বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে শত্রু খোঁজার কাজ শুরু করল তালিবানরা

6311
বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে শত্রু খোঁজার কাজ শুরু করল তালিবানরা
বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে শত্রু খোঁজার কাজ শুরু করল তালিবানরা

২০ বছর ধরে, আমেরিকা ও ন্যাটোর সেনাবাহিনীকে, সাহায্য করা আফগান নাগরিকদের; যাবতীয় তথ্য এখন তালিবানের হাতে। সেই তথ্য গুলিকে হাতিয়ার করেছে তালিবানেরা। আমেরিকা ও ন্যাটো বাহিনীর ফেলে যাওয়া বায়োমেট্রিক প্রযুক্তির দখলও নিয়েছে তারা। সেই বায়োমেট্রিক পদ্ধতি হাতিয়ে; শত্রু খোঁজার কাজ শুরু করল তালিবানরা। বায়োমেট্রিক প্রযুক্তির মাধ্যমে মার্কিন বাহিনীকে সাহায্য করা আফগানদের শনাক্ত করা হচ্ছে। এ জন্য ‘আল ঈসা’ নামের নতুন একটি ইউনিট কাজ করবে। তালিবানের হাতে ধরা পরে যাবার ভয়ে; আফগানিস্তান থেকে পালিয়ে যাবার; হিড়িক পরে গেছে আফগান নাগরিকদের মধ্যে।

২০ বছর ধরে আমেরিকা ও তার বন্ধুদেশ-গুলির সেনাবাহিনীকে সাহায্য করা; যাবতীয় আফগানদের নাম ঠিকানা ও আই স্ক্যান আখন তালিবানদের হাতে। ‘আল ঈসা’ ইউনিটের ব্রিগেড কমান্ডার নিয়াজউদ্দিন হাক্কানি এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন; “এর মধ্যেই মার্কিন বহনযোগ্য বায়োমেট্রিক স্ক্যানার ব্যবহার করা শুরু করেছে তালিবান। এসব স্ক্যানারের মধ্যে মার্কিন বাহিনীর তৈরি ডেটাবেস থেকে সহজেই; মার্কিন বা ভারতীয় গোয়েন্দাদের সঙ্গে কাজ করেছেন; এমন আফগানদের চিহ্নিত করা যাবে”।

আরও পড়ুনঃ ইতিহাসের সবচেয়ে বড় বিশ্বাসঘাতকতা, আমেরিকাকে সাহায্য করা আফগান নাগরিকদের যাবতীয় তথ্য তালিবানের হাতে

কাবুলে ব্রিটিশ দূতাবাসে তালিবানিরা হামলা চালালে; প্রাণ বাঁচাতে দূতাবাসের কর্মীরা; সমস্ত কাগজপত্র অফিসে ফেলেই পালিয়ে আসেন বিমানবন্দরে। ব্রিটিশ ফোর্স ও ব্রিটিশ অফিসে কাজ করা; সব আফগানদের যাবতীয় তথ্য এখন তালিবানের হাতে।

আরও পড়ুনঃ মার্কিন সেনা মৃত্যুর প্রতিশোধ, আইএস ঘাঁটি উড়ে গেল আচমকা বিমান হামলায়

আফগানিস্তানে মার্কিন বাহিনীর প্রস্তুত করা ডেটাবেসে আঙুলের ছাপ; চোখের মণির মাধ্যমে শনাক্ত করা সহ আফগানদের নানা শনাক্তকরণ তথ্য যুক্ত রয়েছে। ‘আল ঈসা’ ইউনিটের ব্রিগেড কমান্ডার জানিয়েছেন; “মার্কিন বাহিনীর সঙ্গে কারা কাজ করেছেন বা করেননি; এই সমস্ত তথ্যের ভিত্তিতে খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে”।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন