অবসরের আগে রঞ্জন গগৈ রাফাল বিতর্ক থেকে মুক্তি দিলেন মোদী সরকারকে

173
অবসরের আগে রঞ্জন গগৈ রাফাল বিতর্ক থেকে মুক্তি দিলেন মোদী সরকারকে/The News বাংলা
অবসরের আগে রঞ্জন গগৈ রাফাল বিতর্ক থেকে মুক্তি দিলেন মোদী সরকারকে/The News বাংলা

অবসরের আগে মোদী অমিত শাহ্‌কে রাফাল মামলা থেকে মুক্তি দিলেন প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ। অবশেষে স্বস্তির নিঃশ্বাস কেন্দ্রের। বৃহস্পতিবার রাফাল মামলার রায় পুনর্বিবেচনার আবেদন খারিজ করে দিল দেশের সর্বোচ্চ আদালত। এই আবেদনের কোনও গ্রহণযোগ্যতা নেই বলেই রায় পুনর্বিবেচনা করার বিষয়টিতে তাঁরা গুরুত্ব দিচ্ছেন না বলেও উল্লেখ করেন।

২০১৬ সালে ফরাসি বিমানসংস্থা থেকে ৩৬টি রাফাল জেট যুদ্ধবিমান ভারতে আমদানি করে মোদী সরকার। প্রায় ৫৯ হাজার কোটি টাকার এই আমদানি নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ তোলেন বিরোধীরা। বিষয়টির স্বচ্ছতা যাচাই করতে সুপ্রিমকোর্টের তত্ত্বাবধানে সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়েছিল কংগ্রেস-সহ বহু বিরোধী দল।

আরও পড়ুনঃ চৌকিদার চোর বলে সুপ্রিম কোর্টের কাছে ক্ষমার চাওয়ার হ্যাটট্রিক করলেন রাহুল গান্ধী

বৃহস্পতিবার প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ ও তিন সদস্যের ডিভিশন বেঞ্চ; রাফালে মামলার রায় পুনর্বিবেচনার মামলা খারিজ করে দিল। পাশাপাশি এই মামলার রায়কে বিকৃতভাবে জনসাধারনের কাছে প্রচার করার জন্য; প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীকে সর্তক করে সুপ্রিম কোর্ট। সুপ্রিম কোর্ট জানায়; ‘এটা নতুন তদন্ত নয়’।

আরও পড়ুনঃ শিশু দিবসে ‘পাপ্পু’কে বকাঝকা করল সুপ্রিম কোর্ট, সরি বলে ছাড় পেলেন আদালতে

এরপরেই প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং টুইটে ঝড় তোলেন। তিনি লেখেন; ‘আমাদের সরকার স্বচ্ছতার সঙ্গে যে কোনও সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে’। তিনি আরও বলেন; দেশের প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখে এই চুক্তি করা হয়েছিল। দেশের সুরক্ষা ও জাতীয় নিরাপত্তা নিয়ে; কখনই রাজনীতি করা উচিত নয় বলেও তিনি মন্তব্য করেন। রাজনাথ সিং কংগ্রেসকে কটাক্ষ করে বলেন; কংগ্রেসের সরকার বিরোধী মিথ্যা প্রচার যথেষ্ট উদ্বেগজনক। দেশকে ভুল পথে চালিত করার জন্য কংগ্রেসের ক্ষমা চাওয়া উচিত বলেও তিনি মনে করেন।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের রাফাল মামলায় কার্যত ‘ক্লিন চিট’ দেওয়া হয় মোদী সরকারকে। কিন্তু সেই রায় পুর্নর্বিবেচনার আর্জি জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে জমা পড়ে রিভিউ পিটিশন। আবেদনকারীদের মধ্যে ছিলেন যশোবন্ত সিনহা ও অরুণ শৌরি এবং আইনজীবী প্রশান্ত ভূষণও। দাবি উঠে; রাফেল নিয়ে বেশকিছু তথ্য আদালতের থেকে গোপন করা হয়েছে। সরকারের পালটা যুক্তি ছিল; ওই তথ্যগুলিকে আদালত মান্যতা দিতে পারে না। কারণ সেগুলি নিয়ম ভেঙে প্রকাশ্যে আনা হয়েছিল।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন