প্রিয় বন্ধুর হাত ধরেই, সন্ত্রাস দমনের আশ্বাস দিলেন প্রধানমন্ত্রী

148
প্রিয় বন্ধুর হাত ধরেই, সন্ত্রাস দমনের আশ্বাস দিলেন প্রধানমন্ত্রী/The News বাংলা
প্রিয় বন্ধুর হাত ধরেই, সন্ত্রাস দমনের আশ্বাস দিলেন প্রধানমন্ত্রী/The News বাংলা

এবার শুধু একা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী নন; মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও এক হাত নিলেন পাকিস্তানকে। বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্র ভারত ও বিশ্বের প্রাচীনতম গণতন্ত্র আমেরিকার; প্রধান সমস্যা ইসলামিক সন্ত্রাস এবং অনুপ্রবেশ। আর তার দমনেই হাত ধরলেন দুই ‘প্রিয় বন্ধু’। রবিবার ‘হাউডি মোদী: শেয়ার্ড ড্রিমস, ব্রাইট ফিউচার’ জনসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে সেই চিরাচরিত সমস্যার উপরই আলোকপাত করলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। আর নাম না করে বিঁধলেন ভারতের প্রতিবেশী দেশ; পাকিস্তানকে।

রবিবারের অনুষ্ঠানে ট্রাম্প বললেন; “বর্তমান পরিস্থিতিতে নিরাপত্তাই সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু। ভারত এবং আমেরিকা; দু’দেশই বোঝে দেশের মানুষকে সুরক্ষিত রাখতে সীমান্ত সুরক্ষা কতটা গুরুত্বপূর্ণ। সীমান্ত সুরক্ষা যেমন আমেরিকার কাছে গুরুত্বপূর্ণ, তেমনই ভারতের জন্যও জরুরি”।

আরও পড়ুনঃ সারদার দেবযানীর বাড়িতেই বিজেপি কর্মীদের ভিড়, খেলা কি ঘুরে যাবে এবার

সীমান্তে অনুপ্রবেশ রুখতে যে ইতিমধ্যেই উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ করেছে আমেরিকা তা মনে করিয়ে দেন ট্রাম্প। অনুপ্রবেশকারীদের কড়া হাতে নিয়ন্ত্রণ করতে; ইসলামী সন্ত্রাস প্রতিরোধ করতে হাতে হাত মিলিয়ে কাজ করবে ভারত এবং আমেরিকা। ইসলামী সন্ত্রাসের হাত থেকে দেশবাসীদের রক্ষা করতে সরকার যে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ তা জানান মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

অন্যদিকে মোদী বলেন; প্রধানমন্ত্রী বলেন; “আমেরিকার ৯ /১১ হোক; বা মুম্বইয়ের ২৬/১১ এই হামলার চক্রান্তকারীদের কোথায় পাওয়া গিয়েছিল? শুধুমাত্র আপনারা নন; সারা বিশ্ব জানে, তারা কারা”। বক্তব্যেই স্পষ্ট; নাম না করে ইসলামী সন্ত্রাস প্রসঙ্গে পাকিস্তানকেই কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছেন দুই নেতা।

আরও পড়ুনঃ বাবুলের কাছে ক্ষমা চায়নি দেবাঞ্জনবল্লভ, ফেক প্রোফাইলে কারসাজি

৯ /১১ হামলার মূলচক্রী ওসামা বিন লাদেন; ২০১১-এ প্রায় একদশক ধরে সন্ধান চালানোর পর; পাকিস্তানের আবোত্তাবাদে তাকে হত্যা করে আমেরিকা। মুম্বইয়ে ২৬/১১ হামলার পরিকল্পনা এবং কার্যকর করা করেছিল পাকিস্তানের জঙ্গি সংগঠন লস্কর-ই-তৈয়বা।

রবিবার ভাষণের শুরুতেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট মোদীকে; ‘হোয়াইট হাউসের প্রকৃত বন্ধু’ বলে প্রশংসায় ভরিয়ে দেন। ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে জয়ের জন্য অভিনন্দন জানানোর পাশাপাশি মোদীকে জন্মদিনের শুভেচ্ছাও জানান।

সবশেষে প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেন; “আমি জোর দিতে চাই যে, প্রেসিডেন্ড ট্রাম্প এই বিষয়ে কঠোরভাবে এর বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছেন। আমি তাঁর এই প্রচেষ্টার জন্য তাঁকে উঠে দাঁড়িয়ে সম্মান জানাতে চাই”।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন