পরের সার্জিক্যাল স্ট্রাইকে বিমানে বেঁধে নিয়ে যাওয়া হবে বিরোধীদের

606
পরের সার্জিক্যাল স্ট্রাইকে বিমানে বেঁধে নিয়ে যাওয়া হবে বিরোধীদের/The News বাংলা
পরের সার্জিক্যাল স্ট্রাইকে বিমানে বেঁধে নিয়ে যাওয়া হবে বিরোধীদের/The News বাংলা
Simple Custom Content Adder

পাকিস্তানের মাটিতে সার্জিক্যাল স্ট্রাইকে নিহত জঙ্গিদের সংখ্যা কত, তা নিয়ে বিতর্ক কিছুতেই থামছে না। সংখ্যা নিয়ে ধোঁয়াশা যতই বাড়ছে, ততই বিরোধীদের প্রশ্নবাণ তীক্ষ্ণ হচ্ছে মোদী সরকারের বিরুদ্ধে। এরপর এয়ার স্ট্রাইকে যাবার সময় যুদ্ধবিমানের সাথে বিরোধীদের বেঁধে নিয়ে যাবেন বলে জানিয়েছেন বিদেশ প্রতিমন্ত্রী বি কে সিং। এরপরেই শুরু হয়েছে জোর বিতর্ক।

মতুয়াদের বড়মার মৃত্যু রহস্যজনক, চাঞ্চল্যকর অভিযোগ

পুলওয়ামায় জঙ্গিহানার পর থেকেই কেন্দ্র সরকারের বিরুদ্ধে জওয়ানদের নিয়ে রাজনীতি করার অভিযোগ আনে বিরোধীরা। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এক ধাপ এগিয়ে গিয়ে পুলওয়ামার হামলার জন্য মোদীকে সরাসরি দায়ী করেন। বোমা ঠিক জায়গায় ফেলা হয়েছে কিনা তা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেন। মোদী আগে থেকেই হামলার ব্যাপারে সব কিছু জানতেন বলে তিনি মন্তব্য করেন।

কংগ্রেস নেতা দিগ্বিজয় সিং এর রাস্তায় হাঁটলেন বিজেপি নেতা

গত কয়েকদিন ধরেই পুলওয়ামায় জঙ্গিহানা নিয়ে রাজনৈতিক নেতাদের বিতর্কিত মন্তব্য চলছেই। এর মধ্যেই গত মঙ্গলবার পুলওয়ামায় সিআরপিএফ কনভয়ে পাক জঙ্গিদের সন্ত্রাসবাদী হানাকে দুর্ঘটনা বলে উল্লেখ করলেন কংগ্রেস নেতা দিগ্বিজয় সিং। আর এই নিয়ে এর আগেও পুলওয়ামা নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করে খবরে আসেন এই প্রবীন কংগ্রেস নেতা।

মঙ্গলবার সকালে দিগ্বিজয় সিং ট্যুইটারে পুলওয়ামা নিয়ে একটি মন্তব্য করেন। তিনি ট্যুইট করে লেখেন, পুলওয়ামায় সিআরপিএফ জওয়ানরা দুর্ঘটনায় মারা গিয়েছিলেন। জঙ্গি হামলায় তারা শহিদ হননি। আর এরপরেই তার মন্তব্য নিয়ে সমালোচনা শুরু হয় দেশ জুড়ে।

কংগ্রেস নেতা দিগ্বিজয় সিং এর রাস্তায় হাঁটলেন বিজেপি নেতা

এরপর কংগ্রেস নেতা দিগ্বিজয় সিংহ থেকে সিধুর প্রশ্নেও জেরবার হতে হয়েছে সরকারকে। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের রিপোর্টে সন্ত্রাসবাদীদের মৃত্যুর চেপে যাওয়া নিয়েও ব্যাপক জলঘোলা হয়েছে। মৃতের সংখ্যা আগে ৩০০ বলা হলেও পরে বিজেপির সভাপতি অমিত শাহ এক জনসভায় মৃতের সংখ্যা ২৫০ বলে উল্লেখ করেন৷ এই থেকেই বিজেপির বিরুদ্ধে রাজনীতির অভিযোগ তুলছেন বিরোধীরা।

এবার বিরোধীদের এই সমালোচনাকেই এক হাত নিলেন বিদেশ প্রতিমন্ত্রী বি কে সিং। তার করা এক ট্যুইটে তিনি মন্তব্য করেন, একটি জায়গায় প্রচুর মশা উৎপাত করছিল। সেখানে কীটনাশক প্রয়োগ করা হয়েছে। এবার মশা গোনা গুরুত্বপূর্ণ, নাকি ঘুমোতে যাওয়া।

ভোটের বাজার মাত করতে আসরে নামছে পিসি

এখানেই তিনি থেমে থাকেন নি। এরপর এয়ার স্ট্রাইকে যাবার সময় যুদ্ধবিমানের সাথে বিরোধীদের বেঁধে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। আর ফেরার সময় তাদেরকেও জঙ্গিঘাঁটিতে ফেলে আসতে বলেন, যাতে তারা সেখানে বসে মৃত জঙ্গিদের সংখ্যা গননা করতে পারে। তিনি ঠুকেছেন মমতা, কেজরিওয়াল সহ বিরোধী নেতাদের।

পাকিস্তানে বিমানহানার প্রমাণ সরকারের হাতে, বাকি সব গুজব

উল্লেখ্য, বায়ুসেনার তরফে আগেই জানানো হয়েছিলো, সরকার সময় মতো প্রমান দেবে, তবে বায়ুসেনার কাজ লক্ষ্যে আঘাত হানা, এবং সেক্ষেত্রে তারা ১০০% সফল। কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে যদিও জানানো হয়েছে, বালাকোটের ওই জঙ্গিঘাঁটিতে এয়ার স্ট্রাইকের আগে ৩০০ মোবাইল টাওয়ার সক্রিয় ছিলো, যা থেকেই মৃতদের পরিসংখ্যান নিয়ে একটা ধারনা পাওয়া যায়।

এদিকে বিদেশ প্রতিমন্ত্রী বি কে সিং এর এই মন্তব্যের পরেই দেশ জুড়ে শুরু হয়েছে বিতর্ক। বিরোধীদের তোপের মুখে পরেছেন তিনি।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন