লক্ষ্য বাংলা, দিল্লিতে অমিত শাহের বাড়িতে মুকুল রায়ের সঙ্গে একান্ত বৈঠক

2736
লক্ষ্য বাংলা, দিল্লিতে অমিত শাহের বাড়িতে মুকুল রায়ের সঙ্গে একান্ত বৈঠক
লক্ষ্য বাংলা, দিল্লিতে অমিত শাহের বাড়িতে মুকুল রায়ের সঙ্গে একান্ত বৈঠক

লক্ষ্য বাংলা, আর তাই দিল্লিতে অমিত শাহের বাড়িতে; মুকুল রায়ের সঙ্গে একান্ত বৈঠক করলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। ২০২১ বাংলা বিধানসভা শুধুই নয়; ২০২৪ এও বাংলা থেকে যতটা সম্ভব লোকসভা আসন পাবার ভাবনা চিন্তা করছে বিজেপি। তাই, গত বৃহস্পতি ও শুক্রবার দুদিনই অমিত শাহর সঙ্গে কথা হয় বিজেপির জাতীয় কর্মসমিতির সদস্য তথা রাজ্য বিজেপির অন্যতম মুখ মুকুল রায়ের। ২০২১ এ বাংলায় বিধানসভা নির্বাচনে; দলের প্রচার কৌশল কি হতে পারে। করোনা ও আমফান ইস্যুতে তৃণমূল সরকারের ব্যর্থতার বিভিন্ন বিষয়গুলি; কিভাবে মানুষের সামনে তুলে ধরা হবে; সে নিয়ে আলোচনা হয়েছে বলে খবর।

আরও পড়ুনঃ লাদাখ সীমান্তে ভারতীয় সেনার পাল্টা গুলিতে, ৫ চিনা সেনার মৃত্যু, ১১ জন আহত

বাংলার নির্বাচনে বিজেপির ভরসা মুকুল রায়

একুশে পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা ভোট; এখন বিজেপির পাখির চোখ। গত ৯ জুনের ভার্চুয়াল সভাতেও; নিজের বক্তব্যে তা স্পষ্ট করে দিয়েছেন অমিত শাহ। তাই বাংলার ক্ষমতা দখলের লক্ষে; এখন থেকেই ঘুঁটি সাজানো শুরু করে দিয়েছে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। আর সেটা যে মুকুল রায় কে কেন্দ্র করেই শুরু হয়েছে; দুদিন পরপর বৈঠকে সেটাই প্রমাণ করে দিলেন অমিত শাহ।

আরও পড়ুনঃ বিজেপি LED টিভি পৌঁছে দিল, রাজ্য এখনও রেশন পৌঁছতে পারল না

যদিও বিজেপি কেন্দ্রীয় সভাপতি জে পি নাড্ডা এখন; রাজ্যের বিষয়গুলি দেখেন। বড় পরিস্থিতি হলে; তবেই তা দেখেন অমিত শাহ। তাই এই পরিস্থিতিতে মুকুল রায়ের সঙ্গে পরপর দুদিন বৈঠক; নিয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে বাংলা ও দিল্লি বিজেপির অন্দরেই। এর থেকে একটা জিনিস পরিষ্কার; মুকুল রায়কে নির্বাচনের মাথা করেই বাংলা দখল করতে উদ্যোগী হল কেন্দ্রীয় বিজেপি।

মুকুল রায়কে এই বৈঠক নিয়ে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি জানান; “মূলত আলোচনার বিষয় ছিল বিধানসভা ভোট। অমিত শাহ-সহ কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব; পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা ভোট নিয়ে খুবই সিরিয়াস। তাই নিয়েই দুদিন আলোচনা হয়”। মুকুলবাবুর সঙ্গে দিল্লি গিয়েছিলেন; সল্টলেকের প্রাক্তন মেয়র তথা বিধায়ক সব্যসাচী দত্ত। সব্যসাচীবাবুর উপর হামলার ঘটনার বিষয়েও; কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বিশদে জেনেছেন। তবে, দিল্লিতে শাহর সঙ্গে মুকুল রায়ের একান্ত বৈঠকে; সব্যসাচী ছিলেন না।

আরও পড়ুনঃ ‘যাকে-তাকে নিয়ে টিকিট দিয়ে, মমতার মত ভুল করবেন না’, দিলীপ ঘোষকে আর্জি বিজেপি কর্মীদের

ক্রমশই জল্পনা বাড়ছে; মুকুল রায়কে নিয়ে। মুকুল রায়কে কেন্দ্রীয় সংগঠনে; বড় কোনও পদ দেওয়া হতে পারে, দিল্লি সূত্রে এমনটাই খবর। সেইসঙ্গে তাঁকে রাজ্যসভার সাংসদ করে; মন্ত্রীও করা হতে পারে, এমন আলোচনাও চলছে রাজনৈতিক মহলে। মুকুল রায় তৃণমূলে থাকাকালীন; জাহাজ প্রতিমন্ত্রী আবার রেলমন্ত্রীও ছিলেন। ফলে মন্ত্রিত্বের আটঘাট তাঁর ভালোই চেনা। তিনি এই বিষয়ে বিজেপির অনেকের থেকেই; তিনি বেশ পোড়খাওয়া। তাই মুকুল রায়কে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীসভায় দেখতে পাওয়াটা; অস্বাভাবিক কিছুই নয়। তাতে বাংলায় তৃণমূলকে ভাঙতে আরও সুবিধা হবে মুকুল রায়ের।

মুকুল রায় বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন ২০১৭ সালে। তারপর তিন বছর কেটে গিয়েছে। কিন্তু এখনও কোনও পদ নেননি মুকুল রায়। তিনি নিজেই বারবার জানিয়েছেন; “কোনও পদের দরকার নেই তাঁর; তিনি শুধু চান মমতাকে হারাতে। আর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারর পতনের জন্য যে মুকুলের সহযোগিতা একান্তই দরকার; তা মোদী-শাহের থেকে কেউ ভালো বোঝেন না।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন