প্রসেনজিৎ ঋতুপর্ণা কৌশিক চূর্ণী সৃজিত, টলিউডের গোপন কথা ফাঁস করে দিলেন শ্রীলেখা

18409
টলিউডের গোপন কথা ফাঁস করে দিলেন শ্রীলেখা

সুশান্ত সিং রাজপুতের অকাল মৃত্যুর পর; ডিপ্রেশন নিয়ে মুখ খুলেছেন অনেকেই। সরব হয়েছেন স্বজনপোষন নীতি নিয়ে। উঠে এসেছে; বেশ কিছু তাবড় ব্যক্তিত্বের নাম। অনেকেই সাহস পেয়ে মুখ খুলছেন। বলিউড হোক বা টলিউড; সিনেমা পাড়ার অন্দরের চিত্রটা সর্বত্রই এক। সব জায়গাতেই চলে; দাদা দিদিদের দৌড়াত্ব। বলিউডের পরে; এবার বাংলা টেলি জগতের স্বজনপোষণ নিয়ে মুখ খুললেন; শ্রীলেখা মিত্র। কাঠগোড়ায় দাঁড় করালেন; বাংলার তাবড় অভিনেতা; অভিনেত্রী ও পরিচালকদের।

একেবারে কেরিয়ারের গোড়ার থেকে; কথা বলা শুরু করেন শ্রীলেখা মিত্র। সে সময় দমদম ক্যান্টনমেন্টে থাকতেন অভিনেত্রী। সুশান্তের মতই; তাঁর কোনও গডফাদার ছিল না এই ইন্ডাস্ট্রিতে। ফলে কাজ পেতে; এবং কাজ টিকিয়ে রাখতে তাঁকে বেশ বেগ পেতে হয়েছে। টলিউড ইন্ডাস্ট্রির অন্দরে সবসময়ই ‘পাওয়ার গেম’ চলে বলেছেন অভিনেত্রী। সেই সঙ্গে রয়েছে ক্ষমতার আস্ফালন। শ্রীলেখা বলেন; “১৯৯৭-৯৮ যখন তিনি অভিনয় করতে আসেন; তখন জুটি হিসেবে হিট প্রসেনজিৎ-ঋতুপর্ণা। কোনওদিনই মুখ্য চরিত্রে অভিনয়ের সুযোগ পেলাম না। সবদিনই নায়িকার বোন; দিদি হয়েই থাকতে হল। এমনকী জুটিও তৈরি করতে পারলাম না। কারণ টলিউড চলত; প্রসেনজিৎ-এর কথায়”।

প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় সম্পর্কে শ্রীলেখা মিত্র পরিস্কার জানিয়েছেন; “আমাদের সমাজটাই পুরুষতান্ত্রিক। তাই টলিউড তার বাইরে হবে; এটা আমরা আশা করতে পারি না। বুম্বাদার কথাতেই সমস্ত কিছু চলত। বুম্বাদার একটা আলাদা চেয়ার থাকত। আমি দেখতাম; বুম্বাদা চেয়ারে পায়ের উপর পা তুলে বসে আছেন। কিন্তু পরিচালকরা মাটিতে বসে; তাঁর সঙ্গে কথা বলছেন। ঋতু দেরি করে শ্যুটিং ফ্লোরে আসত। সবাই ওর জন্য অপেক্ষা করত। কিন্তু তাও ওকেই নেওয়া হতো; পরের ছবিতে। তাঁর কথাতেই পরিস্কার; বলিউডের মতই; টলিউডেও নেপোটিজম ইন্ডাস্ট্রিতে আছে, ছিল থাকবে।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন