বাঙালির প্রতিবাদ কি শুধুই দেশের ট্রেন্ডে গা ভাসানো

338
বাঙালির প্রতিবাদ কি শুধুই দেশের ট্রেন্ডে গা ভাসানো/The News বাংলা
বাঙালির প্রতিবাদ কি শুধুই দেশের ট্রেন্ডে গা ভাসানো/The News বাংলা

বাঙালির প্রতিবাদ কি শুধুই দেশের ট্রেন্ডের সঙ্গে গা ভাসানো? উঠছে প্রশ্ন। রাজ্যের দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার; কুমারগঞ্জ থানার অন্তর্গত সাফনগর এলাকার স্কুল ছাত্রী প্রমীলা বর্মনকে; ধর্ষণ করে জ্বালিয়ে মারার ঘটনার বেশ কয়েকদিন অতিক্রান্ত। ১৭ বছরের স্কুল ছাত্রী প্রমীলা বর্মনকে ধর্ষণ করে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনা শিরোনামে এসেছিল। ঠিক যেমন ভাবে ধর্ষণ করে জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছিল হায়েদ্রাবাদের পশু চিকিৎসক প্রিয়াঙ্কা রেড্ডিকে। সেই একই নৃশংসতায় মারা হয়েছে; বাংলার প্রমিলা বর্মণকে।

একই ধরনের ঘটনা; তবু অনেক তফাত দেখা গেল এই দুই ঘটনার মধ্যে। হায়েদ্রাবাদের পশু চিকিৎসক প্রিয়াঙ্কা রেড্ডির ঘটনায় জ্বলে উঠেছিল সারা দেশ। প্রতিবাদে মুখর হয়ে উঠেছিল সারা হায়েদ্রাবাদ সহ প্রতিটি রাজ্য। সোশ্যাল মিডিয়াতেও উঠেছিল প্রতিবাদের ঝড়।

আরও পড়ুন কথা মতোই কাজ, দেশজুড়ে কার্যকর সিএএ

কিন্তু আশ্চর্য ভাবে; পশ্চিমবঙ্গে ১৭ বছরের স্কুল ছাত্রীর নির্মম ভাবে ধর্ষণ ও ভয়াবহ মৃত্যর দিকে কারুর মাথা ব্যাথা নেই। সোশ্যাল মিডিয়ায় কিছু প্রতিবাদ ছাড়া সেভাবে কোন পরিচিত মুখ; বা কোন বুদ্ধিজীবী কোন মন্তব্য করেননি বাংলার মেয়ে প্রমিলা বর্মণের মৃত্যু নিয়ে।

০৫.০১.২০২০ অর্থাৎ রবিবার দুপুরে; প্রমিলা বেড়িয়েছিল বাড়ি থেকে; তারপর থেকে তার ফোন সুইচ অফ দেখাছিল; সেদিন অনেক খোঁজার পরও তাকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। পরেরদিন ভোরবেলা কৃষকরা একটা কালভার্টের ভিতরে দেখে; কিছু কুকুর শেয়াল ছিঁড়ে খুঁড়ে খাচ্ছে আধপোড়া নিথর প্রমীলার দেহ।

অপরাধীরা প্রমাণ লোপাট করতে প্রথমে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কেটে দিয়েছিলো গলার নলি। তারপর পেট্রোল ঢেলে মেয়েটাকে পুড়িয়ে; ঢুকিয়ে দিয়েছিলো একটা কালভার্টের ভিতরে। সেই বীভৎস দৃশ্য দেখে শিউরে উঠে স্থানীয় বাসিন্দারা।

পুলিশ পঙ্কজ বর্মন, মেহবুব মিঁয়া এবং গৌতম বর্মন নামের তিন অপরাধীকে গ্রেফতার করেছে। কিন্তু তাদের দ্রুত শাস্তির জন্য প্রতিবাদের ঝড় কেন নেই এই বাংলায়? তবে কি বাঙালির প্রতিবাদ দেশের ট্রেন্ডের সঙ্গে গা ভাসানো প্রতিবাদ?

অপরাধিদের গ্রেফতারের পরেও কিন্তু হায়েদ্রাবাদের মানুষ থেমে থাকেননি। অপরাধিদের দ্রুত শাস্তির জন্য বিরাট জনতার চাপ ছিল পুলিশের উপরে। শেষে ঘটনার ৯দিনের মাথায় পুলিশের এনকাউন্টারে মৃত্যু হয় অপরাধিদের।

অথচ। এই রাজ্যে এক স্কুল ছাত্রীর নির্মম ভাবে ধর্ষণ ও ভয়াবহ মৃত্যর পরে; কোনো বুদ্ধিজীবী; রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব; অথবা কোন অভিনেতা/নেত্রী প্রমীলার বাড়িতে আসেননি। কেউ সোশ্যাল মিডিয়ায় ঘটনার প্রতিবাদে একটা শব্দও খরচ করেননি। অর্থাৎ সারা দেশ প্রতিবাদ করলে বাঙালীরা সেই প্রতিবাদে সামিল হয়; তাদের নিজস্ব কোন প্রতিবাদের ভাষা কি হারিয়ে গেছে?

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন