‘আয়ুষ্মান ভারত যোজনা’ বাংলায় চালু হয়নি কেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারকে নোটিস দিল সুপ্রিম কোর্ট

3402
‘আয়ুষ্মান ভারত’ রাজ্যে চালু হয়নি কেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারকে নোটিস সুপ্রিম কোর্টের
‘আয়ুষ্মান ভারত’ রাজ্যে চালু হয়নি কেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারকে নোটিস সুপ্রিম কোর্টের

‘আয়ুষ্মান ভারত যোজনা’; বাংলায় চালু হয়নি কেন? জানতে চেয়ে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারকে; নোটিস দিল সুপ্রিম কোর্ট। ‘আয়ুষ্মান ভারত যোজনা’ নিয়ে বহুদিন ধরেই; কেন্দ্র রাজ্য চাপানউতোর চলছে। এবার, পশ্চিমবঙ্গ-সহ ৪ রাজ্যকে; নোটিস পাঠাল সুপ্রিম কোর্ট। করোনা পরিস্থিতিতেও, জনসাধারণের জন্য কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য প্রকল্প; ‘আয়ুষ্মান ভারত যোজনা’ চালু করা হয়নি কেন? প্রশ্ন তুলে পশ্চিমবঙ্গ, দিল্লি, তেলেঙ্গানা ও ওড়িশা সরকারের কাছে; কারণ জানতে চেয়েছে সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের ডিভিশন বেঞ্চ।

আরও পড়ুনঃ Ladakh Exclusive: চিনের বিরুদ্ধে তিব্বতিদের প্রতিশোধ নেবার সুযোগ করে দিলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী

প্রধানমন্ত্রী জন আরোগ্য যোজনায়; ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত চিকিৎসা বিমার সুবিধা পাওয়া যায়। ‘আয়ুষ্মান ভারত যোজনা’ প্রকল্পটি নিয়ে; গত লোকসভা ভোটে জমে উঠেছিল; তৃণমূল বিজেপির লড়াই। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে বাংলার মানুষকে; বঞ্চিত করার অভিযোগ আনে বিজেপি। তার পাল্টা রাজ্যের স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পের কথা; তুলে ধরেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ঘোষণা করেন, আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্প; রূপায়ণ হবে না রাজ্যে।

‘আয়ুষ্মান ভারত যোজনা’ নিজেদের রাজ্যে চালু করেনি; তেলেঙ্গানার কেসিআর সরকার; দিল্লির কেজরিওয়াল সরকার এবং ওড়িশার নবীন পট্টনায়েক সরকারও। এনিয়ে সুপ্রিম কোর্টে জনস্বার্থ মামলায় দাবি করা হয়েছে; কেন্দ্রীয় যোজনা রূপায়ণ না করা অসাংবিধানিক, বেআইনি এবং সংবিধানের ১৪ ও ২১ নম্বর ধারার পরিপন্থী। এরপরেই, কেন আয়ুষ্মান যোজনা রূপায়ন করা হয়নি; তা জানতে ৪ রাজ্যকে নোটিস পাঠাল সুপ্রিম কোর্ট। এই চার রাজ্যই এখন বিরোধীদের দখলে। এ নিয়ে পেরালা শেখর রাও নামে; জনৈক ব্যক্তি সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন।

আরও পড়ুনঃ চিনের ভাষাতেই জবাব দিচ্ছে দেশ, প্যাংগং হ্রদের চারপাশে উঁচু পাহাড়চূড়ো এখন ভারতীয় সেনাবাহিনীর দখলে

এই প্রকল্পে দেশের নিম্নবিত্ত ৫০কোটি মানুষের জন্য; বার্ষিক ৬৪০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে কেন্দ্র। এই প্রকল্পের আওতায় সাম্প্রতিক মহামারী সংকট; অর্থাৎ কোভিড সংক্রান্ত পরীক্ষা থেকে চিকিৎসা; সব পরিষেবাই পাওয়া যাবে। মমতা প্রশাসনের দাবি; এখানকার ‘স্বাস্থ্যসাথী’ প্রকল্প, কেন্দ্রের ‘আয়ুষ্মান ভারত’-এর তুলনায় অনেক বেশি কার্যকরী। এছাড়া এ রাজ্যের সরকারি হাসপাতালগুলিতে; বিনামূল্যে চিকিৎসার সুবিধা পান আমজনতা। এ রাজ্যে ‘আয়ুষ্মান ভারত যোজনা’ চালু করার; কোনও যৌক্তিকতা নেই বলেই দাবি নবান্নের।

প্রধান বিচারপতি এস এ বোবদের নেতৃত্বাধীন; তিন বিচারপতির বেঞ্চ পশ্চিমবঙ্গ-সহ এই চার রাজ্যকে নোটিস পাঠায়। জানতে চাওয়া হয়; কেন এই সংকটকালেও এই কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য প্রকল্প চালু করা হল না। দুসপ্তাহ পর ফের এ নিয়ে শুনানি। তার মধ্যে সুপ্রিম কোর্টে জবাব দিতে হবে; পশ্চিমবঙ্গ, দিল্লি, তেলেঙ্গানা, ওড়িশা প্রশাসনকে।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন