“নোবেল পেয়ে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকেও কথা শুনতে হয়েছিল”, মমতার অ্যাকাডেমি বিতর্কে ব্রাত্য বাসু

203
"নোবেল পেয়ে রবীন্দ্রনাথকেও কথা শুনতে হয়েছিল", মমতার অ্যাকাডেমি বিতর্কে ব্রাত্য
Simple Custom Content Adder

“নোবেল পেয়ে রবীন্দ্রনাথকেও কথা শুনতে হয়েছিল”; মমতার অ্যাকাডেমি বিতর্কে এবার আসরে নামলেন ব্রাত্য বাসু। রবীন্দ্র জন্মজয়ন্তীতে বাংলা অ্যাকাডেমির বিশেষ পুরস্কার পেয়েছেন; মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তারপরেই এই নিয়ে; জোর বিতর্ক শুরু হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা এই পুরস্কারের ‘যোগ্য’ নন; বলেই দাবি কারও কারও। বাংলা অ্যাকাডেমি পুরস্কার বিতর্কে; এবার মুখ খুললেন রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু। কী কারণে পুরস্কার পেলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী; তা ব্যাখ্যা করলেন তিনি। ‘নোবেল পেয়ে রবীন্দ্রনাথকেও কথা শুনতে হয়েছিল’; মমতার অ্যাকাডেমি সম্মান বিতর্কে এবার এমনই মন্তব্য করলেন ব্রাত্য বসু।

মুখ্যমন্ত্রীকে সমালোচনার জবাবে ব্রাত্য বাসু বলেন; “বাজপেয়ীর কবিতা সম্মানিত হলে বিতর্ক হয় না তো; মমতাকে নিয়ে এত প্রশ্ন কীসের? মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সমাজে অনেক অবদান রয়েছে। রাজ্যের শ্রেষ্ঠ সাহিত্যিকদের নিয়ে তৈরি জুরি বোর্ডই; মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে পুরস্কৃত করেছেন। রাজনীতিবিদদেরও সাহিত্য চেতনা থাকতেই পারে। কবিতার মান নিয়ে কথা বলতেই পারেন। কবিতার মান আপেক্ষিক। যাদের ইচ্ছা বিতর্ক করার তাঁরা করবেন। আপনার কী ভাল লাগল; তা আমার ভাল নাও লাগতেই পারে”।

যেকোনও ভাল কাজে বিতর্ক হওয়াই স্বাভাবিক; বলেই মত রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রীর। তাঁর কথায়, “পৃথিবীর সব পুরস্কারেই বিতর্ক রয়েছে; কোনও পুরস্কারই বিতর্কের উর্ধে নয়। প্রশ্ন ছিল বব ডিলানের নোবেল নিয়েও; পদত্যাগের ঘটনা নোবেলেও রয়েছে; নোবেল পাওয়ার পর রবীন্দ্রনাথ-কেও কথা শুনতে হয়েছিল”।

মুখ্যমন্ত্রীর অ্যাকাডেমি পুরস্কারের প্রতিবাদে; সম্মান ফেরান অনেকেই। ২০১৯ সালে পাওয়া অন্নদাশংকর স্মারক ফেরান; লেখিকা এবং গবেষক রত্না রশিদ বন্দ্যোপাধ্যায়। ২০০৯ সালে বাংলা অ্যাকাডেমি পুরস্কার পেয়েছেন তিনি; এবার মমতার পুরষ্কার পাওয়ার ঘটনায়, সাহিত্য অ্যাকাডেমির বাংলা উপদেষ্টা পরিষদ থেকে ইস্তফা দেন অনাদিরঞ্জন বিশ্বাসও।

গত সোমবার রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্মজয়ন্তী-তে, রাজ্য সরকারের ‘কবি প্রণাম’ অনুষ্ঠানে; এই বছরই শুরু করা ত্রিবার্ষিক নতুন বিশেষ অ্যাকাডেমি পুরস্কার দেওয়া হয় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু জানান, “এই বিশেষ পুরস্কার তিন বছর অন্তর দেওয়া হবে তাঁদের; যাঁরা সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে কাজ করার পরেও নিরলসভাবে সাহিত্য সাধনা করে চলেছেন।

প্রথম বছর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ‘কবিতা বিতান’ কাব্যগ্রন্থকে স্মরণে রেখে; এই পুরস্কার দেওয়া হয়েছে তাঁকে। ওইদিন মুখ্যমন্ত্রীর হয়ে পুরস্কার গ্রহণ করেন শিক্ষামন্ত্রী নিজেই। তারপরেই রাজ্যজুড়ে শুরু হয় জোর বিতর্ক।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন