১৮ ঘণ্টা বরফের নীচে চাপা থেকেও বেঁচে ফিরল শামীমা

597
১৮ ঘণ্টা বরফের নীচে চাপা থেকেও বেঁচে ফিরল শামীমা/The News বাংলা
১৮ ঘণ্টা বরফের নীচে চাপা থেকেও বেঁচে ফিরল শামীমা/The News বাংলা

১৮ ঘণ্টা বরফের নীচে চাপা থেকেও বেঁচে ফিরল শামীমা। কথায় বলে রাখে হরি মারে কে। ঠিক এমনটাই হয়েছে; পাক অধিকৃত কাশ্মীরের বাসিন্দা শামিমার সঙ্গে। ওপর ওয়ালাই যখন তাকে জীবিত রাখতে চেয়েছেন; তখন শত ঝড় ঝঞ্জাই আসুক না কেন; তার জীবন বাঁচবেই। তাই তো তুষারধসে ১৮ ঘণ্টা আটকে থাকার পরেও; যে জীবিত। ১২ বছরের শামিমা জীবন্ত অবস্থায় উদ্ধার হয়েছে; খুশি তার পরিবার। পাক অধিকৃত কাশ্মীরের নীলম উপত্যকায়; মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৭৪। প্রশাসন সূত্রে জানানো হয়েছে; এখনও পর্যন্ত তুষার ধসে; একশ জন মারা গিয়েছে।

মা শাহনাজ বিবি জানিয়েছে; বাড়ির ওপর বিশাল তুষারধস আছড়ে পড়েছিল। সেই ঝড় থেকে বাঁচতে; আর্তনাদ করেছিল শামিমা। এরপরেই; তুষারধসের নীচে চাপা পড়ে যায় সে।। উদ্ধারকাজ করতে গিয়েই; শামিমাকে উদ্ধার করা হয়। তুষারধসে আরও যারা আটকে রয়েছেন তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বাঁচার কোনও আসা ছিল না।

আরও পড়ুন সেনা দিবসে মানবিকতার নজির গড়লেন ভারতীয় সেনা

শামিমা ধরেই নিয়েছিলেন; সে মারা গিয়েছেন। মেয়েকে ফিরে পাওয়াটা সত্যই ভগবানের চমৎকার জানান; শামিমার মা শাহনাজ। শামিমার পাশাপাশি; তারাও বরফের নীচে চাপা পড়ে যান। আগেই এক ছেলে ও এক মেয়েকে হারিয়েছেন শাহনাজ। একটি তিনতলা বাড়িতে পরিবারকে নিয়ে; আশ্রয় নিয়েছিলেন শাহনাজ। হঠাৎই তুষারঝড়ে গোটা বাড়ি চাপা পড়ে যায়। তীর্ব ঠান্ডায় জমে গিয়েছে; কাশ্মীর। ডাল লেকের জল; এখন জমাট বাঁধা বরফ। সারাক্ষন তুষার বৃষ্টিতে উপত্যকায়; পা রাখা মুশকিল হয়ে পড়েছে।

ভূস্বর্গ এখন জমে কুলফি। জনসাধারণের বাড়ির বাইরে; বেরোনোর উপায় নেই। স্কুল, কলেজ, হাসপাতাল গুরুত্বপূর্ণ স্থানে যেতে হলেও; রাস্তায় বেরোনোর আগে ভাবনা চিন্তা করতে হচ্ছে। এমন সময়েই; এক অন্তঃসত্ত্বা মহিলার প্রসব যন্ত্রনা ওঠে। আগামি দিনে তুষার ঝসের আশঙ্কা করা হচ্ছে।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন