বাংলায় বিরোধিতা দিল্লিতে তৃণমূলকে সমর্থন, ফের ‘ঐতিহাসিক ভুল’ সিপিএম-এর

2143
বাংলায় বিরোধিতা দিল্লিতে তৃণমূলকে সমর্থন, সিপিএম-এর আবারও এক 'ঐতিহাসিক ভুল'
বাংলায় বিরোধিতা দিল্লিতে তৃণমূলকে সমর্থন, সিপিএম-এর আবারও এক 'ঐতিহাসিক ভুল'

বাংলায় বিরোধিতা, দিল্লিতে তৃণমূলকে সমর্থন; সিপিএম-এর আবারও এক ‘ঐতিহাসিক ভুল’। এমনটাই মনে করছে; বাংলার রাজনৈতিক মহল। রাজ্যে বিরোধিতা; কেন্দ্রীয় রাজনীতিতে মমতাকে সমর্থন। এটাই এখন বাংলা সিপিএমের; নয়া নীতি। পশ্চিমবঙ্গে সিপিএমের সাধারণ সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র; বৃহস্পতিবার এমনই বার্তা দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর চেয়ার থেকে, নরেন্দ্র মোদীকে সরাতে; তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্ধ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে কেন্দ্রীয় স্তরে হাত মেলাতে; কোনো অসুবিধা নেই সিপিএমের। মোদীর বিরুদ্ধে বিরোধী ঐক্যের স্বার্থে; এই নীতি নেওয়া হয়েছে বলে জানাচ্ছেন সিপিএম নেতারা।

তবে তার সঙ্গে তারা এটাও স্পষ্ট করেছেন যে; পশ্চিমবঙ্গে মমতার কট্টর বিরোধিতার রাস্তা থেকে; তারা সরে আসছে না। সিপিএম-এর এই সিদ্ধান্তকে; আবারও এক ‘ঐতিহাসিক ভুল’ বলে মনে করছে বাংলার রাজনৈতিক মহল। সিপিএমের সাধারণ সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র বৃহস্পতিবার জানিয়েছেন; “আমাদের বলা হয়েছিল; বিজেপির বিরুদ্ধে সর্বভারতীয় ক্ষেত্রে; বিরোধী জোটে মমতা থাকবেন। তাতে আমাদের কোন অসুবিধা নেই। বিরোধী জোটে সকলেই আসতে পারেন। কিন্তু এই ব্যবস্থা পশ্চিমবঙ্গের ক্ষেত্রে হবে না”।

আরও পড়ুনঃ পরীক্ষা বাতিল, স্কুল লোকাল ট্রেন বন্ধ, বাংলার ফের ভোটের প্রস্তুতি শুরু

কেন রাজ্যে তৃণমূলের বিরোধিতা করছেন এবং করবেন; তার যুক্তিও দিয়েছেন সূর্যকান্ত। তাঁর কথায়, “পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল সরকার স্বৈরাচারী; তারা বিরোধীদের কন্ঠরোধ করে। তাদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির; প্রচুর অভিযোগ রয়েছে। ফলে তারা পশ্চিমবঙ্গে; তৃণমূলের সঙ্গে হাত মেলাবেন না”। সূর্যকান্ত মিশ্র আরও জানান; “কেন্দ্রীয় রাজনীতিতে; সিপিএমের মূল শত্রু হল বিজেপি। কিন্তু রাজ্যের ক্ষেত্রে; বামেদের কাছে বিজেপি ও তৃণমূল দুজনেই শত্রু। দুই দলের বিরুদ্ধেই; সিপিএম লড়বে”।

আরও পড়ুনঃ “রাত ৯টার পর রাস্তায় বেরনো নারীরা ‘পতিতা’, তাদের ধর’ষণ করাই উচিৎ”, ঘোষণা কেরলের মৌলানার

রাজনৈতিক মহলের মতে, ‘কেন্দ্রে দোস্তি, রাজ্যে কুস্তি’; এই নীতি নিয়ে চলা যায় না। যদিও ভারতে রাজনৈতিক জোটের ক্ষেত্রে; এমনটা হামেশাই হয়েছে এবং এখনও হচ্ছে। কংগ্রেস পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূলের বিরুদ্ধে লড়লেও; জাতীয় রাজনীতিতে মমতাকে সঙ্গে নিয়ে চলে। সিপিএমও এখন; সেই নীতি নিল। তবে সিপিএম-এর এই নীতি কতটা সফল হবে; তা নিয়ে সন্ধেহ প্রকাশ করেছে বিশেষজ্ঞরা। কারণ কংগ্রেসের এই দ্বিমুখী নীতির জন্যই, সিপিএমের বিরুদ্ধে লড়তে; কংগ্রেসকে ছুঁড়ে ফেলে, মমতার তৃণমূলকে বেছে নিয়েছিল বাংলার মানুষ।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন