সিবিআই হেফাজতে স্কুল সার্ভিস কমিশনের সার্ভার রুম, ভয়ে কাঁপছে বড় ঘুষখোররা

46
সিবিআই হেফাজতে স্কুল সার্ভিস কমিশনের সার্ভার রুম, ভয়ে কাঁপছে বড় ঘুষখোররা
সিবিআই হেফাজতে স্কুল সার্ভিস কমিশনের সার্ভার রুম, ভয়ে কাঁপছে বড় ঘুষখোররা
Simple Custom Content Adder

সিবিআই হেফাজতে স্কুল সার্ভিস কমিশনের সার্ভার রুম; ভয়ে কাঁপছে বড় ঘুষখোররা। ২০১৬ সালের নবম-দশম শ্রেণীর স্কুল শিক্ষক নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ উঠতেই; স্কুল সার্ভিস কমিশনের কাছে রিপোর্ট চেয়ে পাঠায় কলকাতা হাইকোর্ট। কিন্তু সেই রিপোর্ট জমা দেওয়া হয়নি; এসএসসি-র তরফ থেকে। কমিশনের আইনজীবী আদালতকে জানান, “সিবিআই হেফাজতে আছে এসএসসি-র সার্ভার রুম; তাই অনুমতি না পেলে তথ্যপ্রকাশ করা সম্ভব নয়।

এরপরেই স্কুল সার্ভিস কমিশনের চেয়ারম্যান; সিদ্ধার্থ মজুমদারকে সশরীরে হাজিরা দিতে বলে হাইকোর্ট। কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি রাজশেখর মান্থা জানিয়েছেন, আগামীকাল সকাল সাড়ে ১০টার মধ্যে; সশরীরে হাজিরা দিতে হবে স্কুল সার্ভিস কমিশনের চেয়ারম্যানকে। সিবিআইকে এবিষয়ে চিঠি চেওয়া হয়েছে কি না; তা জানতে চাওয়া হয়।

আরও পড়ুন; অভিমানের প্রাচীর ও রাজনৈতিক সন্ন্যাস ভেঙে ফের মমতার দলে শোভন সঙ্গে বৈশাখী

২০১৬ সালে নবম-দশম শ্রেণীর ভুগোল শিক্ষক নিয়োগে; বড় অনিয়মের অভিযোগ ওঠে। অনিয়মের অভিযোগে মামলা করেছিলেন পাঁচ চাকরিপ্রার্থী। তাঁদের দাবি, মেধাতালিকার ওয়েটিং লিস্টে তাঁদের নাম ছিল। আর ওই ওয়েটিং লিস্টের তাঁদের নীচে যাঁদের নাম ছিল; তাঁদের কয়েকজনকে নিয়োগ করা হয়েছে। অথচ তাঁরা চাকরি পাননি। হাইকোর্টে সেই সংক্রান্ত শুনানি ছিল বুধবার। সকল চাকরিপ্রার্থীর প্রাপ্ত নম্বর প্রকাশের দাবি জানানো হয়েছিল; ৭ জুনের মধ্যে সেই রিপোর্ট পেশ করার কথা ছিল। কিন্তু তা করেনি এসএসসি।

আরও পড়ুন; “সামাজিক শিক্ষাগুরু বলেই মমতা বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য পদে”, ঘোষণা চন্দ্রিমা ভট্টাচার্যর

মামলাকারীদের আইনজীবী সুভাষ জানা বলেন, “নিয়োগে অনিয়ম হয়েছে বলে আদালতে স্বীকার করে নিয়েছে; স্কুল সার্ভিস কমিশন। তারপরই তাদের কাছ থেকে নথি চায় হাইকোর্ট; ১৬ জুন মামলার পরবর্তী শুনানির দিন ছিল। সেদিনও নথি জমা করেনি এসএসসি। এরপর আজ স্কুল সার্ভিস কমিশনের আইনজীবীর তরফে হাইকোর্টে যুক্তি দেওয়া হয়; অন্য একটি মামলার পরিপ্রেক্ষিতে এসএসসি-র সার্ভার রুম এখন সিবিআই হেফাজতে রয়েছে। সিবিআই ওই মামলার তদন্ত করছে। তাই, সার্ভার রুম থেকে; ডেটা আনা যাচ্ছে না।

সূত্রের খবর, বেআইনি নিয়োগ সংক্রান্ত একাধিক তথ্য; এসএসসির ওই সার্ভার রুমে রয়েছে। যা হাতে পেলেই মাকড়সার জালের মত বিছিয়ে থাকা; একাধিক ঘুষখোরের নাম উঠে আসতে পারে। তাই কমিশনের সভাপতিকে তলব করতেই; প্রবল চাপে বড় ঘুষখোররা।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন