প্রার্থী ঠিক করবেন প্রশান্ত কিশোর, তৃণমূলের অনেক বিধায়ক আর টিকিট পাবেন না

10147
তৃণমূলের অনেক বিধায়ক আর টিকিট পাবেন না/The News বাংলা
তৃণমূলের অনেক বিধায়ক আর টিকিট পাবেন না/The News বাংলা

বেশ চিন্তায় পরে গেছেন তৃণমূলের বিধায়করা। কারণটা কি? কারণ খুব সোজা। সামনের বিধানসভার প্রার্থী ঠিক করবেন প্রশান্ত কিশোর; আর তৃণমূলের অনেক বিধায়কই আর টিকিট পাবেন না। দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশাপাশি; ২০২১ সালের বিধানসভায় তৃণমূলের প্রার্থী ঠিক করার প্রধান দায়িত্বে থাকছেন; প্রশান্ত কিশোরও। আর এখানেই চিন্তায় পরে গেছেন; তৃণমূলের অনেক বিধায়কই। তবে এই তথ্য প্রকাশ্যে স্বীকার করতে রাজি নন; কোন তৃণমূল বিধায়কই। তবে ঘনিষ্ঠমহলে তৃণমূলের সব বিধায়কই; এই নিয়ে খুব চিন্তা প্রকাশ করেছেন।

“২০২১ বিধানসভায় তৃণমূলকে জেতানোর দায়িত্ব; যখন আমার তখন কে প্রার্থী হবে সেই সিধান্ত নেব আমি”; তৃণমূল নেতৃত্ব মহলে এটা পরিষ্কার বুঝিয়েই দিয়েছেন প্রশান্ত কিশোর। তার সাফ কথা; “কোনও নেতার কথায় আর তদ্বির করে এবার আর বিধানসভায় প্রার্থী হওয়া যাবে না”। বিধানসভা আসন পেতে; এবার মাপকাঠি হতে পারে একমাত্র যোগ্যতাই। তৃনমূল সূত্রের খবর; যারা বর্তমানে বিধায়ক আছেন তাদের মধ্যে করা ফের ভোটে দাঁড়ালে জেতার মতো জায়গায় আছেন কতজন? সেটা খতিয়ে দেখেই সিধান্ত নেওয়া হবে; তিনি পুনরায় টিকিট পাবেন কিনা।

আরও পড়ুনঃ দীঘার সমুদ্রে ঢেউসাগর, পর্যটকদের জন্য দীঘাতে নতুন বিনোদন

সূত্রের খবর; বর্তমান বিধায়কদের সবার ওপরেই সমীক্ষা শুরু করেছেন প্রশান্ত।’দিদিকে বলো’ কর্মসূচিতে যারা ফোন করেছিলেন; তাদের নম্বর নিয়ে তৈরি হয়েছে ডাটা ব্যংক। সেই নম্বরে ফোন যেতে শুরু করেছে এবার।

তৃণমূলের অনেক বিধায়ক আর টিকিট পাবেন না/The News বাংলা

কয়েকটি প্রশ্নের উত্তর জানতে চাওয়া হচ্ছে। ১) আপনার এলাকার বিধায়ক মানুষটি কেমন? ২) বিধায়ক কি কি কাজ করেন এলাকায়? ৩) তার সাহায্য চাইলে কি তিনি সাহায্য করেন? ৪) এলাকায় কি তাকে দেখা যায়? ৫) তিনি কি সাধারণ মানুষের সঙ্গে মেলামেশা করেন? ৬) কারও বিপদে আপদে কি ছুটে আসেন বিধায়ক? ৭) ওনাকে কি আবার আপনি নিজের এলাকার বিধায়ক হিসাবে দেখতে চান? ৮) যদি না চান; তাহলে আপনি কাকে এলাকার বিধায়ক হিসাবে দেখতে চান? এই প্রশ্নগুলির উত্তর পাবার জন্য; প্রতিটি বিধানসভা কেন্দ্রে ফোন যেতে শুরু করেছে প্রশান্ত কিশোরের টিমের।

সূত্রের খবর, মানুষের কাছ থেকে তথ্য সংগৃহের পর; প্রথমে প্রশান্ত কিশোর নিজেই ঠিক করবেন; কোন কোন বিধায়কের ফের টিকিট পাবার যোগ্যতা আছে। যদি তিনি মনে করেন কোনও বিধায়কের হার অনিবার্য; তাহলে সেই বিধায়ককে পুনরায় টিকিট না দেবার পরামর্শ দেবেন। জানা গেছে, সমীক্ষার ফল থেকে; তিনি প্রতিটি বিধানসভা কেন্দ্রের জন্য তিনজন প্রার্থীর নাম চূড়ান্ত করবেন। সেই নামের তালিকা জমা পড়বে তৃনমূল নেত্রী মমতা ব্যানার্জির কাছে। সেই তিনজনের নামের তালিকা থেকে; যে কোন একটি নাম বেছে নেবেন মমতা।

আর এই খবর পেতেই; বেশ চিন্তায় পরে গেছেন তৃণমূলের অনেক বিধায়ক। তবে প্রকাশ্যে কেউই একথা স্বীকার করেননি। তৃণমূল সুত্রেও এই তথ্য সম্পূর্ণ অস্বীকার করা হয়েছে। তবে তৃণমূল বিধায়কদের ডাটা ব্যাঙ্ক তৈরির জন্য; সাধারণ মানুষের কাছে ফোন যাওয়ার পরেই এই তথ্য সামনে এসেছে। ঘটনা সত্যি হলে; এইভাবে প্রার্থী বাছাইয়ের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে রাজনৈতিক মহল।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন