ভারতে লিঙ্গসাম্যের নতুন ইতিহাস, প্রজাতন্ত্র দিবসে ফ্লাইপাস্ট প্যারেডের নেতৃত্ব দেবেন স্বাতী রাঠোর

3578
ভারতে লিঙ্গসাম্যের নতুন ইতিহাস, প্রজাতন্ত্র দিবস ফ্লাইপাস্ট প্যারেডের নেতৃত্বে স্বাতী রাঠোর
ভারতে লিঙ্গসাম্যের নতুন ইতিহাস, প্রজাতন্ত্র দিবস ফ্লাইপাস্ট প্যারেডের নেতৃত্বে স্বাতী রাঠোর

ভারতে লিঙ্গসাম্যের নতুন ইতিহাস রচিত হচ্ছে; প্রজাতন্ত্র দিবস ফ্লাইপাস্ট প্যারেডের নেতৃত্বে স্বাতী রাঠোর। প্রজাতন্ত্র দিবস নিয়ে; রাজধানীতে শুরু হয়ে গিয়েছে চূড়ান্ত পর্যায়ের প্রস্তুতি। নানা দেশের নিমন্ত্রিত রাষ্ট্রনায়কদের সামনে; কুচকাওয়াজে অংশ নেবে দেশের সেনাবাহিনী। রাজধানীর আকাশে উড়বে; বায়ুসেনার বিমান। আর এই অনুষ্ঠানে; এবার দেখা যাবে বিশেষ চমক। ফ্লাইপাস্ট প্যারেডের নেতৃত্ব দেবেন; একজন মহিলা পাইলট। যা দেশে এই প্রথমবার। প্রজাতন্ত্র দিবসের এই প্যারেডের নেতৃত্ব দেবেন; এয়ার লেফট্যানেন্ট স্বাতী রাঠোর।

আসছে আরও একটি প্রজাতন্ত্র দিবস। ৭০ বছরে পা দিল দেশের সংবিধান। আর প্রতি বছরের মতো এবারেও, নানা দেশের নিমন্ত্রিত রাষ্ট্রনায়কদের সামনে; কুচকাওয়াজে অংশ নেবে দেশের সেনাবাহিনী। দিল্লির আকাশে; উড়ে যাবে বায়ুসেনার বিমান। তবে এবছর রয়েছে; আরও একটি বিশেষ চমক। কারণ এ-বছর ফ্লাইপাস্ট প্যারেডের নেতৃত্ব দেবেন; একজন মহিলা সেনা আধিকারিক। এই দেশে এই প্রথমবার। ভারতীয় বায়ুসেনার তরফ থেকে, এবার এই দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে; এয়ার লেফট্যানেন্ট স্বাতী রাঠোরকে।

রাজস্থানের আজমের শহরের কাছে; নাগৌরে জেলার একটি গ্রামে জন্ম স্বাতীর। বাবা ভবানী রাঠোর ছিলেন; সেচ বিভাগের উচ্চপদস্থ কর্মচারী। খুব ছোটবেলা থেকেই, দেশের জাতীয় পতাকার প্রতি; বিশেষ আকর্ষণ ছিল স্বাতীর। তখন অবশ্য বায়ুসেনায়; মহিলাদের অংশগ্রহণ ভাবাই যেত না। কিন্তু মেয়ের স্বপ্নকে; কোনোদিন বাধা দিতে চাননি বাবা। এক ছেলে এবং এক মেয়েকে; বড়ো করেছেন সমানভাবেই। ২০১৩ সালে এল সুযোগ। বায়ুসেনার পরীক্ষায় বসলেন স্বাতী। আর ২০০ জন প্রতিযোগীর মধ্যে থেকে; একমাত্র তাঁকেই বেছে নেওয়া হল।

আরও পড়ুনঃ মোদী সরকারের নির্দেশে, ৩০ জানুয়ারি সকাল ১১টায় চুপ হয়ে যাবে গোটা দেশ

২০১৪ সাল থেকে; সাফল্যের সঙ্গে নিজের দায়িত্ব পালন করে গিয়েছেন স্বাতী। তবে এবার এত বড় দায়িত্ব যে তিনি পেয়েছেন; তা এখনও নিজেই বিশ্বাস করতে পারছেন না স্বাতী। তাঁকে অভিনন্দন জানিয়েছে; রাজস্থান সরকারও। স্বাতীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন; রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বসুন্ধরা রাজে।

স্বাতীর দাদাও; ভারতীয় নৌসেনায় কর্মরত। স্বাতীর বাবা ভবানী সিংহ রাঠোর বলেন; “আমার ময়ে আমার মাথা উঁচু করেছে। ও যা স্বপ্ন দেখেছিল। সেটা বাস্তবায়িত করতে পেরেছে। এতে আমি খুব খুশি। প্রত্যেক বাবা মায়ের তাঁর সন্তানের স্বপ্ন পূরণে; শামিল হওয়া উচিৎ”।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন