ইন্দ্রপতন, করোনা কেড়ে নিল বাংলা সাহিত্যের ‘বটবৃক্ষ’-কে

5187
ইন্দ্রপতন, করোনা কেড়ে নিল বাংলা সাহিত্যের নক্ষত্রকে
ইন্দ্রপতন, করোনা কেড়ে নিল বাংলা সাহিত্যের নক্ষত্রকে

ইন্দ্রপতন। করোনা কেড়ে নিল; বাংলার এক নক্ষত্রকে। করোনা কেড়ে নিল; বাংলা সাহিত্যের বটবৃক্ষ-কে। চলে গেলেন কবি শঙ্খ ঘোষ। করোনায় আক্রান্ত হয়ে; আইসোলেসনে ছিলেন। বুধবার সকালে তিনি; বাড়িতেই মারা যান। শোকের ছায়া বাংলার সাহিত্য জগতে। ৮৯ বছর বয়সে; প্রয়াত হলেন শঙ্খ ঘোষ। করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন; কয়েকদিন আগেই। বিভিন্ন বার্ধক্যজনিত সমস্যাতেও; ভুগছিলেন তিনি। করোনা সংক্রমণ ধরা পরার পর; ঝুঁকি না নিয়ে বাড়িতেই রাখা হয়েছিল তাঁকে। যদিও সেই সময় তাঁর শারীরিক অবস্থা; স্থিতিশীল বলে জানানো হয়েছিল।

আরও পড়ুনঃ লাফিয়ে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ, বাংলায় প্রথম নির্দিষ্ট এলাকায় জারি অনির্দিষ্টকালের কার্ফু

বাংলার নাগরিক সমাজের মুখ; চলে গেলেন পৃথিবী ছেড়ে। কবির পরিবার সূত্রে জানা গেছে; বুধবার শঙ্খ ঘোষের করোনা টেস্টের রিপোর্ট; পজিটিভ আসে। এরপর কবির অনুরোধে; বাড়িতেই তাঁর চিকিৎসা চলতে থাকে। তবে করোনার শিকার হয়ে, তাঁকে বিদায় নিতে হবে; ভাবতেও পারছে না বাংলার সাহিত্যপ্রেমি মানুষ। শোকার্ত বাংলা সাহিত্য জগত। চলতি বছরের জানুয়ারিতে, শ্বাসনালির সংক্রমণ নিয়ে; হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। এরপরে করোনার সংক্রমণ; আর সামলতে পারলেন না শঙ্খ ঘোষ।

আরও পড়ুনঃ ‘প্রচার মিছিল মিটিং অনেক করলেন, এবার মানুষকে বিচার করতে দিন’

বাংলা সাহিত্যের এক যুগের অবসান! করোনার দ্বিতীয় ঢেউ কেড়ে নিল; প্রবাদপ্রতিম কবিকে। গত সপ্তাহেই কোভিড আক্রান্ত হয়ে; হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন তিনি। তারপর কিছুটা সুস্থ হয়ে; বাড়ি ফিরে আসেন। তাঁর মৃত্যুতে স্থবির বাংলা সাহিত্য মহল। বাংলা কবিতার; এক যুগের অবসান। বাংলা সাহিত্যের; এক যুগের শেষ। জীবনানন্দ পরবর্তী সময়ে, বাংলা কবিতার; যে নতুন ধারা তৈরি হয়েছিল, সেই ধারার অবসান।

আরও পড়ুনঃ “দেশে লকডাউন করা হবে না”, জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ প্রধানমন্ত্রী মোদীর

সাহিত্য জগতে; শঙ্খ ঘোষের অবদান চিরস্মরণীয়। ‘দিনগুলি রাতগুলি’; ‘বাবরের প্রার্থনা’; ‘মুখ ঢেকে যায় বিজ্ঞাপনে’; ‘গান্ধর্ব কবিতাগুচ্ছ’; তাঁর উল্লেখযোগ্য কাব্যগ্রন্থ। দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয় ও বিশ্বভারতীর মতো প্রতিষ্ঠানে; অধ্যাপনা করেছেন। ১৯৭৭ সালে ‘বাবরের প্রার্থনা’ কাব্যগ্রন্থটির জন্য; সাহিত্য অ্যাকাডেমি পুরস্কার পান। ১৯৯৯ সালে কন্নড় ভাষা থেকে, বাংলায় ‘রক্তকল্যাণ’ নাটকটি অনুবাদ করেও; সাহিত্য অ্যাকাডেমি পুরস্কার পান। এ ছাড়াও রবীন্দ্র পুরস্কার, সরস্বতী সম্মান, জ্ঞানপীঠ পুরস্কার পেয়েছেন। ২০১১ সালে কেন্দ্রীয় সরকার; তাঁকে পদ্মভূষণে সংবর্ধিত করে।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন