পশু পাখির পাশাপাশি মানুষের মৃতদেহ থেকেও জৈবসার উৎপাদন করা যাবে

129
বৈধতা পেল পশু পাখির পাশাপাশি মানুষের মৃতদেহ থেকেও জৈবসার উৎপাদন/The News বাংলা
বৈধতা পেল পশু পাখির পাশাপাশি মানুষের মৃতদেহ থেকেও জৈবসার উৎপাদন/The News বাংলা

আপনি কি কখনও ভাবতে পেরেছেন এমনটাও হওয়া সম্ভব! পশু-পাখি’র পাশাপাশি এবার মানুষের মৃতদেহ থেকেও জৈবসার উৎপাদনকে বৈধতা দিয়েছে ওয়াশিংটন। এমন ঘটনা যুক্তরাষ্ট্রে এটাই প্রথম। অঙ্গরাজ্যের গভর্নর জে. ইন্সলে মানুষের মৃতদেহ সৎকারে ‘প্রাকৃতিক জৈব’ পদ্ধতিবিষয়ক একটি বিলে এই প্রস্তাব স্বাক্ষর করেন।

নিউইয়র্ক সংবাদমাধ্যম একটি পোস্টে জানায়, জৈব সার উৎপাদনের অংশ হিসেবে; এই পদ্ধতিতে মৃতদেহকে কাঠের কুচি ও খড়ের সঙ্গে মিশিয়ে রেখে দেওয়া হবে। এই ভাবে কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই তা সারে পরিণত হবে।

আরও পড়ুন: রোজভ্যালি চিটফান্ড কেলেঙ্কারিতে প্রসেনজিতের পর এবার ইডি গোয়েন্দাদের তলব ঋতুপর্ণাকে

অঙ্গরাজ্যের সিয়াটলভিত্তিক পিপলস মেমোরিয়াল অ্যাসোসিয়েশনের; নির্বাহী পরিচালক নোরা মেনকিন বলেন, ‘এ পদ্ধতির মাধ্যমে মৃত্যুর পর; আমাদের শরীরকে অর্থপূর্ণ কোনো কাজে লাগানো সম্ভব হবে’।

মৃতদেহকে জৈব সারে পরিণত করে সৎকার করাকে; শবদাহ কিংবা কবর দেওয়ার চেয়ে বেশি প্রকৃতিবান্ধব বলে উল্লেখ করা হচ্ছে। এই পদ্ধতির সমর্থকদের দাবি; শবদাহ বা কবর দেওয়া; মাটিকে দূষিত করে। শুধু তাই নয়; কফিনগুলো মাটির নিচেও জায়গা দখল করে রাখে।

আরও পড়ুন: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপির সদস্য, সদস্যপদ নম্বর ৪২৭৯, সাইবার ক্রাইমে তৃণমূল

এ উদ্যোগের পৃষ্ঠপোষক; সিয়াটলের ডেমোক্র্যাট সিনেটর; জেমি পেডারসেন বলেন, ‘কারো অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার মধ্য দিয়ে; প্রকৃতি বা মাটিকে এত ভারী বোঝা দেওয়া একেবারে অনুচিত’ বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক করার সময়; মৃতদেহকে জৈব সারে রূপান্তরের এই ধারণা পান রূপান্তরবিষয়ক সংগঠনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ক্যাটরিনা স্পেড।

পশুদের মৃতদেহ থেকে; বহু যুগ ধরেই কৃষকরা এভাবে সার উৎপাদন করে আসছেন। স্পেডের ধারণাকে বাস্তবে পরিণত করার অংশ হিসেবে; গত বছর ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাওয়া; ছয়টি মানবদেহকে জৈব সারে পরিণত করা হয়।

আরও পড়ুন: আপনার পছন্দের ইন্ডোর প্ল্যান্টস পরিবেশ রক্ষায় কতটা সাহায্যকারী কতটা নয়

রিকম্পোজের ওয়েবসাইটে; মৃতদেহ সৎকারের এই নতুন পদ্ধতি সম্পর্কে লেখা হয়েছে, “আমাদের সেবা ‘রিকম্পোজিশন’; আমরা মমতার সঙ্গে শবদেহকে মাটিতে বদলে দিই; যাতে মৃত্যুর পরেও আমরা নতুন প্রাণের সেবা করতে পারি”।

এই উদ্যোগের কারণে অনেকের ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়াও পেয়েছেন বলে জানান সিনেটর পেডারসেন। অনেকেই বিষয়টিকে জঘন্য বলে মন্তব্য করেছেন। তবে পুরো বিষয়টি যথাযোগ্য মর্যাদার সঙ্গে করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন পেডারসেন।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন