একটি রাজনৈতিক প্রেমের গল্প, ইন্দিরা গান্ধীর জরুরি অবস্থা ও সুষমা স্বরাজের প্রেম

575
একটি রাজনৈতিক প্রেমের গল্প, ইন্দিরা গান্ধীর জরুরি অবস্থা ও সুষমা স্বরাজের প্রেম/The News বাংলা
একটি রাজনৈতিক প্রেমের গল্প, ইন্দিরা গান্ধীর জরুরি অবস্থা ও সুষমা স্বরাজের প্রেম/The News বাংলা

“ম্যাডাম গত ৪৬ বছর ধরে; তোমার পিছন পিছন দৌড়চ্ছি। আমার বয়স তো; আর ১৯-এর কোঠায় নেই। আমিও হাঁফিয়ে যাই আজকাল”। ব্যাস, একটা লেখায় প্রেমিকা; ২০১৯ এর লোকসভা ভোটে দাঁড়ান নি। উত্তর এল আবার সেই প্রেমিকের পক্ষ থেকেই। “ভোটে না লড়ার; তোমার এই সিদ্ধান্তের জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ। আমি মনে করতে পারি; একটা সময় এসেছিল যখন এমনকি মিলখা সিংও দৌড়ানো ছেড়ে দিয়েছিলেন। সেই ১৯৭৭ থেকে ৪১ বছর ধরে এই ম্যারাথন চলছে। ১১টা ভোটে তুমি লড়েছ। ১৯৭৭ থেকে সবকটি নির্বাচনে লড়েছ তুমি। শুধুমাত্র ১৯৯১ আর ২০০৪-এ; যখন দল তোমাকে অনুমতি দেয়নি তখনই তুমি ভোটে দাঁড়াতে পারনি”।

দুটি আলাদা রাজনৈতিক বিশ্বাসে বিশ্বাসী হয়েও; যে কী ভাবে তাঁরা প্রেম করলেন; বিয়ে করলেন; সেই রহস্যটা কখনওই তাঁরা প্রকাশ্যে বলেননি। একজন কট্টর বিশ্বাসী রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘের (আরএসএস) মতাদর্শে; অন্যজন পুরোদস্তুর সমাজবাদী। একজন সুষমা স্বরাজ; অন্যজন স্বরাজ কৌশল। তাঁর নিজের নাম শুধুই সুষমা। স্বরাজ তাঁর স্বামীর নাম। স্বামী স্বরাজ কৌশলের নামের প্রথমভাগটুকু; বিয়ের পর থেকে নিজের নামের সঙ্গেই যুক্ত করে নিয়েছিলেন সুষমা।

আরও পড়ুনঃ সবার সামনে প্রকাশ্যে কেঁদে ফেললেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

আলাপ কলেজে পড়ার সময় থেকেই। দুজনেরই হাঁটাহাঁটি কিন্তু; একে অন্যের ঠিক উল্টো দিকে। মতাদর্শের দিক দিয়ে তো বটেই; পরিবারে দিক থেকেও। হরিয়ানার অত্যন্ত রক্ষণশীল পরিবারের কন্যা; সুষমার অগাধ বিশ্বাস আরএসএসের মতাদর্শে। আর পঞ্জাব বিশ্ববিদ্যালয় ও পরে দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনের স্নাতক; স্বরাজ কৌশল বিশ্বাসী সমাজবাদের আদর্শে। তবু প্রেম করেছিলেন তাঁরা; বাঁধন ভাঙা।

শেষপর্যন্ত দুজনের দুই ভিন্ন পথ ও দুজোড়া হাত; মিলে গেল। দেশে তখন জরুরি অবস্থা জারি করেছেন; প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গাঁধী। অত্যন্ত রক্ষণশীল হওয়ায় হরিয়ানায় সুষমার মা, বাবা, পরিবার, আত্মীয়স্বজন একেবারেই চাননি; সুষমা ও কৌশলের বিয়েটা হোক। কিন্তু বিয়েটা হল সুষমার জেদেই। ১৯৭৫-এর ১৩ জুলাই। সুষমা তাঁর নামের শেষে বসিয়ে দিলেন ‘স্বরাজ’। দেশে যখন নখ-দাঁত বের করে ফেলেছে; ইন্দিরার জরুরি অবস্থা! সেই কঠিন সময়ে বিয়ে; নিজের বাড়ির বিরুদ্ধে কার্যত ‘বিদ্রোহ’ ঘোষণা করেই!

আরও পড়ুনঃ কাশ্মীর বিলে বিরোধীতা করেও, মোদী সরকারের বিরুদ্ধে ভোট দিল না মমতার তৃণমূল

তার তিন-চার বছর আগে থেকেই; গোটা দেশ তোলপাড় করে দিয়েছে; লড়াকু নেতা জর্জ ফার্নান্ডেজের রেল আন্দোলন। জরুরি অবস্থার সময় গ্রেফতার করা হল; সমাজবাদী নেতা জর্জকে। মামলা শুরু হল সুপ্রিম কোর্টে। সেই মামলায় জর্জের পক্ষে লড়ছিল আইনজীবীদের যে দল; তাতে ছিলেন দুজনেই। সুষমা ও স্বরাজ কৌশল।

সারাটা জীবন ধরে; একই ছাদের তলায় কাটিয়েছেন সুষমা ও কৌশল। নিজেদের আলাদা আলাদা মতাদর্শে বিশ্বাসী থেকেও। কেউ কাউকে প্রভাবিত করেননি; করার চেষ্টাও করেননি। তাই কোনও দিন স্বরাজ কৌশল যোগ দেননি বিজেপিতে। আবার সুষমাও কখনও সঙ্ঘ পরিবার ছেড়ে; হাঁটেননি সমাজবাদী রাজনীতির পথে। নিজে সমাজবাদী আদর্শে বিশ্বাসী হয়েও; স্বরাজও কখনও আপত্তি করেননি সুষমার রাজনীতিতে। বরং দুজনেই চাইতেন রাজনীতির আবহ থেকে বেরিয়ে এসে; নিজেদের ব্যক্তিগত বৃত্তে আটকে রাখতে।

বিয়ে হয়েছিল দেশের এক অশান্ত সময়ে। সুষমা ও কৌশলের এক মেয়ে; বাঁশুরি স্বরাজও একজন সফল আইনজীবী। কিন্তু জীবনের শেষ দিনটা পর্যন্ত; একে অপরের হাত ছাড়েননি সুষমা ও কৌশল। কারণ তাদের স্বপ্নে ছিল স্বরাজ। মৃত্যুর কয়েকদিন আগেও একসঙ্গে পালন করেছিলেন; নিজেদের ৪৪ তম বিবাহ বার্ষিকী। রাজনীতির বাইরেও সুষমা স্বরাজ ও স্বরাজ কৌশল এর প্রেম; ভারতের ইতিহাসে এক গল্পগাথা হয়ে থাকবে।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন