বিধানসভার সব দায়িত্ব থেকে পদত্যাগ শোভনের, যেকোনদিন দিদির কাননে মোদীর পদ্ম

266
বিধানসভার সব দায়িত্ব থেকে পদত্যাগ শোভনের, যেকোনদিন দিদিকে ছেড়ে মোদীর ঘরে/The News বাংলা
বিধানসভার সব দায়িত্ব থেকে পদত্যাগ শোভনের, যেকোনদিন দিদিকে ছেড়ে মোদীর ঘরে/The News বাংলা

বিধানসভার স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান পদ থেকে; ইস্তফা দিলেন শোভন চ্যাটার্জী। আগেই রাজ্য সরকার ও তৃণমূলের সব দায়িত্ব থেকে পদত্যাগ করেছিলেন শোভন। এবার ছেড়ে দিলেন স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান পদ। রাজনৈতিক মহলে জোর জল্পনা; যেকোনদিন দিদিকে ছেড়ে মোদীর দলে যাবেন শোভন চ্যাটার্জী। বিধানসভায় ঠিকঠাক না যাওয়ায়; শোভনকে ফোন করেন বিধানসভার স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়। তারপরেই মঙ্গলবার সব দায়িত্ব থেকে; অব্যহিত চেয়ে নিজের ইস্তফা বিধানসভার অধ্যক্ষকে পাথিয়ে দিলেন শোভন।

এর আগে সরকারি হেনস্থার অভিযোগ করে; মিলি আল আমিন কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের পথ থেকে ইস্তফা দেন; প্রাক্তন মেয়র শোভন চ্যাটার্জীর বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। বন্ধু তথা রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী শোভন চ্যাটার্জীকে পাশে বসিয়ে; অধ্যক্ষের পদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন বৈশাখী। সাংবাদিক সম্মলনে হেনস্থার কথা বলতে গিয়ে; কেঁদেই ফেলেন বৈশাখী। এরপরেই শোভনের তৃণমূলের সঙ্গে সব সম্পর্ক শেষ; এটাই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

আরও পড়ুনঃ শোভনকে না পেয়ে বৈশাখীকে সরিয়ে দিল তৃণমূল

দুদিন আগেই রাজ্য বিধানসভার স্পিকার; তৃণমূল নেতা বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়; ফোন করেন শোভনকে। স্পিকার থাকায় অনেকদিন ধরেই তিনি বিধানসভায় শোভনবাবুর; গরহাজির থাকা লক্ষ্য করেছিলেন। এরপরই সরাসরি ফোন করেই; বিধানসভায় উপস্থি্ত থেকে; দলের কাজে পুনরায় যোগ দেওয়ার কথা বলেন তিনি।

আরও পড়ুনঃ মধ্যপ্রদেশেও কি ভাঙছে কংগ্রেস সরকার, ৩৫ জন বিধায়ক নিয়ে জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া কি বিজেপিতে

গত নভেম্বর মাসে দলের কাজ ছেড়ে চলে যাওয়ার পর; শোভনবাবু আর বিধানসভা আসেন নি। এদিকে তিনি বিধানসভায় বিভিন্ন কমিটিতে দায়িত্বপ্রাপ্ত রয়েছেন। বিধানসভায় তাঁর গরহাজিরার জন্য; তাঁর দায়িত্বের কাজ প্রায় বন্ধ। এই খবর স্পিকারের কানে পৌঁছতেই; সরাসরি ফোন করে; তিনি শোভনকে বিধানসভায় আসতে বলেন।

আরও পড়ুনঃ জোর খবর, দলে যোগ দিতে শোভন চ্যাটার্জীকে ফোন করলেন বিমান

স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান থাকায়; শোভনের কাঁধে গুরুদায়িত্ব ছিল। কিন্তু শোভন বিধানসভায় অনিয়মিত হওয়ায়; স্ট্যান্ডিং কমিটির কোন কাজই হচ্ছিল না। তাই বিধানসভার স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়; ফোন করেন শোভনকে। তারপরেই এদিন তিনি ইস্তফা দিয়ে দেন। এরফলে তৃণমূলের সঙ্গে সব সম্পর্কই ছেদ করলেন; মমতার প্রিয় ভাই কানন। আর যেকোনদিন দিদির কাননে মোদীর পদ্ম ফুটবে; এমনটাই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন