১৫ দিনে পড়ল পার্শ্ব শিক্ষকদের অবস্থান বিক্ষোভ আন্দোলন, এখনও উদাসীন শিক্ষামন্ত্রী

303
১৫ দিনে পড়ল পার্শ্ব শিক্ষকদের অবস্থান বিক্ষোভ, উদাসীন শিক্ষা মন্ত্রী/The News বাংলা
১৫ দিনে পড়ল পার্শ্ব শিক্ষকদের অবস্থান বিক্ষোভ, উদাসীন শিক্ষা মন্ত্রী/The News বাংলা

১৫ দিনে পড়ল পার্শ্বশিক্ষকদের; অবস্থান বিক্ষোভ আন্দোলন। বেতন বৃদ্ধির দাবিতে অবস্থান বিক্ষোভ চালাচ্ছেন তাঁরা। তার মধ্যে ৩৫ জন পার্শ্বশিক্ষক গত ৭ দিন ধরে; আমরণ অনশন আন্দোলন করছেন। অনশন চলাকালীন পূর্ব মেদিনীপুরের রেবতী রাউত; নামে এক অনশনকারী পার্শ্বশিক্ষিকার মৃত্যুও হয়েছে। অথচ এখনও উদাসীন শিক্ষামন্ত্রী; নিরুত্তাপ রাজ্য সরকার। ইতিমধ্যেই রাজ্যপাল উদ্বেগ দেখিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে ব্যবস্থা নিতে বলেছেন; কিন্তু নবান্ন চুপ।

আন্দোলনরত পার্শ্ব শিক্ষকদের দাবিঃ

২০০৪ সালে ‘সর্ব শিক্ষা মিশন’-এর অধিনে; রাজ্যের সরকারী সাহায্যপ্রাপ্ত প্রাথমিক ও উচ্চ-প্রাথমিক স্তরে; শিক্ষক হিসাবে পার্শ্বশিক্ষকদের নিযুক্ত করা হয়। বর্তমানে পার্শ্বশিক্ষকের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪৮ হাজার। ১৫ বছর কেটে গেলেও; তাঁদের কেউ পূর্ণ শিক্ষকের মর্যাদা পায়নি।

আরও পড়ুনঃ অনশন মঞ্চ থেকে হাসপাতালে পার্শ্বশিক্ষকরা, মমতার টনক নড়াতে উদ্যোগী রাজ্যপাল

নির্দিষ্ট বেতন কাঠামো নেই এই পার্শ্ব-শিক্ষকদের। মাসের শেষে ভাতা বা পারিশ্রমিক পান তারা; যা বর্তমান বাজার মূল্যের থেকে অনেক কম। ফলে তাঁদের জীবন নির্বাহ করা সম্ভব হয়ে উঠছে না। সঙ্গে একই কাজ করে মিলছে না; প্রাপ্ত পদ মর্যাদা ও বেতন।

গত ৩-৪ বছরে টাকার অভাবে চিকিৎসা করতে না পারায়; মারা গেছেন প্রায় শতাধিক পার্শ্ব-শিক্ষক। বাজারের সঙ্গে তাল মেলাতে না পেরে; আত্মহত্যা করেছেন বহু শিক্ষক। তাঁদের ন্যায্য দাবি জানাতে গেলে তা শোনেই নি মমতা সরকার; এমনটাই অভিযোগ। যদিও পার্শ্ব-শিক্ষকদের এই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে; রাজ্য প্রশাসন।

আরও পড়ুনঃ আহারে বাংলা আর গোলাপি শহরে চাপা পরেছে পার্শ্ব শিক্ষকদের অসুস্থতা ও মৃত্যু

শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন; “সরকারের কাছে টাকা নেই; কেন্দ্র থেকে টাকা পাঠালে বিষয়টি খতিয়ে দেখবেন”। তাঁর দাবি; “বাম আমলে অনৈতিকভাবে শিক্ষক নিয়োগের জন্যই এই বিপত্তি”।

পার্শ্বশিক্ষকরা বেশ কিছু দাবি রেখেছেন সরকারের কাছে। তাঁদের পূর্ণ-শিক্ষকের মর্যাদা দিতে হবে। সঙ্গে সমকাজে সমবেতন সাপেক্ষে; একটি নির্দিষ্ট বেতন কাঠামো চালু করতে হবে। যেসব শিক্ষক ২০১৮ সালের বর্ধিত ভাতা পাচ্ছেন না; তাঁদের শীঘ্রই বর্ধিত ভাতা চালু করতে হবে। সঙ্গে মৃত পার্শ্ব-শিক্ষকদের পরিবারকে আর্থিক সাহায্য সহ চাকরী দিতে হবে। তবে ১৫ দিন পরেও শিক্ষামন্ত্রীর উদাসীনতায়; ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে অনেকের মধ্যেই। রাজ্য প্রশাসনের তরফ থেকে বলা হয়েছে; শিক্ষামন্ত্রী আলোচনা করতেই চান।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন