কেন্দ্র মানবাধিকার কমিশনের রিপোর্টে, ‘কুখ্যাত দুষ্কৃতী’র তালিকায় তৃণমূলের একাধিক নেতা-মন্ত্রী

2348
কেন্দ্র মানবাধিকার কমিশনের রিপোর্টে, ‘কুখ্যাত দুষ্কৃতী’র তালিকায় তৃণমূলের একাধিক নেতা-মন্ত্রী
কেন্দ্র মানবাধিকার কমিশনের রিপোর্টে, ‘কুখ্যাত দুষ্কৃতী’র তালিকায় তৃণমূলের একাধিক নেতা-মন্ত্রী

কেন্দ্র মানবাধিকার কমিশনের রিপোর্টে; ‘কুখ্যাত দুষ্কৃতী’র তালিকায় উঠে এল; তৃণমূলের একাধিক নেতা-মন্ত্রীর নাম। ভোট পরবর্তী হিংসার প্রেক্ষিতে, জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের এই রিপোর্টে; রীতিমতো তোলপাড় রাজ্য রাজনীতি। প্রাথমিকভাবে এই রিপোর্টে; রাজ্য সরকারকে তুলোধোনা করা হয়েছিল। এ বার উঠে এল; আরও বিস্ফোরক তথ্য। এই রিপোর্টে একাধিক প্রথম সারির তৃণমূল নেতাকে; ‘কুখ্যাত দুষ্কৃতী’ বলে উল্লেখ করা হয়েছে। তালিকায় নাম রয়েছে, রাজ্যের বনমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক; মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্বাচনী এজেন্ট শেখ সুফিয়ান; উত্তরবঙ্গের তৃণমূল নেতা উদয়ন গুহ-সহ একাধিক নেতার নাম।

রাজ্যে ভোট পরবর্তী হিংসার রিপোর্ট; কলকাতা হাইকোর্টে জমা দিয়েছে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন। কমিশনের ওই রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে; “রাজ্যে আইনের শাসন নেই; শাসকের ইচ্ছাই এখানে আইন”। ওই রিপোর্টে, ‘কুখ্যাত দুষ্কৃতী’র তালিকায় নাম রয়েছে; রাজ্যের শাসকদলের একাধিক নেতা ও মন্ত্রীর। শুধু তাই নয়, ওই রিপোর্টে হিংসার ঘটনায়; একাধিক মহিলার নামও রয়েছে। সব মিলিয়ে ১০০ জনের বেশি নাম রয়েছে; কমিশনের ‘কুখ্যাত দুষ্কৃতী’ বা ‘গুণ্ডা’র তালিকায়। এর মধ্যে রাজ্যের মন্ত্রী, একাধিক প্রাক্তন ও বর্তমান বিধায়ক; একাধিক কাউন্সিলর-সহ ১০ জনের বেশি ওজনদার নেতার নাম রয়েছে।

তবে তৃণমূল নেতৃত্ব; এই রিপোর্ট মানতে নারাজ। তাদের মতে, কমিশনের ওই রিপোর্টটি; সম্পূর্ণ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। রাজ্য ভোট পরবর্তী হিংসার ঘটনায় হাইকোর্টে পেশ করা; জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের রিপোর্টে, ‘কুখ্যাত দুষ্কৃতী’র তালিকায়; জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক; উদয়ন গুহ; শেখ সুফিয়ান; পার্থ ভৌমিক; শওকত মোল্লা; জীবন সাহা; খোকন দাসের মতো রাজ্যের একাধিক মন্ত্রী, বিধায়ক-সহ একাধিক তৃণমূল নেতার নাম।

আরও পড়ুনঃ ইঞ্জেকশন চুরির একই অভিযোগ, ডাক্তার নার্সকে শাস্তি, তৃণমূল বিধায়ককে পুরস্কার

এই রিপোর্ট উদ্দেশ্যপ্রণোদিত-একতরফা; বলে মন্তব্য করেছেন তৃণমূল নেতারা। রাজ্যে ভোট পরবর্তী হিংসা পরিস্থিতির পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট; দিন দুই আগেই কলকাতা হাইকোর্টে জমা দিয়েছে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের প্রতিনিধিদল। মুখ বন্ধ খামের সেই রিপোর্ট; বৃহস্পতিবার প্রকাশ্যে এল। এই সব ঘটনায় সিবিআই তদন্তের সুপারিশ করেছেন; প্রতিনিধি দলের সদস্যরা।

এই মামলার; পরবর্তী শুনানি আগামী ২২ জুলাই। তার আগে মানবাধিকার কমিশনের রিপোর্টে, CBI-এর সুপারিশ; হাইকোর্টের ৫ বিচারপতির বৃহত্তর বেঞ্চে বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ। জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের এই রিপোর্ট নিয়ে; তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন; মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন