শবনমের শরীরী প্রেম, খু’ন, ফাঁ’সি ও ভারতের পুরুষতান্ত্রিক সমাজের গেল গেল রব

749
শবনমের শরীরী প্রেম, খু'ন, ফাঁ'সি ও ভারতের পুরুষতান্ত্রিক সমাজের গেল গেল রব
শবনমের শরীরী প্রেম, খু'ন, ফাঁ'সি ও ভারতের পুরুষতান্ত্রিক সমাজের গেল গেল রব

মানব গুহ, কলকাতাঃ শবনমের শরীরী প্রেম, খু’ন, ফাঁ’সি; ও ভারতের পুরুষতান্ত্রিক সমাজের গেল গেল রব। ভারতের প্রথম মহিলা অপরাধীর, ফাঁ’সি নিয়ে; এটাই এখন গোটা দেশের সারমর্ম। স্বাধীনতার ৭৫তম বর্ষে পৌঁছে; প্রথমবার কোন মহিলার জন্য তৈরি হচ্ছে ফাঁ’সিকাঠ। ২০০৮ সালে ১৪-১৫ এপ্রিল রাতে, প্রেমিকের সঙ্গে মিলে; কুড়ুল নিয়ে নিজের হাতে এক এক করে গোটা পরিবারকে; কু’পিয়ে খু’ন করেছিল শবনম। উত্তরপ্রদেশের আমরোহা জেলার হাসানপুর এলাকার, বাওয়ানখেদি গ্রামে বসবাসকারি; শিক্ষক শওকত আলির একমাত্র মেয়ে শবনমের এমন নৃ’শংস কীর্তি; বিশ্বাস করতে পারেনি তাঁর আপনজনেরাই। সেই শবনমের ফাঁ’সি; আর তাতেই উঠেছে গেল গেল রব!

যৌবনের উদ্দাম প্রেমের তাড়নায়; নিজের পরিবারকে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে; কুড়ুলের এক এক কো’পে শেষ করে দিয়েছিল শবনম। প্রেমিক সেলিমের সঙ্গে মিলে। ষষ্ঠ শ্রেণি পর্যন্ত পড়া সেলিমের সঙ্গে; ডবল এমএ পাশ মেয়ের বিয়ে দিতে চায়নি শবনমের পরিবার। তাই, সেলিমের সঙ্গে পরামর্শ করেই; পরিবারের সদস্যদের শবনম খু’ন করেন নৃ’শংস-ভাবে।

মা, বাবা, দুই দাদা, বৌদি, এক আত্মীয়, এমনকি ১০ মাসের ছোট ভাইপো-কেও; ঘুমের ওষুধ মেশানো দুধ খাইয়ে প্রথমে অজ্ঞান করে দেয় শবনম। তারপর সেলিমের সঙ্গে মিলে; গ’লার ন’লি কেটে একে একে সকলকে খু’ন করে শবনম। নৃ’শংসতা দেখে শিউরে উঠেছিল; বহু ঘটনার স্বাক্ষি পুলিশ কর্মীরাও।

আরও পড়ুনঃ রাজনৈতিক হিং’সা আটকাতে, ভোটের দিন ঘোষণার আগেই রাজ্যে কেন্দ্রীয় বাহিনী

উদ্দাম প্রেমের খাতিরে, কতটা নৃ’শংস হতে পারে মানুষ; তারই একটা নমুনা দেখিয়েছিল পেশায় শিক্ষিকা উত্তরপ্রদেশের শবনম। শিক্ষক বাবার শিক্ষিকা মেয়ে; কি করে ঘটালেন এমন কাণ্ড! কি করে, তার জীবনের গল্প এসে পৌঁছাল; ফাঁ’সিকাঠের দোরগোড়ায়? জেলা ও দায়রা আদালত; মৃ’ত্যুদণ্ড দেয় প্রেমিক যুগলকে। রায়কে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে গেলেও; আর্জি খারিজ হয়ে যায়। শবনমের প্রা’ণভিক্ষার আবেদন; খারিজ করেন রাষ্ট্রপতিও। ফলে ফাঁ’সির সাজা বহাল থাকায়; মথুরা জেলে চলছে শবনমের প্রাণদণ্ডের প্রস্তুতি।

মহিলার কেন ফাঁসি হবে? এই নিয়ে প্রশ্ন তুলে; ঝড় তুলেছেন কিছু মানুষ; ও মানবতাবাদী সংগঠন। তাঁরা যোগী সরকারের; সমালোচনা করেছেন। তবে, ভারত সহ এই রাজ্যের পুরুষ মহিলা নির্বিশেষে; সোশ্যাল মিডিয়ায় এই দণ্ডের পক্ষেই নিজেদের রায় দিয়েছেন।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন