লজ্জার বাংলা, শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতিতে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের সভাপতিকেই সরানোর নির্দেশ

65
লজ্জার বাংলা, শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতিতে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের সভাপতিকেই সরানোর নির্দেশ
লজ্জার বাংলা, শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতিতে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের সভাপতিকেই সরানোর নির্দেশ
Simple Custom Content Adder

লজ্জার বাংলা, শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতিতে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের সভাপতি-কেই সরানোর নির্দেশ দিল কলকাতা হাইকোর্ট। প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের সভাপতি মানিক ভট্টাচার্যকে অপসারণের নির্দেশ দেওয়ার পাশাপাশি; নতুন সভাপতি নিযুক্ত না হওয়া পর্যন্ত পর্ষদ সভাপতির দায়িত্বে থাকবেন মধ্যশিক্ষা পর্ষদ সচিব রত্না চক্রবর্তী বাগচী। প্রাইমারি টেট নিয়োগে দুর্নীতি নিয়ে বিগত কয়েকদিন ধরেই; নানান বিতর্ক মাথাচাড়া দিয়েছে। এবার এর জেরেই প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের সভাপতি মানিক ভট্টাচার্যকে; অপসারিত করার নির্দেশ দিল কলকাতা হাইকোর্ট। বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় নির্দেশ দিয়েছেন যে আগামীকাল মঙ্গলবার; দুপুর ২টোর মধ্যে তৃণমূল বিধায়ক মানিক ভট্টাচার্যকে সশরীরে আদালতে হাজিরা দিতে হবে।

২০১৪ সালের প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ সংক্রান্ত; কিছু তথ্য চেয়েছিল আদালত। কিন্তু অভিযোগ, পর্ষদের তরফে সেই নথি পেশ করা হয়নি; উল্টে আদালতকে ভুল পথে চালনা করা হয়েছে বলেই অভিযোগ। আর এর সম্পূর্ণ দায় মানিক ভট্টাচার্যের; এমনটাই দাবী হাইকোর্টের। বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় এদিন বলেন, “আজকে ২৭৮৭ জন আবেদনকারীদের মধ্যে ১ জনেরও, নম্বর পুণর্মূল্যায়নের জন্য দাখিল করা আবেদনপত্র; আদালতে পেশ করা হয়নি। পর্ষদের এই আচরণ গ্রহনযোগ্য নয়”।

আরও পড়ুনঃ “লাখখানেকের মধ্যে ৫০-১০০টা ভুল হতেই পারে”, শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতি নিয়ে সাফাই মুখ্যমন্ত্রীর

২০১৪’র প্রাথমিক টেট মামলায়; গত সোমবার সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দেয় কলকাতা হাইকোর্ট। বিচারপতি অভিজিত্‍ গঙ্গোপাধ্যায় নির্দেশ মতো সিবিআইয়ের তদন্তকারীদের মুখোমুখি হন; প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের সভাপতি মানিক ভট্টাচার্য ও সচিব রত্না চক্রবর্তী বাগচী। সেই মতো নির্ধারিত সময়ের আগেই; সিবিআইয়ের নিজাম প্যালেসের দফতরে যান দুজনেই।

আরও পড়ুনঃ গভীর চক্রান্তের জাল ছিঁড়ে বেরিয়ে আসা পশ্চিমবঙ্গের আজ জন্মদিন

সিবিআই সূত্রে খবর, তদন্তকারীরা জানতে চান; কার নির্দেশে ২০১৪’র টেটে দ্বিতীয় নিয়োগ তালিকা প্রকাশ করা হয়েছিল? শুধু ২৬৯ জনকেই কেন ১ নম্বর করে বাড়ানো হল? নম্বর বাড়ানোর সিদ্ধান্ত কে নিয়েছিল? সরকারি ফাইলে তার কোনও তথ্য আছে কিনা। এই জিজ্ঞাসাবাদের এক-সপ্তাহের মধ্যেই, প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতির অভিযোগে; প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের সভাপতি ও তৃণমূল বিধায়ক মানিক ভট্টাচার্যকে অপসারণের নির্দেশ দিল হাইকোর্ট। আদালতের কাছে যে নথি পেশ করা হয়েছে; তা নিয়েও সন্দেহ আছে। পর্ষদের পেশ করা নথি, ফরেন্সিক পরীক্ষার জন্য দিল্লিতে পাঠাতে বলল হাইকোর্ট।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন