ভোটে অপপ্রচার, গ্রামে ঘুরে ঘুরে মাইকিং করে মানুষের কাছে ক্ষমা চাইল দলের কর্মীরা

983
ভোটে অপপ্রচার, গ্রামে ঘুরে ঘুরে মাইকিং করে মানুষের কাছে ক্ষমা চাইল দলের কর্মীরা
ভোটে অপপ্রচার, গ্রামে ঘুরে ঘুরে মাইকিং করে মানুষের কাছে ক্ষমা চাইল দলের কর্মীরা

ভোটে অপপ্রচার, গ্রামে ঘুরে ঘুরে মাইকিং করে; মানুষের কাছে ক্ষমা চাইল দলের কর্মীরা। ভোটের আগে পঞ্চায়েতের উন্নয়নের কাজ নিয়ে; অপপ্রচার করা হয়েছে। এজন্য মাইকে প্রচার করে ক্ষমা চাইলেন; বীরভূমের বিপ্রটিকুরির বিজেপি কর্মীরা। সেইসঙ্গে তৃণমূলে যোগ দেওয়ার; ইচ্ছেপ্রকাশও করেছেন তাঁরা। লাভপুর বিধানসভার বিপ্রটিকুড়ি পঞ্চায়েত এলাকায়; বিজেপি কর্মীরা নিজেরাই গ্রামে ঘুরে ঘুরে মাইকিং করে; মানুষের কাছে ক্ষমা চেয়ে নিলেন। তাঁদের তরফে বলা হল, “নির্বাচনের সময় আমরা মানুষকে ভুল বুঝিয়েছি; যার ফলে শান্তি বিঘ্নিত হয়েছে”।

এদিন বিজেপি কর্মীদের মাইকিং করে বলতে শোনা যায়; “আমরা ১ নম্বর সংসদের বিজেপি কর্মীবৃন্দ, ২০২১ সালে বিধানসভা ভোটের আগে; বিপ্রটিকুড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের উন্নয়নমূলক কাজের সম্পর্কে; মিথ্যা তথ্য প্রচার করে গ্রামের মধ্যে উত্তেজনা; ও গন্ডগোলের সৃষ্টি করেছিলাম। যেগুলো ভিত্তিহীন এবং সর্বতোভাবে মিথ্যা। আমরা সেই মিথ্যে অপবাদের প্রচারের জন্য; গ্রামবাসীদের কাছে ক্ষমা চাইছি। এবং শপথ করছি এরকম মিথ্যা অপপ্রচার; ভবিষ্যতে কোনদিন করব না। গ্রামবাসীদের কাছে ভুল স্বীকার করে; তৃণমূলে যোগদান করবার ইচ্ছাপ্রকাশ করছি”।

আরও পড়ুন; ‘বেসুরো রাজীব’, একমাস চুপ থাকার পর সোজা ‘পাল্টি’

বিজেপির বিপ্রটিকুরি বুথ কমিটির সহ সভাপতি বিপ্লব দাসকে; এদিন দেখা যায় মাইক হাতে স্বীকারোক্তি করতে। প্রকাশ্যে নিজেদের কুকর্মের কথা; স্বীকার করতে। এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই; শোরগোল পড়ে গিয়েছে বীরভূম ছাড়িয়ে গোটা রাজ্যে। এবারের হাইভোল্টেজ বিধানসভা নির্বাচন পর্বে; প্রচারে অন্যতম মূল ইস্যু ছিল উন্নয়ন। এলাকার প্রতিটি জনসভায় তৃণমূলের বিরুদ্ধে তোপ দেগে; গেরুয়া শিবির দাবি করেছিল, প্রকৃত উন্নয়ন থেকে রাজ্য বহুদূরে। তবে ভোটের ফলপ্রকাশের মাসখানেক পর এনিয়ে; বিজেপির অন্দরেই শোনা গেল ভিন্ন সুর।

আরও পড়ুন; মাধ্যমিক পরীক্ষা বাতিল হওয়ায় হতাশ, আ’ত্মঘাতী মেধাবী ছাত্রী

বিষয়টি সামনে আসতেই, চরম অস্বস্তিতে পড়েছে; জেলা বিজেপি নেতৃত্ব। তৃণমূলের ঘাড়েই; দোষ চাপিয়েছে তারা। জেলা সভাপতি ধ্রুব সাহা বললেন; “লাভপুর-নানুরে গণতন্ত্র বাক-স্বাধীনতা নেই; সামাজিক বয়কটের পরিস্থিতি; প্রাণ বাঁচানোর তাগিদে তৃণমূলের হয়ে কথা বলতে বাধ্য হচ্ছে”। তবে ভয় দেখানোর অভিযোগ; উড়িয়ে দিয়েছে তৃণমূল। লাভপুরের তৃণমূল বিধায়ক অভিজিৎ সিংহ বলেন; “বিজেপির অভিযোগ ভিত্তিহীন; ওরা আমাদের দলে আসার জন্য আবেদন করেছে; আমরা আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেব”।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন