা মণ্ডপে দুই দুর্গার পুজো, কোনদিন না শোনা বাংলার এক অপূর্ব ঘটনা

এই সময়ে কংগ্রেস বিধায়ক কমলেশ চট্টোপাধ্যায়; মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর দিকে তেড়ে আসেন। রীতিমতো চিৎকার করতে থাকেন তিনি। বিধায়ক মন্ত্রীর সামনে যাওয়ার আগেই অবশ্য তাঁকে আটকে দেন নিরাপত্তারক্ষীরা। এরপরই একপ্রকার হাতাহাতির পর্যায় চলে যায় বিধায়কদের বচসা।

আরও পড়ুনঃ চাঁদে ভারতের বিক্রম, আজ রাতেই চাঁদে পা দিচ্ছে দেশ

বাধ্য হয়ে আসরে নামতে হয় মুখ্যমন্ত্রীকে। ওয়েলে নেমে দু’পক্ষের বিধায়কদের ধমক দেন তিনি। নিজের দলের বিধায়কদেরও এক হাত নেন মমতা। শুভেন্দু অধিকারীর ‘ফাঁকা হয়ে যাওয়া’ মন্তব্যটি; বিধানসভার রেকর্ড থেকে মুছে ফেলা হয়। সতর্ক করা হয় কংগ্রেস বিধায়কদেরও। সবমিলিয়ে সরগরম রাজ্য বিধানসভা। তবে মুর্শিদাবাদে কংগ্রেস যে আরও ভাঙবে; এমনটাই ইঙ্গিত দিলেন শুভেন্দু অধিকারী; বলছে রাজনৈতিক মহল।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন