প্রাথমিক শিক্ষকদের অনশন, ২১ এর প্রস্তুতিতে ব্যস্ত মুখ্যমন্ত্রী

2011
প্রাথমিক শিক্ষকদের অনশন, ২১ এর প্রস্তুতিতে ব্যস্ত মুখ্যমন্ত্রী/The News বাংলা
প্রাথমিক শিক্ষকদের অনশন, ২১ এর প্রস্তুতিতে ব্যস্ত মুখ্যমন্ত্রী/The News বাংলা

সল্টলেকে প্রাথমিক শিক্ষকদের অনশন কর্মসূচি; ৯ম দিনে পড়ল। উচিৎ্‌ পে-স্কেলের দাবিতে; অনশনে বসেছেন প্রাথমিক শিক্ষক-শিক্ষিকারা। ইতিমধ্যে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন ২ জন। গরমের এই দাবদাহে; দীর্ঘ অনশনে ক্রমশ অসুস্থ হয়ে পড়ছে; অনশনরতদের বাকিরাও। কিন্তু সরকারের তরফ থেকে; কোন পাত্তাই পাওয়া যাচ্ছে না। সল্টলেকে বিকাশ ভবনের একদিকে; সেন্ট্রাল পার্কে চলছে ২১ শে জুলাইয়ের প্রস্তুতি। অপরদিকে সেই রাস্তায় পড়ে; ধুকছে রাজ্যের শিক্ষা কর্মীবৃন্দ।

মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রীর একবারও সময় হল না; তাদের দেখতে আসার। একবছর আগে মেডিক্যাল কলেজের অনশনে; ঠিক এমনই সময় মাননীয়া ২১ শে জুলাই ব্রিগেডের ব্যবস্থাপণায় ব্যস্ত ছিলেন! উপেক্ষা করেছিলেন মেডিক্যালের অনশনরতদের। আবারও সেই এক-ই কান্ড ঘটাচ্ছেন।

আরও পড়ুনঃ হাওড়া স্টেশন কারশেডে, দেশের প্রথম দোতলা ট্রেনের এখন কি অবস্থা দেখে নিন

অশনকারীদের বক্তব্য, “শুধু বেতন বৃদ্ধি নয়; আমরা নেমেছি আমাদের যোগ্যতা অনুযায়ী বেতনের জন্য। একজন প্রাথমিক শিক্ষকের যোগ্যতা অনুযায়ী; বেতন পাচ্ছি না আমরা। সেই যথাযথ বেতনের দাবি আমাদের”।

তারা আরও জানালেন, “প্রায় দেড় বছর ধরেই; আমাদের আন্দোলন চলছে। এর আগে শিক্ষা মন্ত্রীর সাথে কথাও হয়েছে। তারা মেনেছে যে আমাদের মাইনে কম; এবং পে স্কেল কিছুটা হলেও; স্বাভাবিক করার চেষ্টা করবে তারা। কিন্তু সময় এগিয়েছে শুধু; প্রতিশ্রুতি পূর্ণ হয়নি আজও”।

আরও পড়ুনঃ হাওড়া স্টেশনে আগুন, ঘটনাস্থলে দমকলের ইঞ্জিন, দেখুন ভিডিও

এখনও অবধি কর্তৃপক্ষের কোনো পাত্তা নেই। বার বার পুলিশের মাধ্যমে; তাদের বিভিন্ন বার্তা দেওয়া হচ্ছে। শিক্ষা দফতরের কমিশনারের সাথে; কথা বলতে বলা হচ্ছে। কিন্তু কর্তৃপক্ষের কোন উচ্চ পদস্থ আধিকারিক বা মন্ত্রীরা এসে এখনও পর্যন্ত তাদের সঙ্গে দেখা করেনি। এই মুহূর্তে অনশনকারীরা চাইছে সরাসরি মুখ্যমন্ত্রীর সাথে কথা বলতে।

তাদের কাছে পানীয় জল; এমনকি শৌচালয় পর্যন্ত নেই। বিধাননগর পুরসভার মেয়র পদত্যাগী সব্যসাচী দত্ত ইতিমধ্যে তাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন। তিনি কটাক্ষ করে মন্ত্রীদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, “অফিসের ঠান্ডা ঘরে বসে না থেকে; একবার এসে কথা বললেও তো হয়”।

হতাশ হয়ে শঙ্খ ঘোষ জানিয়েছেন; রাজ্যের শিক্ষকদের এই দুরাবস্থা একদম-ই অভিপ্রেয় নয়। প্রশ্ন তুলেছেন প্রশাসনের দিকেই। ২১ শে জুলাইয়ের আড়ম্বর; নাকি শিক্ষকদের প্রাণ; কোনটা আগে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে? সেটাই দেখবে রাজ্য।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন