রাষ্ট্রপতি হয়েই, তিন অপরাধীর মৃত্যুদণ্ড মকুবের আর্জি খারিজ করেছিলেন প্রণব মুখোপাধ্যায়

3752
রাষ্ট্রপতি হয়েই, তিন অপরাধীর মৃত্যুদণ্ড মকুবের আর্জি খারিজ করেছিলেন প্রণব মুখোপাধ্যায়
রাষ্ট্রপতি হয়েই, তিন অপরাধীর মৃত্যুদণ্ড মকুবের আর্জি খারিজ করেছিলেন প্রণব মুখোপাধ্যায়

রাষ্ট্রপতি হয়েই, তিন অপরাধীর মৃত্যুদণ্ড মকুবের আর্জি; খারিজ করেছিলেন প্রণব মুখোপাধ্যায়। কড়া সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্যও; ওনাকে আজীবন মনে রাখা হবে। ভারতের ইতিহাসে, উনি সবথেকে কড়া মনোভাবের রাষ্ট্রপতি; হিসেবে সুখ্যাত থাকবেন। কারণ উনি নিজের কার্যকালে; ৯৭ শতাংশ দয়ার আবেদন খারিজ করে দিয়েছিলেন। আফজল গুরু, আজমল কাসব আর ইয়াকুব মেমনের মতো অপরাধীদের; মামলার নিষ্পত্তি ঘটেছিল ওনারই কার্যকালে। উনি নিজের কার্যকালে, ৩৭ টি দয়ার আবেদন খারিজ করেছিলেন।

আরও পড়ুনঃ ভারতের কাছে ‘গো হারা’ হেরে কান্নাকাটি চিনের, সেনা প্রত্যাহারের আর্জি জানাল ড্রাগনের দেশ

শপথ নিয়েছেন সাত মাসও হয়নি। কিন্তু এই স্বল্প সময়েই, তিনজনের মৃত্যুদণ্ড মকুবের আর্জি খারিজের সিদ্ধান্ত নিয়ে; দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছিলেন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়। অতীতে রাষ্ট্রপতি পদে শপথ নিয়ে; মাত্র সাত দিনের মধ্যে এক অপরাধীর মৃত্যুদণ্ডের আর্জি; খারিজ করেছিলেন শঙ্করদয়াল শর্মা। কিন্তু তাঁকে ছাপিয়ে যান প্রণববাবু। রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচিত হওয়ার পর; ২০১২ সালের নভেম্বরে, প্রথমেই মুম্বাই হামলার জঙ্গি মহম্মদ আজমল আমির কাসবের মৃত্যুদণ্ড; মকুবের আর্জি খারিজ করেন তিনি। আর এরপর সংসদ হামলার অন্যতম ষড়যন্ত্রকারী; আফজল গুরুর ফাঁসির আর্জি খারিজ করে দেন তিনি।

আরও পড়ুনঃ ফের লাদাখে ঢুকে সংঘর্ষ করার পরিকল্পনা চিনের, রুখে দিল ভারতীয় সেনা

এরপর আরও একজনের মৃত্যুদণ্ড মকুবের আর্জি; খারিজ করে দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি। ঘটনাটি নিয়ে অবশ্য হইচই হয়নি। স্ত্রী ও মেয়েকে নৃশংস ভাবে খুন করার জন্য; সাইবানা নিঙ্গাপ্পা নাটিকার নামে; কর্নাটকের বেলগাঁওয়ের ওই ব্যক্তিকে ফাঁসির আদেশ দিয়েছিল সর্বোচ্চ আদালত। ১৯৯৩ এ মুম্বাই বোমা কাণ্ডের দোষী; ইয়াকুব মেমনের সর্বোচ্চ সাজা সুনিশ্চিত করেন প্রণববাবু।

আরও পড়ুনঃ কেন্দ্রের অনুমতি ছাড়া লকডাউন করা যাবে না, ফের লাগল মোদী মমতা লড়াই

যে ক্ষিপ্রতার সঙ্গে আজমল কাসব, ইয়াকুব মেমন ও আফজল গুরুর মৃত্যুদণ্ডের আর্জি; খারিজ করেছিলেন প্রণববাবু; তাতে পরিষ্কার যে দেশের শত্রুদের ক্ষমা করার পক্ষপাতী ছিলেন না মুর্শিদাবাদের এই বাঙালি। প্রাক্তন কংগ্রেস নেতার এই সিদ্ধান্তগুলিকে; প্রশংসা করতেন বিজেপির শীর্ষ নেতারাও। যশবন্ত সিনহা পর্যন্ত তাঁর প্রশংসা করে বলেছিলেন; “রাষ্ট্রপতি প্রমাণ করলেন; দেশে জঙ্গিবাদের ঠাঁই নেই”।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন