বিয়ে না করার শপথ নিয়ে তবেই মেয়েরা স্কুলে, কন্যাশ্রী দিয়েও আটকানো যাচ্ছে না নাবালিকা বিয়ে

9733
Simple Custom Content Adder

ছাত্রীদের অল্প বয়সে বিয়ে রুখতে; অভিনব উদ্যোগ স্কুল কর্তৃপক্ষের। বিয়ে না করার; শপথ বাক্য পাঠ করানো হল ছাত্রীদের। কন্যাশ্রী পাওয়ার প্রাথমিক শর্ত ছিল; অবিবাহিত থাকা। সেই কন্যাশ্রী দিয়েও; আটকানো যাচ্ছে না নাবালিকার বিয়ে।

শুক্রবার শিলিগুড়ির হায়দরপাড়া বুদ্ধভারতী স্কুলে; একাদশ শ্রেণীর ছাত্রীদের শপথ বাক্য পাঠ করানো হয় স্কুলের তরফে। নাবালিকাদের বিবাহ বন্ধ করতে; এবং এই বিষয়ে জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে; এই উদ্যোগ নেয় স্কুল কর্তৃপক্ষ।

আরও পড়ুনঃ দীর্ঘ অপেক্ষার পর আজই ঢুকছে বর্ষা, নাজেহাল গরম থেকে স্বস্তি

বহুক্ষেত্রে দেখা গেছে; পরিবারের আর্থিক চাহিদার কারণে ও পণের দায় থেকে মুক্ত হতে; পরিবারের লোকেরা সঠিক বয়সের আগেই; মেয়েদের বিয়ে দিয়ে দেন। এই ভাবনা গ্রামের বিভিন্ন স্কুল গুলিতে; বেশি পরিমানে দেখা যায়। শুধু তাই নয়! শহর বা মফস্বল এলাকাতেও; অনেক সময় স্কুলের নাবালিকারা; পরিবারের চাপে বিয়ে করে নেয়। যেকারণেই এদিন এই উদ্যোগ গ্রহণ; বলেই জানিয়েছে স্কুল কর্তৃপক্ষ।

স্কুলের পরিবেশ ভাল রাখতে ও পরিবেশ বাঁচানোর জন্য; ছাত্রীদের পাশাপাশি ছাত্ররাও নাবালিকা বিয়ে আটকাতে শপথ বাক্য পাঠ করে। এর ফলে স্কুলের পড়ুয়াসহ এলাকাবাসীদের মধ্যেও; সচেতনতাবোধ ছড়িয়ে পড়ে। মেয়েরাও উচ্চশিক্ষার ভরসা পায়।

আরও পড়ুনঃ জম্মু কাশ্মীরে রাষ্ট্রপতি শাসনের মেয়াদ আরও ছমাস বাড়ানোর প্রস্তাব

স্কুলের প্রধান শিক্ষক স্বপনেন্দু নন্দী বলেন, “অনেক ছাত্রী অল্প বয়সে বিয়ে করে নেয়৷ তাই এদিন ছাত্রীরা শপথ নেয় স্নাতক হওয়ার আগে বিয়ে করবে না। আবার কোথাও নাবালিকা বিবাহ দেখলেও সেখানে প্রতিবাদ করবে”। এদিন ছাত্রী শিবানী সাহা বলেন, “স্কুলের এই উদ্যোগে খুব খুশি। কোথাও নাবালিকা বিবাহ দেখলেও প্রতিবাদ করবো”।

আরও পড়ুনঃ জাপানে বিশ্বের সব তাবড় নেতাদের চুপ করিয়ে, সন্ত্রাসবাদ নিয়ে কি বললেন নরেন্দ্র মোদী

প্রগতিশীল দেশ গড়তে নারিশক্তির এগিয়ে যাওয়া বিশেষ প্রয়োজন। সেই প্রয়োজনের বার্তাই ছড়িয়ে পড়ছে এই শপথ বাক্য পাঠের মধ্যে দিয়ে। শিক্ষার উন্নতির সঙ্গে সঙ্গে দেশেরও উন্নতি। তাই শিক্ষা ব্যবস্থা এগিয়ে নিয়ে যেতে ছাত্র ছাত্রী উভয়ের সমান ভূমিকা বোঝানো হল। কর্তৃপক্ষের উদ্যোগে খুশি গোটা স্কুল।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন