‘গো’লী মা’রো শা’লো কো’, বিজেপি নেতা গ্রে’ফতার, তৃণমূলকে ছাড়

1288
'গো'লী মা'রো শা'লো কো', বিজেপি নেতা গ্রে'ফতার, তৃণমূলকে ছাড়
'গো'লী মা'রো শা'লো কো', বিজেপি নেতা গ্রে'ফতার, তৃণমূলকে ছাড়

‘গো’লী মা’রো শা’লো কো’; স্লোগান এক, কিন্তু বিজেপি নেতা গ্রে’ফতার; আর তৃণমূলকে ছাড়। গত বুধবার হুগলির চন্দননগরে; শুভেন্দু অধিকারীর মিছিল থেকে স্লোগান ওঠে; ‘তৃণমূল কে গ’দ্দারো কো; গো’লি মা’রো শা’লো কো’। এর পাশাপাশি শোনা যায়; ‘হাম সে যো টকরায়েগা চুরচুর হো যায়েগা। দেশ কে গ’দ্দারো কো; গো’লি মা’রো শালোকো’। এই স্লোগানের জেরে; বিতর্ক শুরু হয়েছে। এই ঘটনায়, বিজেপি যুব মোর্চার জেলা সভাপতি সুরেশ সাউ সহ; গ্রে’ফতার করা হয় প্রভাত গুপ্তা ও রবীন ঘোষকে। গতরাতে তাদের গ্রে’ফতার করে; চন্দননগর থানার পুলিশ। কিন্তু একই অ’ভিযোগে অ’ভিযুক্ত; তৃণমূল সমর্থকদের বি’রুদ্ধে কোন আইনি ব্যবস্থা নেয়নি পুলিশ; এমনটাই অ’ভিযোগ।

ভোটের বাজারে ‘গো’লী মা’রো’ স্লোগান নিয়ে; শুরু হয়ে গেছে রাজনৈতিক তরজা। বিধানসভা নির্বাচন যত এগিয়ে আসছে; তত রাজ্য-রাজনীতি উ’ত্তপ্ত হয়ে উঠছে। আ’ক্রমণ ও পালটা আ’ক্রমণের পালা চলছে; শা’সক ও বিরোধীদের মধ্যে। মঙ্গলবার দক্ষিণ কলকাতায় অরূপ বিশ্বাসের নেতৃত্বে; তৃণমূলের মিছিলে প্রথম ‘দেশ কে গ’দ্দারো কো গো’লি মা’রো’ স্লোগান ওঠে। যা নিয়ে সমালোচনার ঝড় ওঠে বিভিন্ন মহলে। বিজেপি নেতারা গ্রে’ফতার হলেও; ধরা হয়নি তৃণমূল সমর্থকদের।

আরও পড়ুনঃ ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালের নাম বদলে রাখা হচ্ছে নেতাজী মেমোরিয়াল, মোদী সরকারের ‘মাস্টারস্ট্রোক’

তৃণমূল মুখপাত্র কুণাল ঘোষ জানান; “অতি উৎসাহীদের আচরণ সমর্থনযোগ্য নয়। প্রয়োজনে দলের তরফে; ক’ড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে”। এদিন বিজেপির মিছিলের স্লোগান নিয়ে; কুনাল ঘোষের সঙ্গে কথা বললে তিনি জানান; “যে কোন রাজনৈতিক দলেই এই ধরনের স্লোগান সমর্থনযোগ্য নয়”। নেতাদের গ্রে’ফতারির প্র’তিবাদে; বৃহস্পতিবার চন্দননগর থানায় বি’ক্ষো’ভ বিজেপির।

আরও পড়ুনঃ ভোটের মুখে আমফান দুর্নীতি মামলায় ধাক্কা খেল রাজ্য, ক্যাগকে দিয়ে তদন্তের রায়ই বহাল হাইকোর্টে

বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং বলেন; “আমাদের দলে গু’লি মা’রা; ব’ন্দুক মা’রা স্লোগান চলে না। শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের আদর্শে আদর্শিত এই দল”। বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন; “আমাদের কোনও কর্মী এই ধরনের স্লোগান দিতে পারে না। বিজেপির একটা আদর্শ আছে। তৃণমূল কর্মীদের ভিতরে ঢুকিয়ে বি’শৃঙ্খ’লা সৃষ্টি; বদনাম করার চেষ্টা হচ্ছে”। কিন্তু একই দোষে, বিজেপি নেতারা গ্রেফতার; আর তৃণমূল নেতাদের ছাড় কেন? এটাই এখন বড় প্রশ্ন।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন