রবীন্দ্রনাথকে নোবেল দিয়ে অপমান করা হয়েছে, ঘোষণা তৃণমূল নেতার

55
রবীন্দ্রনাথকে নোবেল দিয়ে অপমান করা হয়েছে, ঘোষণা তৃণমূল নেতার
রবীন্দ্রনাথকে নোবেল দিয়ে অপমান করা হয়েছে, ঘোষণা তৃণমূল নেতার
Simple Custom Content Adder

“রবীন্দ্রনাথকে নোবেল দিয়ে অপমান করা হয়েছে”; ২৫শে বৈশাখ বড় ঘোষণা তৃণমূল নেতার। “বাংলার ছেলেরাই নোবেল চুরি করেছে”; পরিস্কার জানিয়ে দিলেন পূর্ব বর্ধমানের ভাতারের তৃণমূল বিধায়ক মানগোবিন্দ অধিকারী। সেই সঙ্গে উনি এও জানিয়ে দেন, “রবীন্দ্রনাথকে নোবেল দিয়ে অপমান করা হয়েছে”।

সোমবার সকালে পূর্ব বর্ধমানের ভাতারে; তৃণমূলের ব্লক কার্যালয়ে রবীন্দ্রজয়ন্তীর অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়। কবির ছবিতে মাল্যদান, শ্রদ্ধাজ্ঞাপন, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের পাশাপাশি; ছিল বক্তৃতা পর্ব। অনুষ্ঠানে যোগ দেন; ভাতারের বিধায়ক মানগোবিন্দ অধিকারী।

রবীন্দ্র-জয়ন্তীতে মঞ্চে বক্তব্য রাখতে গিয়ে, তৃণমূল বিধায়ক মানগোবিন্দ অধিকারী বলেন; “রবীন্দ্রনাথকে নোবেল দিয়ে অপমান করা হয়েছিল; তাই বাংলার ছেলেরা নোবেল চুরি করেছে। আর সিবিআইও তার কিনারা করতে পারছে না”। এই নিয়ে শুরু হয় জোর বিতর্ক; বিতর্ক শুরু হতেই অবশ্য আত্মপক্ষ সমর্থনে সাফাইও দেন তিনি। তাঁর দাবি, ওই মন্তব্য নিছক মজা করেই নাকি বলেছিলেন।

২০০৪ সালের ২৫ মার্চ সকালে জানা যায়; বিশ্বভারতীর রবীন্দ্রভবনের সংগ্রহশালা থেকে নোবেল পদক চুরি হয়ে গিয়েছে। একইসঙ্গে আরও ৫০টি মূল্যবান জিনিসও চুরি হয়; ছদিন পরেই তদন্তভার নেয় সিবিআই। প্রথম পর্যায়ের তদন্ত চলে ২০০৪ সাল থেকে ২০০৭ সালের আগস্ট মাস পর্যন্ত। তিন বছর ধরে তদন্তের পর; আর কোনও সূত্র না মেলায় একবছর তদন্তের কোনও কাজই এগোয়নি।

ফের নতুন সূত্র পাওয়া গিয়েছে বলে দাবি করে; ২০০৮ সালের সেপ্টেম্বর মাসে আদালতে ফের তদন্ত শুরু করার আবেদন করে সিবিআই। কিন্তু ২০০৯ সালের আগস্টে, সিবিআই আদালতকে জানায়; তদন্ত এগোচ্ছে না। ফলে তা বন্ধ করার অনুমতি দেওয়া হোক। ২০১০-এর ৫ আগস্ট আদালত অনুমতি দেয়। তদন্ত আর এগোয়নি; উদ্ধারও হয়নি নোবেল।

সিবিআই তরফে, চুরি যাওয়া নোবেল পদক সম্পর্কে তথ্য দিতে পারলে; ১০ লক্ষ টাকার পুরস্কারও ঘোষণা করা হয়েছিল। সাহায্য চাওয়া হয়েছিল ইন্টারপোল-এর; তবে তাতেও কাজ হয়নি। উদ্ধার হয়নি রবীন্দ্রনাথের ‘চুরি’ যাওয়া নোবেল।

কবিগুরুর জন্মদিনে তাঁর নোবেল নিয়ে তৃণমূল বিধায়কের মন্তব্য; নতুন বিতর্কের জন্ম দিল। ‘বিধায়ক পরোক্ষে নোবেল চুরিকে সমর্থন জানাচ্ছেন’; অভিযোগ বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলির। “রবি ঠাকুরের চুরি যাওয়া নোবেল সিবিআই খুঁজে বের করতে পারেনি; তবে বাংলার পুলিশ সেটা খুঁজে বের করবে”, বলেও দাবি জানিয়েছেন বিধায়ক।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন