রাস্তায় মরছে ভারত নির্মাতারা, প্রতিশ্রুতি পালনে ব্যর্থ মোদী

666
রাস্তায় মরছে ভারত নির্মাতারা, প্রতিশ্রুতি পালনে ব্যর্থ মোদী
রাস্তায় মরছে ভারত নির্মাতারা, প্রতিশ্রুতি পালনে ব্যর্থ মোদী

“যে যেখানে আছেন সেখানেই থাকুন”; ২৫ শে মার্চ থেকে দেশ জুড়ে প্রথম লকডাউন ঘোষণা করার আগে বলেছিলেন; ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আর সেই কথা বিশ্বাস করেই; ডুবল পরিযায়ী মানুষরা। কারণ, পরিযায়ী মানুষদের সেখানেই থাকতে বলেছিলেন মোদী; কিন্তু তাঁরা যেখানে কাজ করছিলেন; তাঁদের কোন নির্দেশ দেওয়া হয় নি। কোন রাজ্য সরকারকে পরিযায়ীদের নিয়ে; কোন নির্দেশ দেওয়া হয় নি। প্রধানমন্ত্রীর অফিসের একটু দুরেই; দিল্লির আনন্দ বিহার বাস স্ট্যান্ডে; করোনা মাথায় নিয়েই; হাজার হাজার পরিযায়ী শ্রমিকদের জড়ো হওয়ার পরেও টনক নড়ে নি মোদী সরকারের।সেই উদাসীনতার মাসুল দিচ্ছে; ভারতের পরিযায়ী মানুষরা। চতুর্থ দফার লকডাউনের মধ্যেও; তাঁরা এখন মরছে রাস্তায়।

একুশে আইন, একই রাজ্যে দুরকম নিয়ম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারের

রাস্তায় ভারত নির্মাতারা, প্রতিশ্রুতি পালনে ব্যর্থ মোদী

দেশ জুড়ে শুরু চতুর্থ দফার লকডাউন। আর দু মাস কেতে যাওয়ার পরেও রাস্তায়; ভারতের পরিযায়ী মানুষরা। অর্থাৎ অন্য রাজ্যে থাকা বা কাজ করতে যাওয়া মানুষরা এখন; খেতে না পেয়ে নিজের নিজের বাড়ির পথে। কেন এমন হল? তাঁরা বিশ্বাস করেছিলেন নিজেদের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে। কিন্তু পরিযায়ীদের ক্ষেত্রে; নিজের প্রতিশ্রুতি পালনে সম্পূর্ণ ব্যর্থ; প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তারই ফলে এখন মাঝরাস্তায় গলা জলে; নিজের রাজ্য ছেড়ে, নিজের দেশেরই ভিন রাজ্যে থাকা মানুষরা। একের পর দুর্ঘটনা; মরছে মানুষ। রাস্তায় শিশু, মহিলা, অন্তঃস্বত্তা, বুড়ো বুড়ী। পরিবারকে গরুর গাড়িতে বসিয়ে; নিজে গরুর জায়গায় মানুষ।

দু মাস লকডাউন সত্ত্বেও, চিনকে ছাপিয়ে গেল ভারত

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কথা বিশ্বাস করেই ডুবল পরিযায়ী মানুষরা

ঘটনা ১ঃ উত্তর প্রদেশে ফের পথ দুর্ঘটনায়; মৃত্যু ২৪ জন পরিযায়ী শ্রমিকদের। আহত ৩৫। অওরিয়ায় জাতীয় সড়কের উপর; দুর্ঘটনাটি ঘটে। দিল্লি থেকে ট্রাকে করে চেপে; গোরক্ষপুর ফিরছিলেন শ্রমিকরা। ঘটনা ২ঃ মহারাষ্ট্রে আটকে পড়া পরিযায়ী শ্রমিকরা ফিরছিলেন; তাঁদের উত্তরপ্রদেশের বাড়িতে। ১,০০ কিলোমিটার হেঁটে পাড়ি দিচ্ছিলেন; ৭০ জনের একটি পরিযায়ী শ্রমিকের দল; পথেই ঘটে গেল চরম দুর্ঘটনা। মধ্যপ্রদেশের গুনায় বাস দুর্ঘটনায় অন্তত ৮ জন পরিযায়ী শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে, আহত হয়েছেন ৫৪ জন।

যাত্রী কম ভাড়া বেশি বাসে, ট্যাক্সির ভাড়া বাড়বে কেন

ঘটনা ৩ঃ মহারাষ্ট্রের আওরঙ্গাবাদ জেলায়; মালগাড়ির তলায় চাপা পড়ে মৃত্যু হল কমপক্ষে ১৫ জন পরিযায়ী শ্রমিকের। ভারতীয় রেল সূত্রে খবর; ওই শ্রমিকরা দীর্ঘদিন আটকে থাকার পর; রেল লাইন ধরে হেঁটে বাড়ির উদ্দেশে রওনা দিয়েছিলেন। কিন্তু মধ্যপ্রদেশের ওই শ্রমিকদের; আর বাড়ি ফেরা হলো না। ওই যাত্রীরা রেললাইন ধরে হাঁটতে হাঁটতে ক্লান্ত হয়ে যাওয়ায়; রেল লাইনের উপরেই ঘুমিয়ে পড়েছিলেন।

রাস্তায় মরছে ভারত নির্মাতারা, প্রতিশ্রুতি পালনে ব্যর্থ মোদী

এই কয়েকটি বড় দুর্ঘটনা; ছোটখাট ঘটনায় আরও মৃত্যু হয়েছে পরিযায়ী মানুষদের। একের পর এক ছবি; হতবাক করে দিয়েছে গোটা ভারতকে। কে দায়ী এর জন্য? দায় এড়াতে পারে না কোন রাজ্য সরকার। তেমনই দায় এড়াতে পারেন না; মোদী সরকার। পরিযায়ীদের নির্দেশ দিলেন; “যে যেখানে আছেন সেখানেই থাকুন”। কিন্তু কোন রাজ্যকেই নির্দেশ দিলেন না; যে পরিযায়ীদের জন্য ব্যবস্থা নিতে হবে। ফলে যা হবার তাই হল। মাঝ রাস্তায় মরছে পরিযায়ীরা। কিলোমিটার এর পর কিলোমিটার হাঁটছে ভারতের মানুষ। ছবি দেখে ক্ষুব্ধ গোটা দেশ।

মোদীর করোনা বাজেট, ১ লাখ কোটি টাকা কৃষি পরিকাঠামো বরাদ্দ

২০ লক্ষ কোটি টাকার বিশেষ প্যাকেজ; ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। চাষি কৃষক ও পরিযায়ীদের জন্য; বিশেষ সুবিধা ঘোষণা করেছে মোদী সরকার। তবে তাতেও মোদী যে নিজের প্রতিশ্রুতি পালনে ব্যর্থ; তা চেপে রাখা যাচ্ছে না। পরিযায়ী মানুষদের ক্ষেত্রে; বিভিন্ন রাজ্যের অপরাধ ক্ষমার অযোগ্য। কিন্তু দেশের পরিযায়ী মানুষদের ক্ষেত্রে সম্পূর্ণ ব্যর্থ মোদী সরকার; এটা জলের মত পরিষ্কার।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন