কুলভূষণ কাণ্ডে ল্যাজেগোবরে হয়েও, ফের কাশ্মীর ইস্যুতে আন্তর্জাতিক আদালতে পাকিস্তান

142
কুলভূষণ কাণ্ডে ল্যাজেগোবরে হয়েও, ফের কাশ্মীর নিয়ে আন্তর্জাতিক আদালতে পাকিস্তান/The News বাংলা
কুলভূষণ কাণ্ডে ল্যাজেগোবরে হয়েও, ফের কাশ্মীর নিয়ে আন্তর্জাতিক আদালতে পাকিস্তান/The News বাংলা

কুলভূষণ কাণ্ডে ল্যাজেগোবরে হয়েও; ফের কাশ্মীর নিয়ে; ভারতের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক আদালতে যাচ্ছে পাকিস্তান। মঙ্গলবার পাক মন্ত্রিসভার বৈঠকে; কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে আন্তর্জাতিক ন্যায়বিচার আদালতে; (আইসিজে) যাওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে পাকিস্তান সরকার। প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত; মন্ত্রিসভার বৈঠকে এই বিষয়ে যাবতীয় প্রস্তুতি নিতে; পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে কাজ শুরু করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার বৈঠক শেষে পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী; শাহ মাহমুদ কোরেশি জানান; আমরা কাশ্মীরের বিষয়টি আন্তর্জাতিক ন্যায়বিচার আদালতে নিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সব আইনি দিক খতিয়ে দেখে এবং সব কিছু বিবেচনা করেই; এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

আরও পড়ুনঃ পাকিস্তানে সেনা অভ্যুত্থানের আশঙ্কা, ইমরানকে পুতুল বানিয়েছে সেনাপ্রধান

সংবিধানের ৩৭০ নম্বর ধারা অনুযায়ী; জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা খারিজ করার কারণেই; ভারত সরকারের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক আদালতের দ্বারস্থ হতে চলেছে পাকিস্তান সরকার। যে কোনও উপায়ে কাশ্মীর নিয়ে দিল্লির সিদ্ধান্তের; বিরোধিতা করতে প্রস্তুত পাকিস্তান।

এর আগে রাষ্ট্রপুঞ্জের নিরাপত্তা কাউন্সিলের; দ্বারস্থ হয়েছিল পাকিস্তান। তা নিয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠকও হয়; ১৫টি সদস্য দেশগুলির। তবে শেষমেশ কোনও সিদ্ধান্তেই; উপনীত হওয়া যায়নি। বরং বেশির ভাগ সদস্য দেশই; সেইসময় ভারতকে সমর্থন করে। তারপরেও টুইটারে লাগাতার ভারতকে; আক্রমণ করে আসছিলেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

নরেন্দ্র মোদী নেতৃত্বাধীন বিজেপি সরকারকে; ‘ফ্যাসিবাদী’ বলেও উল্লেখ করেন তিনি। এরপর ফোনে নরেন্দ্র মোদী এবং ইমরান খান; দুই রাষ্ট্রনেতার সঙ্গেই কথা বলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সেইসময় ইমরানকে সংযত হওয়ার পরামর্শও দেন তিনি। তারপরেই এমন সিদ্ধান্ত নিল ইমরান সরকার।

ক্যাবিনেট মিটিংয়ের বিস্তারিত জানিয়ে; ইমরান খানের তথ্য উপদেষ্টা ফেরদৌস আশিক আওয়ান বলেন; কাশ্মীরের বিষয় নিয়ে আন্তর্জাতিক ন্যায়বিচার আদালতে যাওয়ার সুপারিশ; মন্ত্রিসভার বৈঠকে অনুমোদিত হয়েছে। এই বিষয়ে পাঁক পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও আইন মন্ত্রণালয়কে; যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

কাশ্মীরে মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং গণহত্যা; এই দুই বিষয়ে আন্তর্জাতিক ন্যায় আদালতে; ভারতকে কোণঠাসা করার চেষ্টা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। গত ৫ই আগস্ট ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ ও ৩৫এ অনুচ্ছেদ বাতিলের মধ্য দিয়ে; কাশ্মীরের বিশেষ অধিকার ও মর্যাদা বাতিল করে কেন্দ্রীয় সরকার। তারপরেই ভারতের বিরোধিতা করে আসছে ইমরান খান সরকার।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন